মহিলা সংসদ সদস্য হতে প্রয়াত নেতাদের স্বজনদের দৌড়ঝাঁপ

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ১১৬ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:–দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাধারণ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনেছিলেন ৬৮ জন নারীনেত্রী। কিন্তু নৌকার টিকেট পান শুধুমাত্র সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য খাদিজাতুল আনোয়ার সনি। চট্টগ্রামের নারীদের মধ্যে সরাসরি ভোটে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা জানান, সংরক্ষিত মহিলা আসনের প্রার্থিতা জানান দিতেই আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনেছেন নারীনেত্রীরা। দলীয় মনোনয়ন কেনা ৬৮ জনের মধ্যে ৮-১০ জন ইতিমধ্যেই দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তাদের মধ্যে বেশির ভাগই আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান প্রয়াত নেতাদের স্ত্রী ও সন্তান। চট্টগ্রামের ১৬ আসনের নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান ও প্রয়াত নেতাদের মেয়ে-সন্তানরা নৌকার টিকেটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

 

গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা ইতিমধ্যেই শপথ গ্রহণ করেছেন। মন্ত্রিসভাও গঠন করেছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ। এখন সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচনের পালা।

 

সংবিধানে জাতীয় সংসদের ৫০টি আসন মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত রয়েছে। সাধারণ আসনে নির্বাচনের ফলের অনুপাত অনুযায়ী রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে এই আসন সংখ্যা ভাগ করা হবে। আওয়ামী লীগ এবার ২২৩টি আসনে জয় পায়। সেই হারে ৩৭টি সংরক্ষিত আসন পেতে পারে সরকারি দল আওয়ামী লীগ। সাধারণ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা মহিলা আসনের সদস্যদের নির্বাচনে ভোট প্রদান করবেন।

 

জাতীয় সংসদ (সংরক্ষিত মহিলা আসন) নির্বাচন আইন অনুযায়ী, নির্বাচনের ফলাফলের গেজেট প্রকাশের পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের রাজনৈতিক দল বা জোটওয়ারি সদস্যদের তালিকা প্রস্তুত করবে ইসি। সেই হিসাবে আগামী ৭ এপ্রিলের মধ্যে সংরক্ষিত আসনের জন্য নির্বাচন করতে হবে।

 

সংরক্ষিত আসনের তফসিল

নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ গত মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের বলেছেন, সংসদ সচিবালয় থেকে সংসদ সদস্যদের তালিকা পেয়েছে নির্বাচন কমিশন। আগামী সপ্তাহে ইসির অনুমোদন পেলে ফেব্রুয়ারিতে মহিলা আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে।

 

যাদের নাম বেশি উচ্চারিত হচ্ছে

একাদশ জাতীয় সংসদে চট্টগ্রাম থেকে দুইজন সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য ছিলেন। তারা হলেন, ওয়াসিকা আয়শা খান ও খাদিজাতুল আনোয়ার সনি। সনি এবার দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সাধারণ আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ওয়াসিকা আয়শা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পছন্দের তালিকার অন্যতম। দুই সংসদে সংরক্ষিত আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন তিনি। এবারও সংরক্ষিত আসনে সংসদ সদস্য হতে পারেন বলে বেশি শোনা যাচ্ছে।

 

ওয়াসিকা আয়শা খান বলেন, ‘নিষ্ঠা ও সততার সাথে জনকল্যাণকর কাজসহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছি। আবারও সুযোগ পেলে আদর্শ সমুন্নত রেখে কাজ করবো।’

 

এছাড়াও সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন। তিনি নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক মেয়র প্রয়াত এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী স্ত্রী এবং শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের মাতা। আছেন সাবেক সংসদ সদস্য প্রয়াত ডা. আফছারুল আমীনের স্ত্রী ডা. কামরুন্নেছা, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মহিলা এমপি চেমন আরা তৈয়ব। আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা আবদুল্লাহ আল হারুণের মেয়ে সাধারণ সম্পাদক শামীমা হারুণ লুবনা। চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনের সদ্য সাবেক সংসদ সদস্য আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর স্ত্রী কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য রিজিয়া রেজা চৌধুরী। উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দিলোয়ারা ইউসুফ, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট বাসন্তী প্রভা পালিত, সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্বয়ক এডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী। প্রয়াত সংসদ সদস্য ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদের মেয়ে কাজী শারমিন সুমী। তিনি দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক। মহানগর যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক সায়েরা বানু রৌশনী।

 

হাসিনা মহিউদ্দিন বলেন, ‘সংরক্ষিত মহিলা আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি রয়েছে। তফসিল ঘোষণা করা হলে দলীয় মনোনয়ন চাইব।’

 

নবম জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন চেমন আরা তৈয়ব। বর্তমানে তিনি দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি বলেন, ‘সরাসরি আসনে নির্বাচন করতে লড়াই করেছি। ভাগ্যে জুটেনি। তারপরও প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া নৌকা প্রার্থীর জন্য মন-প্রাণ দিয়ে কাজ করে বিজয়ী করেছি। প্রধানমন্ত্রীর উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ^াস রয়েছে। তার সিদ্ধান্ত শিরোধার্য।’

 

শামীমা হারুণ লুবনা বলেন, ‘জনগণের জন্য কাজ করা ‘রাজনীতিবিদদের বড় প্লাটফর্ম হচ্ছে জাতীয় সংসদ। মহিলা সংসদ সদস্য হিসেবে সুযোগ পেলে মানুষের জন্য আরও বড় পরিসরে কাজ করতে চাই।’

 

কাজী শারমিন সুমী বলেন, ‘ছাত্রজীন থেকে আমৃত্যু বাবা (মোছলেম উদ্দিন আহমদ) দেশ ও জনকল্যাণে রাজনীতি করেছেন। শিশুকাল থেকে রাজনীতির সঙ্গে হাতেখড়ি। বাবার অসমাপ্ত কাজ শেষ করার জন্য আশা করছি প্রধানমন্ত্রী আমাকে মনোনয়ন দেবেন।’

 

উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাসন্তী প্রভা পালিত বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাকে যোগ্য মনে করলে মনোনয়ন দিবেন।’পূর্বকোণ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions