শিরোনাম
হেলমেটের মান নির্ধারণ হবে কবে? উপজেলা নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিদের আত্মীয়দের সরে দাঁড়ানোর নির্দেশ আ.লীগের, আছে শাস্তির বার্তাও রাঙ্গামাটির চন্দ্রঘোনায় পরোয়ানাভুক্ত ৭ আসামি গ্রেফতার খাগড়াছড়ির পানছড়িতে চেংগী নদীতে ডুবে শিশুর মৃত্যু রাঙ্গামাটিতে বজ্রপাতে আরও এক নারীর মৃত্যু মালিকদের লুটপাটে বেসরকারি অনেকগুলো ব্যাংক ধ্বংসের মুখে ফারাক্কার প্রভাবে পদ্মা নদী এখন বিলে পরিনত হয়েছে ভয়-উৎকণ্ঠায় দিন কাটছে মিয়ানমার সীমান্তবাসীর বিশ্বের প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকায় স্থান, কে এই বাংলাদেশি নারী? বান্দরবানের রুমা-থানচিতে ব্যাংকে হামলা: ১৮ নারীসহ ৫৩ জনের রিমান্ড মঞ্জুর

বান্দরবানে ঘোষণা দিয়ে ব্যাংক ডাকাতি

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৮ দেখা হয়েছে

৬ উপজেলার সব ব্যাংকের কার্যক্রম বন্ধ : বান্দরবানের সর্বত্র আতঙ্ক হামলার আগে কেএনএফ বিদ্যুতের উপকেন্দ্র বন্ধ করে দেয় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে হামলা চালিয়ে শটগানসহ ১৪ অস্ত্র ও ৪১৫ গুলি লুট হামলায় অংশ নেয় শতাধিক অস্ত্রধারী, গায়ে ছিল কেএনএফের পোশাক

বান্দরবান:- আগের রাতে বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মুসল্লিদের পিটিয়ে পাশের সোনালী ব্যাংক লুট করে ম্যানেজার নেজাম উদ্দিনকে অপহরণ করে নিয়ে যায় ডাকাত-সন্ত্রাসীরা। এ নিয়ে তোলপাড় চলছে; প্রশাসন ডাকাত সন্ত্রাসীদের ধরার জন্য অভিযান চালাচ্ছে। কয়েক ঘন্টা পর দিনেই ঘোষণা দিয়ে থানচি উপজেলার সোনালী ও বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের শাখায় হামলা চালিয়ে সন্ত্রাসীরা ব্যাংক দুটি থেকে নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। সন্ত্রাসী অপরাধীদের প্রকাশে এমন দু:সাহসিক ডাকাতির ঘটনা নিয়ে পার্বত্য জেলাসহ সারাদেশে তোলপাড় চলছে। পাহাড়ে অপরাধীদের খুটির জোর কোথায় তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।
প্রকাশ্যে ঘোষনা দিয়ে ভরদুপুরে বান্দরবানের রুমা-থানচিতে সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে ডাকাতি করেছে কেএনএফয়ের (কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের) সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনার তিন সপ্তাহ আগে এক ফেসবুক পেজ থেকে ‘বদলা নেয়ার’ ঘোষণা দেয় পাহাড়ের বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী এ সংগঠন। সেনাবাহিনী কর্তৃক তাদের দুই সদস্যকে আটকের ‘ফিডব্যাক’ হিসেবে তারা এ ঘোষণা দিয়েছিল। হামলার আগে কেএনএফ বিদ্যুতের উপকেন্দ্র বন্ধ করে দেয়। বান্দরবানের রুমা ও থানচিতে গত দুদিনে তিনটি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ‘কুকি-চিন ন্যাশনাল আর্মি- কেএনএ’ নামের এক ফেসবুক পেজ থেকে গত ১২ মার্চ এক পোস্ট করা হয়। ওই পোস্টে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ সেনাবাহিনী চুক্তি ভঙ্গ করে বম সম্প্রদায়ের নিরীহ জনগণ লালমুয়ানওম বম (গিলগাল বা অবচলিত পাড়া) এবং রামনুয়াম বমকে (দুনিবার পাড়া) আটক করেছে। এর ফল খুব সুন্দরভাবে ফিডব্যাক দেয়া হবে। নিরীহ জনগণকে হয়রানি বন্ধ করা না হলে।’ বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী সংগঠনটির এ ঘোষণার ২১ দিনের মাথায় গতকাল বান্দরবানের রুমা উপজেলা সদরে সোনালী ব্যাংকে হামলার ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা জানান, দুদিনে তিনটি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনার পর আতঙ্ক বিরাজ করছে পুরো জেলা জুড়েই। আতঙ্কে কারো সঙ্গে কেউ কোনো কথা বলছেন না। উপজেলা পরিষদসহ রুমা ও থানচির বিভিন্ন স্থানে নিরাপত্তা জোরদার করে টহল দিচ্ছে র‌্যাব, পুলিশ ও সেনাবাহিনী। পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনী, র‌্যাব ও পুলিশ সর্বোচ্চ সর্তক থাকার পরেও দু’দিনে তিন ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনায় নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর পরই জেলা পুলিশ ও সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা জরুরি বৈঠক করেন। বুধবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন। এ সময় জেলা প্রশাসক শাহ্ মোজাহিদ উদ্দিন ও পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন প্রমুখ। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে সকাল ১০টায় রুমা উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজারকে উদ্ধার করার এবং সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবিতে মানববন্ধন করেন।
প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় থানচিতে সোনালী ও বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের শাখায় হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এসময় ব্যাংক দুটি থেকে নগদ টাকা লুট করা হয়। থানচির শাহজাহানপুরের দিক থেকে তিনটি চাঁদের গাড়িতে করে সন্ত্রাসীরা গুলি করতে করতে বাজার এলাকায় প্রবেশ করে। এরপর থানচি উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন দুটি ব্যাংকে লুটতরাজ চালিয়ে আবার ওই তিন গাড়িতে করে শাহজাহানপুরের দিকে চলে যায়।
এর আগে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে রুমা উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মুসল্লিরা সবাই যখন মসজিদে নামাজ পড়ছিলেন ঠিক সেই মহূর্তে বন্ধ হয়ে যায় বিদ্যুৎ সংযোগ। আর এর পরপরই ৭০-৮০ জন অস্ত্রধারী মসজিদে ঢুকে মুসল্লিদের জিন্মি করে লুটে নেয় সবার মোবাইল ফোন। এরপর সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজার নেজাম উদ্দিনকে খুঁজে বের করে তাকে নিয়ে মসজিদের পাশেই সোনালী ব্যাংকে গিয়ে ব্যাংকের ভল্ট ভাঙার চেষ্টা করে সন্ত্রাসীরা। এসময় ব্যাংকে থাকা পুলিশ সদস্য ও আনসার সদস্যদের পিটিয়ে তাদের ১৪টি অস্ত্র ও ৩৮০ রাউন্ড গুলি ও ম্যানেজারকে নিয়ে যায় মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা।
জেলা পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন বলেন, হামলাকারীরা ব্যাংকের আইনশৃংখলায় নিয়োজিত পুলিশ সদস্য, আনসার সদস্যের অস্ত্র ও গুলিও লুট করেছে। ঘটনার সঙ্গে কে বা কারা জড়িত সে বিষয়ে তদন্ত চলছে। ক্রাইম সিন টিম আসছে। সিসি টিভি ফুটেজ দেখে কিছুটা অনুমান করা যায়। বাকিটা তদন্ত সাপেক্ষে নিশ্চিত হওয়া যাবে। যারাই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকুক তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বর্তমানে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে পুরো উপজেলা জুড়ে। এদিকে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে রুমা উপজেলা পরিষদ সরকারি কর্মচারী ও উপজেলার সাধারণ মানুষ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, থানচির শাহজাহানপুরের দিক থেকে তিনটি চাঁদের গাড়িতে করে সন্ত্রাসীরা গুলি করতে করতে বাজার এলাকায় প্রবেশ করে। এরপর থানচি উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন দুটি ব্যাংকে লুটতরাজ চালিয়ে আবার ওই তিন গাড়িতে শাহজাহানপুরের দিকে চলে যায়। টানা দুদিনের হামলায় বান্দরবানজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। বান্দরবানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) আবদুল করিম বলেন, মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে কেএনএফের প্রায় ১০০ অস্ত্রধারী সদস্য এই হামলায় অংশ নিয়েছে। হামলাকারী অনেকের গায়ে কেএনএফের লোগোসহ পোশাক ছিল। হামলার শুরুতে সন্ত্রাসীরা উপজেলা পরিষদের দায়িত্বে থাকা পুলিশ ও আনসার সদস্যদের মারধর করে অস্ত্র ও মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। সোনালী ব্যাংকের ওই শাখার ম্যানেজার মো. নিজাম উদ্দিনকে অপহরণ করা হয়েছে। গত ১৬ ঘণ্টা ধরে অভিযান পরিচালনা করেও তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।
মুসল্লিদের জিম্মি করে মারধর: রুমা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈ বং মারমা বলেন, মঙ্গলবার রাতে ব্যাংককর্মীরা যখন নামাজ পড়ছিলেন, ঠিক তখনই হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় ম্যানেজারকে অপহরণের পাশাপাশি নিরাপত্তার কাজে ব্যবহৃত বেশ কিছু অস্ত্র ও মোবাইল ফোন সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা নিয়ে গেছে। ওই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ দিদারুল আলম বলেন, সন্ত্রাসীরা উপজেলা কমপ্লেক্সের বাউন্ডারির ভেতরে থাকা মসজিদে ঢুকে প্রথমে দরজা বন্ধ করে দেয়। তখন তারাবি নামাজের জন্য অনেক কর্মকর্তা সেখানে ছিলেন। শুরুতেই নামাজরত সবাইকে বন্দি করে সন্ত্রাসীরা প্রচণ্ড মারধর করে। সঙ্গে থাকা টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। পরে তারা অস্ত্র হাতে ব্যাংক ম্যানেজারকে জিম্মি করে ব্যাংকে নিয়ে যায় এবং লকার খুলে ব্যাংক লুট করে। অপহৃত ব্যাংক ম্যানেজার নিজাম উদ্দিনের বাড়ি কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায় বলে জানা গেছে। সন্ত্রাসীরা উপজেলা কমপ্লেক্সের বাউন্ডারির ভেতরে থাকা মসজিদে ঢুকে প্রথমে দরজা বন্ধ করে দেয়। তখন তারাবি নামাজের জন্য অনেক কর্মকর্তা সেখানে ছিলেন। শুরুতেই নামাজরত সবাইকে বন্দি করে সন্ত্রাসীরা প্রচণ্ড মারধর করে। সঙ্গে থাকা টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়।
মো: সাদাত উল্লাহ রুমা থানচি থেকে ফিরে জানান, ব্যাংকে সন্ত্রাসী হামলা ও লুটপাটের ঘটনা তদন্তে কক্সবাজার থেকে পিবিআইয়ের পাঁচ সদস্যের একটি টিম বুধবার দুপুরে রুমা পরিদর্শন করেছে। বান্দরবানে নতুন সশস্ত্র সংগঠন কেএনএফ ২০২২ সালের মাঝামাঝি থেকে তৎপরতা শুরু করে। পাহাড়ে তাদের আস্তানায় সমতলের নতুন জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার সদস্যরা সশস্ত্র প্রশিক্ষণ নিয়েছিল বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এর আগে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিল।
বান্দরবান সোনালী ব্যাংকের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার ওসমান গণি জানান, মঙ্গলবার রাতে রুমা সোনালী ব্যাংক এবং বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় থানচির সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনায় নিরাপত্তার স্বার্থে রুমা, থানচি, রোয়াংছড়ি, আলীকদম, লামা ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সব ব্যাংকিং কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেন, সিনেমার মতো করে রাতে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা এসে আমাদের মারধর করে মোবাইল ফোন নিয়ে চলে যায়। কয়েকজন মুসল্লি জানান, এ ঘটনায় আমরা আতঙ্কিত আর আমরা আমাদের জীবনের নিরাপত্তা চাই। গতকাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন তদন্ত কর্মকর্তারা। ব্যাংকের ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, প্রিন্টারসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় সামগ্রী ভাঙচুরের পাশাপাশি ভল্ট ভাঙার স্থান পরিদর্শন শেষে কর্মকর্তারা জানান, এ ঘটনায় তদন্ত চলছে। টাকা লুট হয়েছে কি না তা সিআইডির একটি টিম আসার পর বিস্তারিত জানা যাবে।
বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ্ মোজাহিদ উদ্দিন বলেন, এ ঘটনার পর আমরা বিষয়টি তদন্ত শুরু করেছি আর যারা এতে জড়িত তাদের খুঁজে বের করতে কাজ শুরু হয়েছে। টাকা লুটের ব্যাপারে এখনই সঠিকভাবে কিছু বলা যাবে না। সিআইডির তদন্ত শেষে বিস্তারিত ঘটনা জানা যাবে।
সোনালী ব্যাংকের রুমা শাখা থেকে কোনো টাকা লুট হয়নি: বান্দরবানের রুমা উপজেলার সোনালী ব্যাংকের শাখা থেকে কোনো টাকা লুট হয়নি। ওই ব্যাংকের ভল্টে থাকা সব টাকা অক্ষত আছে। বুধবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) চট্টগ্রাম অঞ্চলের বিশেষ পুলিশ সুপার শাহনেওয়াজ খালেদ এ কথা বলেন। শাহনেওয়াজ খালেদ বলেন, সিআইডির চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার ইউনিটের দুটি দল রুমায় গিয়ে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছে। পরে ব্যাংকের ভল্ট খুলে সব টাকা গুণে দেখা হয়। দেখা যায়, মঙ্গলবার রাখা ১ কোটি ৫৯ লাখ ৪৬ হাজার টাকার পুরোটা রয়েছে। তিনি আরও বলেন, দুটি চাবি একসঙ্গে দিয়ে ভল্ট খুলতে হয়। কোনো কারণে অস্ত্রধারীরা হয়তো ভল্ট খুলতে পারেনি।
বান্দরবান রুমা সড়কের উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে ঢোকার মুখে রয়েছে একটি দোতলা ভবন। এটির নিচতলায় থাকেন সরকারি কর্মকর্তারা। দ্বিতীয় তলার এক পাশে সোনালী ব্যাংক রুমা শাখা। আরেক পাশে থাকেন ব্যাংকের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ১০ জন পুলিশ সদস্য। কেনএনএফের অস্ত্রধারীরা যাওয়ার সময় সোনালী ব্যাংক রুমা শাখার ব্যবস্থাপক নিজামুদ্দিনকে নিয়ে যায় বলে স্থানীয় লোকজন বলছেন। বিকেল পর্যন্ত তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।
হামলার আগে কেএনএফ বিদ্যুতের উপকেন্দ্র বন্ধ করে দেয়: বান্দরবানের রুমায় সোনালী ব্যাংকের শাখায় ডাকাতির চেষ্টার সঙ্গে নতুন সশস্ত্র গোষ্ঠী কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) সদস্যরা জড়িত বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। তিনি বলেছেন, তারা সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজারকে (ব্যবস্থাপক) জিম্মি করে নিয়ে গেছে। বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এর আগে মঙ্গলবার রাতে রুমায় সোনালী ব্যাংকের শাখায় হামলা চালায় কেএনএফ। এরপর বুধবার দুপুরে বান্দরবানের থানচিতে সোনালী ব্যাংক ও কৃষি ব্যাংকের দুটি শাখায় হামলা হয়।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কেনএনএফ দেশের জঙ্গিদের সঙ্গে আঁতাত করে তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছিল। সেনাবাহিনী ও র‌্যাব অভিযান চালিয়ে তাদের সরিয়ে দিয়েছিল। ইদানীং আমরা দেখছিলাম, কুকি-চিন আবার বিভিন্নভাবে তাদের অবস্থান জানান দিচ্ছিল। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্যগুলো সাংবাদিকদের জানান। তিনি বলেন, রুমায় সোনালী ব্যাংকে ঢোকার আগে কেএনএফ বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন বন্ধ করে। পরে তারা সোনালী ব্যাংকের দিকে অগ্রসর হয়। সেখানে পুলিশ মোতায়েন ছিল। পুলিশ সদস্যের বেশির ভাগ এবং সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক স্থানীয় মসজিদে তারাবিহর নামাজে ছিলেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions