কাটছেই না ডলার সংকট

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৪৪ দেখা হয়েছে

♦ চাপ বেড়েছে ব্যবসায়, বেড়েছে নিত্যপণ্যের দাম ♦ দুই বছরে প্রায় ২৯ বিলিয়ন ডলার বিক্রি
ডেস্ক রিরোট:- কোনোভাবেই কাটছে না ডলার সংকট। দর নিয়ন্ত্রণ, আমদানিতে কড়াকড়ি আরোপ এবং কার্ডের মাধ্যমে দেশের বাইরে নগদ অর্থ উত্তোলন বন্ধসহ বেশকিছু পদক্ষেপ নেওয়ার পরও এ সংকটাবস্থা দূর করা সম্ভব হচ্ছে না। কেন্দ্রীয় ব্যাংক গত আড়াই বছরে প্রায় ২৯ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করলেও সংকট আরও বেড়েছে। সে কারণে চাপ বেড়েছে ব্যবসায়। সময়মতো খোলা যাচ্ছে না এলসি। দাম বেড়েছে নিত্যপণ্যসহ আমদানি করা সব পণ্যের। বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান ও দেশের ব্যবসায়ী শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ডলার সংকটের কারণে এলসি (ঋণপত্র) খোলায় সমস্যা হচ্ছে। নির্ধারিত দামের চেয়ে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি দিয়েও অনেক ক্ষেত্রে এলসি (ঋণপত্র) খোলার জন্য ডলার মিলছে না। জ্বালানি সংকট রয়েছে, শিল্পের জন্য চাহিদামতো গ্যাসও পাওয়া যাচ্ছে না।

শুধু বেঙ্গল গ্রুপই নয়, দেশের একাধিক শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মালিক বলেছেন, ডলার সংকটের কারণে তাদের প্রতিষ্ঠানের কাঁচামাল, মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানি ব্যাহত হচ্ছে। একই সঙ্গে জ্বালানি সংকট তো রয়েছেই। অবিলম্বে ডলার সংকট সমাধান না করলে বন্ধ হয়ে যাবে অনেক শিল্পকারখানা। হুমকিতে পড়বে কর্মসংস্থান। বেকার হবে হাজার হাজার শ্রমিক।
দেশে ডলার সংকট চলছে দুই বছর ধরে। ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর মূলত এ সংকট তৈরি হয়। পরিস্থিতি মোকাবিলায় তখনই বাংলাদেশ ব্যাংক আমদানিতে কড়াকড়ি আরোপ করে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বিলাসী পণ্য আমদানি নিরুৎসাহিত করতে অতিরিক্ত শুল্ক আরোপ করে। রপ্তানিকারকরা যেন বাজারে ডলার ছেড়ে দেয়, সেজন্য বিধিবিধানেও বারবার পরিবর্তন আনা হয়। ডলার সংকট কাটাতে এ পর্যন্ত প্রায় ২ হাজার ৯০০ কোটি ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ডলারের বাজার নিয়ন্ত্রণে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে ব্যাংকারদের বাফেদা (বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন) ও এবিবিকে (অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ) ডলারের দাম নির্ধারণের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তারপরও সংকট কাটেনি।

তবে বেশির ভাগ ব্যাংক এবিবি ও বাফেদা নির্ধারিত দরে ডলার না পেয়ে বেশি দরে বেচাকেনা শুরু করে। এ নিয়ে গত বছরের সেপ্টেম্বরে ১০ ব্যাংকের ট্রেজারি বিভাগের প্রধানকে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ ঘটনার পর বাজারে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে ডলার সরবরাহ আরও কমে যায়। বেশির ভাগ ব্যাংক এখনো ঘোষণার চেয়ে বেশি দরে ডলার বেচাকেনা করার ফলে সংকট দিন দিন আরও প্রকট হয়েছে। এ বিষয়ে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলেন, বৈদেশিক মুদ্রার তহবিল কীভাবে আরও সহজ করা যায় সেটা নিয়ে আলোচনা করেছি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের সঙ্গে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কোনো কাজে আসেনি আমদানি নিয়ন্ত্রণের কৌশল। উল্টো আন্ডার ইনভয়েসিং বেড়েছে। কম অর্থের এলসি খুলে বাকি অর্থ হুন্ডিতে পাঠানোয় ডলারের চাহিদা বেড়েছে। শতভাগ মার্জিন রেখে এলসি খোলার নির্দেশনা থাকলেও ব্যাংকগুলো ছাড় দিয়ে আসছে। তারপরও সংকট কাটছে না। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক বলেন, ডলার বাজারের চাপ কমেছে। ব্যবসায়ীরা ঠিকমতো রোজার মাসের জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির এলসি খুলতে পেরেছেন। রোজার পণ্য আমদানি বেড়েছে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যমতে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে সবচেয়ে বেশি কমেছে শিল্পের কাঁচামাল ও মূলধনি যন্ত্রপাতির আমদানি। ডিসেম্বর পর্যন্ত শিল্পের কাঁচামালের এলসি ৩১ শতাংশের বেশি কমে ১ হাজার ৫৪ কোটি ডলারে নেমেছে। মূলধনি যন্ত্রপাতির এলসি নিষ্পত্তি প্রায় ২৭ শতাংশ কমে ১৪৩ কোটি ডলারে নেমেছে। বিভিন্ন পণ্য আমদানির জন্য এলসি নিষ্পত্তি ১৮ শতাংশের বেশি কমে ৩ হাজার ৩৬৮ কোটি ডলারে নেমেছে। গত অর্থবছর আমদানি ১৬ শতাংশের মতো কমে ৬ হাজার ৯৫০ কোটি ডলারে নেমেছিল। এর মধ্যে মূলধনি পণ্যের আমদানি ২৪ শতাংশের বেশি এবং মধ্যবর্তী পণ্যের আমদানি প্রায় ২২ শতাংশ কমেছিল। এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, যুদ্ধ শুরুর পর ডলারের চাহিদা বেড়ে গেল। তখন আমরা সরবরাহ না বাড়িয়ে বাজারটাকে অকৃত্রিমভাবে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলাম। বাজারভিত্তিক কোনো কৌশল ব্যবহার না করে ব্যাংকগুলোকে হুকুম দিয়ে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলাম। প্রয়োজনে কিনবে, প্রয়োজনে বিক্রি করবে এটাই হলো বাজারভিত্তিক কৌশল। সেটাকে অঘোষিতভাবে উঠিয়ে দেওয়া হলো। যা ছিল ভুলনীতি। বাংলাদেশ ব্যাংক একটা রেট ফিক্সড করে দিল। আবার ব্যাংকগুলোকে নির্ধারিত দামে ডলার বেচতে বাধ্য করল। এতে মানুষ ব্যাংকে না গিয়ে খোলাবাজারে নির্ভরতা বাড়িয়ে দিল। সেখানে কার্ব মার্কেট ছাড়া অদৃশ্য একটা প্যারালাল বাজার তৈরি হয়ে গেল। ফলে এলসি খোলার জন্য ব্যাংক ডলার দিতে পারছে না। উল্টো ব্যবসায়ীরা খোলাবাজার থেকে ডলার কিনে ব্যাংকে গিয়ে এলসি খোলা শুরু করলেন। আর সেটাই এখনো চলছে। যেটা পরিবর্তন করা সম্ভব হয় না সেটাকে সহ্য করার ক্ষমতা বাড়াতে হবে। কিন্তু আমরা সেটা করতে পারিনি বলেই আজকে সংকটাবস্থা তীব্র হচ্ছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions