শিরোনাম
২৩ বাংলাদেশি নাবিকের মুক্তি,মুক্তিপণ দিতে হলো ৫০ লাখ ডলার পুকুরপাড়ে বসে নারীদের গোসলের ভিডিও ধারণ করা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০ রাঙ্গামাটির সাজেকে রিসোর্ট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানির সংকট রাঙ্গামাটিতে বৈশাখের খরতাপে অস্থির জনজীবন,তাপমাত্রা ৩৮ডিগ্রী সেলসিয়াস খাগড়াছড়িতে ত্রিপুরাদের তৈবুংমা-অ-খুম বগনাই উৎসব উদযাপন খাগড়াছড়িতে মারমা সম্প্রদায়ের মাহা সাংগ্রাই-এ জলোৎসবে রঙ্গিন বান্দরবানে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় নববর্ষের উৎসব পালন বান্দরবানে আসামি ধরতে গিয়ে ছুরিকাঘাতে পুলিশ সদস্য আহত রাঙ্গামাটিতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপজেলা নির্বাচন নিয়ে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে

রাঙ্গামাটির পর্যটন খাত সম্ভাবনা সত্ত্বেও পিছিয়ে

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় শনিবার, ৩০ মার্চ, ২০২৪
  • ৭০ দেখা হয়েছে

রাঙ্গামাটি:- কাপ্তাই হ্রদ ও ঘন জঙ্গলে ঘেরা পাহাড়ের সঙ্গে মেঘের মিতালী, এমন মনভোলানো প্রকৃতির পরিবেশে যান্ত্রিক নগর জীবন থেকে কিছু সময়ের জন্য হলেও স্বস্তি পেতে পারেন পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটিতে। একই সঙ্গে পর্যটনের জন্য ব্যাপক সম্ভাবনা গড়ে উঠতে পারে এই পার্বত্য জেলায়। কিন্তু সঠিক পরিকল্পনা ও সদিচ্ছার অভাবে এখনো পর্যটনশিল্পে পিছিয়ে রয়েছে এই পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটি। শহরের একমাত্র ঝুলন্ত সেতু ও পুলিশের পলওয়েল পার্ক ছাড়া এখন পর্যন্ত তেমন পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণ হয়নি সেখানে। পিছিয়ে রয়েছে পর্যটনশিল্পে

সম্ভাবনাময় রাঙ্গামাটি। স্থানীয়রা বলছেন, পার্বত্য জেলা পরিষদ চাইলে রাঙ্গামাটির পর্যটনশিল্পের উন্নয়ন করা সম্ভব হতো।

২০১৭ সালে তৎকালীন রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা ও বর্তমান চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী জানিয়েছিলেন, রাঙ্গামাটির পর্যটন শিল্পে ১ হাজার ২০০ কোটি টাকার মেগা প্রকল্পের কথা। সেই মেগা প্রকল্প এখন পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি। দীর্ঘ ছয় বছর পরও এখনো দৃশ্যমান নয় সেই কাঙ্ক্ষিত মেগা প্রকল্প।

১৯৮৬ সালে রাঙ্গামাটির তবলছড়িতে দুই পাহাড়ের মাঝখানে ৩৩৫ ফুট দীর্ঘ প্রথম ঝুলন্ত সেতু নির্মাণ করে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন। পর্যটকদের কাছে এ সেতু ‘সিম্বল অব রাঙ্গামাটি’ হিসেবে বেশ পরিচিত। এ সেতুর সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতি বছর হাজার হাজার পর্যটক আসেন রাঙ্গামাটিতে। তবে কাপ্তাই হ্রদের বুকে অপরিকল্পিতভাবে সেতুটি নির্মাণের ফলে প্রতি বর্ষার মৌসুমে পানিতে ডুবে থাকে এ ঝুলন্ত সেতুটি।

অন্যদিকে ৩৩ বছর পরে রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশের তত্ত্বাবধানে জেলা শহরে ২০১৯ সালে নির্মিত হয় ‘পলওয়েল পার্ক’। ঝুলন্ত সেতু ও পলওয়েল পার্ক ছাড়া রাঙ্গামাটিতে যেসব রিসোর্ট ও কটেজ নির্মাণ করা হয়েছে সেগুলোও রেস্টুরেন্ট ভিত্তিক এবং ব্যক্তি মালিকাধীন। বর্তমানে আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়কের ১৮ কিলোমিটার রাস্তা স্থানীয় ও বাইরের পর্যটকদের কাছে বেশ জনপ্রিয়।

স্থানীয়রা মনে করছেন, জেলা পরিষদ ও প্রশাসনের মধ্যে সমন্বয় ও পরিকল্পনা থাকলে পর্যটন খাত অনেক এগিয়ে যেত। রাঙ্গামাটিতে সারা বছর পর্যটক ধরে রাখতে ক্যাবল কার, শিশু পার্কসহ বিভিন্ন রাইড স্থাপন, পর্যটন স্পটগুলোর সুযোগ-সুবিধা ও নিরাপত্তা বাড়িয়ে আরো আকর্ষণীয় করা গেলে সারা বছর পর্যটক ধরে রাখা সম্ভব।

রাঙ্গামাটির পর্যটন কেন্দ্র ও ঝুলন্ত সেতুতে সরেজমিনে গেলে ঢাকা চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে ঘুরতে আসা পর্যটকরা হতাশার গল্প শোনান। রাঙ্গামাটি শহরের আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়কের দিকে মালিকানাধীন যে কয়েকটি রিসোর্ট গড়ে উঠেছে সেগুলোয় রাত্রিযাপন করতে গেলে প্রতি রাতে গুণতে হয় ৫ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা। অন্যদিকে সাজেক ভ্যালি যেতে হয় পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ি দিয়ে। সরকারিভাবে যদি কাপ্তাই হ্রদের নীল জলরাশি আর মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশের সৌন্দর্যকে কাজে লাগিয়ে পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণ করা যায় তাহলে এখান থেকে প্রতি বছর হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয় হতে পারে বলে মনে করছেন পর্যটক ও স্থানীয়রা।

লংগদু উপজেলা থেকে পর্যটন ঝুলন্ত সেতুতে ঘুরতে আসা মো. আজগর বলেন,‘তিন পার্বত্য জেলার মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর রাঙ্গামাটি জেলা। এখানে প্রচুর পরিমাণে পর্যটনশিল্পে সম্ভাবনা আছে। আমাদের এখানে যদি পর্যটন ক্ষেত্রে আরেকটু উন্নয়ন হয় তাহলে প্রচুর পর্যটক আসবে। এখান থেকে সরকারের প্রচুর রাজস্ব আয় সম্ভব হবে। চট্টগ্রাম থেকে ঘুরতে আসা এক পর্যটক বলেন, চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গামাটি আসছি। এখানে পর্যটন ঝুলন্ত সেতু এবং পলওয়েল পার্ক বাদে তেমন পর্যটনস্পট দেখলাম না।

রাঙ্গামাটির মোরঘোনা সড়কে ঘুরতে যাওয়া স্থানীয় পর্যটক মো. কামাল উদ্দিন বলেন, ‘সারা বাংলাদেশে রূপের রানি হিসেবে পরিচিত রাঙ্গামাটি। সারা বাংলাদেশে উন্নয়নের যে ধারাবাহিকতা সেভাবে কিন্তু উন্নয়নের ছোঁয়া রাঙ্গামাটিতে পড়েনি। রাঙ্গামাটিতে উন্নয়নের ছোঁয়া পড়ার জন্য নগর পরিকল্পনা দরকার। এখানে যা কিছু স্থাপিত হয়েছে সবগুলো অপরিকল্পিত।’

মো. নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘পর্যটনশিল্পে যদি উন্নয়ন করতে সরকারকে আরো মনোযোগ দিতে হবে। এখানে যারা পর্যটন নিয়ে কাজ করেন তাদের মতামত নিতে হবে। রাঙ্গামাটির পর্যটনশিল্পকে যদি সত্যিকার অর্থে বিকশিত করা যেত তাহলে এখানে যারা সাধারণ নাগরিক আছে তাদের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে আরো ডেভেলপ হতো।’

রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক খোকেনশ্বর ত্রিপুরা বলেন, ‘ছোট ছোট কতগুলো পরিকল্পনা দরকার। তবে প্রথমে এখানকার একটিভিটিগুলো বাড়াতে হবে। রাঙ্গামাটির সঙ্গে কম্পেয়ার করলে কাশ্মীরের ডাল লেক কিছুই না। কাশ্মীরে ছোট ছোট ওয়াটারব্যাচ নৌকা আছে। যেমনটা রাঙ্গামাটিতে কয়েকজনে কায়াকিংয়ের ব্যবস্থা করেছে। এ ছাড়া রাঙ্গামাটি শহরকে যদি আমরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে পারি এটাও আমাদের ব্র্যান্ডিং হতে পারে।’

রাঙ্গামাটি পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্সের ইউনিট ব্যবস্থাপক (উপব্যবস্থাপক) আলোক বিকাশ চাকমা বলেন,‘পর্যটকদের সুবিধার জন্য পর্যটন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে। আশা রাখি আমরা এর একটি সুফল দেখতে পাব। এ ছাড়া বর্তমান ঝুলন্ত ব্রিজের আদলে আরো আধুনিক ঝুলন্ত ব্রিজ তৈরি করার জন্য প্রধান কার্যালয়ে আমাদের একটি প্রস্তাবনা দেওয়া আছে। সে প্রস্তাবনা যদি বাস্তবায়ন হয় তাহলে এ এলাকার পর্যটনশিল্প এগিয়ে যাবে।’

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের একটি মেগা প্রকল্প ছিল। সেই মেগা প্রকল্প এখনো পার্বত্য মন্ত্রণালয়ে বিবেচনাধীন আছে। আমরা মিটিং করে যাচ্ছি প্রকল্পটি যেন পাস হয়। পর্যটন সেক্টরকে কীভাবে শৃঙ্খলা আরেকটু সুশৃঙ্খল আরো একটু সৌন্দর্য বাড়ানো যায় এবং কীভাবে সিস্টেমে আনা যায় সে লক্ষ্যে একটি মিটিং করব।’প্রতিদিনের সংবাদ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions