শিরোনাম
রাঙ্গামাটির লংগদুতে সন্ত্রাসীদের হামলায় নিহত ২ মরদেহ রাঙ্গামাটি সদর হাসপাতালে স্কুলে ভর্তির টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ার নির্দেশনা,ব্যাপক প্রতিক্রিয়া বিকল্প চিন্তা শেখ হাসিনার প্রতি নরেন্দ্র মোদির অবিরাম সমর্থনে বাংলাদেশ ক্ষুব্ধ অর্থনীতিকে ধারণ করার সক্ষমতা হারাচ্ছে ব্যাংকিং খাত : ফাহমিদা খাতুন ২৬ কোম্পানির বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা রাঙ্গামাটিতে ইউপিডিএফ সদস্যসহ ২ জনকে হত্যার প্রতিবাদে ২০ মে জেলায় অর্ধদিবস সড়ক ও নৌপথ অবরোধের ডাক রাঙ্গামাটির লংগদুতে সন্তু গ্রুপ কর্তৃক ইউপিডিএফ সদস্যসহ ২ জনকে গুলি করে হত্যার নিন্দা ও প্রতিবাদ রাঙ্গামাটিতে ব্রাশ ফায়ারে ইউপিডিএফের সদস্যসহ দুইজন নিহত এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পদ ৯৬,০০০ আবেদন ২৪,০০০ রিজার্ভ নিয়ে তিন হিসাব, চাপ বাড়ছে

পানছড়িতে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত প্রতিরোধ কমিটির আলোচনা সভা

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৯৪ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বাঁধানোর নতুন ষড়যন্ত্র ও ঠ্যাঙাড়ে সন্ত্রাস রুখতে জনগণের করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

পার্বত্য চট্টগ্রামে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত এবং ঠ্যাঙাড়ে সন্ত্রাস হলো আসলে রাষ্ট্রীয় ষড়যন্ত্রের ফল। জনগণ যদি ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই সংঘাতকে ” না” বলে এবং সংঘাতপন্থীদের সহযোগিতা না করে, তাহলে এই সংঘাত বাঁধানোর যে কোন ষড়যন্ত্র রুখে দেওয়া সম্ভব।

আজ ৪ঠা জানুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার পানছড়ি ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত প্রতিরোধ কমিটি ও গণ অধিকার রক্ষা কমিটির আয়োজিত এক আলেচনা সভায় বক্তারা উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত কমিটির সভাপতি শান্তি জীবন চাকমা এতে সভাপতিত্ব এবং পানছড়ি গণ অধিকার রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক অনিল চন্দ্র চাকমা সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করেন।

ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতকে জুম্ম জাতির জন্য এক বিরাট অভিশাপ আখ্যায়িত করে বক্তারা বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পেরেছি যে, একটি মহল নতুন করে আবার ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বাঁধানোর ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। জাতি ও জনগণের স্বার্থে অবিলম্বে এই ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে।’

তারা আরও বলেন, ‘ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতের পেছনে সুপরিকল্পিত রাষ্ট্রীয় ষড়যন্ত্র রয়েছে। সরকার ও তার বাহিনীগুলো এই সংঘাতের দায় এড়াতে পারে না। এই সংঘাতে আমরা আজ পযন্ত শত শত প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ যুবককে হারিয়েছি। এটা জাতীয় মানবসম্পদের এক চরম অপচয়ও। যাদেরকে হারিয়েছি তারা আমাদের কারও না কারও ভাই বা নিকটাত্মীয়।’

পানছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ও আলোচনা সভার সভাপতি শান্তি জীবন চাকমা ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতকে ‘না’ বলার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান এবং বলেন, যারা সংঘাত চায় তাদেরকে সহযোগিতা না করলে এবং সর্বত্র জনগণের মধ্য থেকে প্রতিবাদ উঠলে নতুন করে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বাঁধানোর ষড়যন্ত্র রুখে দেয়া সম্ভব হবে। করণ চূড়ান্ত বিচারে জনগণই হলেন আসল শক্তি।

সাধারণ জনগণ ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত চায় না মন্তব্য করে তিনি বলেন, গত বছর ১১ জুন ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত শুরু হওয়ার পর জনগণ সব জায়গায় ঐক্যবব্ধ হয়ে প্রতিবাদ করেছে বলে তখন সংঘাতপন্থীরা পিছু হটতে ও সংঘাত বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছিল।

শান্তি জীবন চাকমা বলেন, নতুন করে যাতে কোন মহল ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত সৃষ্টি করতে না পারে তার জন্য সবাইকে সোচ্চার হতে হবে। তিনি পানছড়িবাসীসহ সকলকে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত সৃষ্টিকারী দল ও সংগঠনকে কোন ধরনের সহযোগিতা না দেয়ার জন্য আহ্বান জানান।

ঠ্যাঙাড়ে সন্ত্রাস সম্পর্কে বক্তারা বলেন, একটি বিশেষ বাহিনী রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বিপথগামী কিছু পাহাড়ি তরুণদের আশ্রয়-প্রশ্রয় ও মদদ দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে অশান্তি সৃষ্টি করছে। তাদেরকে দিয়ে পরিকল্পিতভাবে খুন অপহরণ ও চাঁদাবাজি করছে। এতে জনগণের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।

বক্তারা বলেন, নাগরিকদের নিরাপত্তা দেয়ার ও তাদের জানমাল রক্ষার দায়িত্ব সরকার তথা রাষ্ট্রের বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর। কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রামে নিয়োজিত বাহিনীগুলো তাদের এই দায়িত্ব পালনে কেবল ব্যর্থ তাই নয়, তারা এখানে আইনশৃঙ্খলার অবনতি ও অরাজক পরিস্থিতির জন্য দায়ি।

এই অবস্থা জনগণ দীর্ঘদিন নীরবে মেনে নেবে না বলে হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে জনপ্রতিনিধিরা বলেন, ‘দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে, যে কোন সময় জনগণ ফুঁসে উঠবে। তখন তার দায়-দায়িত্ব সরকার ও তার বাহিনীগুলোকে নিতে হবে।’

আলোচনা সভায় বক্তারা নতুন করে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বাঁধানোর ষড়যন্ত্র বন্ধ করার জন্য সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জনসংহতি সমিতিসহ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের প্রতি আহ্বান জানান। এছাড়া তারা ঠ্যাঙাড়ে সন্ত্রাস বন্ধ করা, ‍ঠ্যাঙাড়ে বাহিনী ভেঙে দেয়া এবং ১১ ডিসেম্বর ২০২৩ পানছড়িতে বিপুল চাকমাসহ ৪ ইউপিডিএফ-ভুক্ত ছাত্র-যুবনেতা হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানান।

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন চন্দ্রদেব চাকমা, উপজেলা প্যানেল চেয়্যারম্যান; জয় কুমার চাকমা, চেয়ারম্যান ১নং লোগাঙ ইউপি; আনন্দ জয় চাকমা, চেয়ারম্যান ২নং চেঙ্গী ইউপি; উচিত মনি চাকমা, চেয়ারম্যান ৩ নং সদর ইউপি; ভূমিধর রোয়াজা, চেয়ারম্যান ৪নং লতিবান ইউপি; হীরামতি বড়ুয়া, সাবেক মহিলা মেম্বার ৭,৮,৯ ওয়ার্ড, সদর ইউপি; হেম রঞ্জন চাকমা, সাধারণ সম্পাদক, কার্বারী এসোসিয়েশন; বাদশা কুমার ত্রিপুরা, কার্বারী, মরাটিলা এলাকা; সত্য প্রিয় চাকমা, সমাজ সেবক, লতিবান এলাকা; সুজাতা চাকমা, সদস্য সচিব, গণ অধিকার রক্ষা কমিটি; রমেল মার্মা, সদস্য, গণ অধিকার রক্ষা কমিটি।

এছাড়া মঞ্চে আরও উপস্থিত ছিলেন সমর বিকাশ চাকমা (জলৎকার), সাবেক চেয়ারম্যান, ১নং লোগাঙ ইউপি; মন্দিরা চাকমা, মহিলা মেম্বার ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ড, সদর ইউপি; নন্দ দুলাল, সমাজ সেবক, বড়হলক, ইউপি; ও জীবন কৃষ্ণ চাকমা, সমাজ সেবক, বড়হলক এলাকা।
আলোচনা সভায় পানছড়ির বিভিন্ন এলাকার ৩ শতাধিক নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, কার্বারী, মান্যগণ্য মুরুব্বী ও ছাত্র-যুব সমাজের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions