কর্ণফুলীতে প্রেমিক-প্রেমিকার পলায়নের জেরে দুই পক্ষের মারামারি

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪
  • ৪৬ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে প্রেমিক-প্রেমিকার পলায়নের জের ও পরবর্তী প্রেমিকার বাড়ির সামনের রাস্তা দিয়ে যাবার সময় প্রেমিককে মারধর করায় দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি ও ইটপাটকেল ছোড়াছুড়িতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য মহিউদ্দিন ভান্ডারি গুরুতর আহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ২/৪ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। ভাঙা পড়েছে বাড়ির জানালার কাঁচ। আহতরা বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বলে জানা গেছে। আহত মহিউদ্দিনের মাথায় দুই জায়গায় ১২ সেলাই হয়েছে। তিনি বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৫ তলার ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি আছেন।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাত ৯ টার দিকে উপজেলার শিকলবাহা ইউনিয়নের (২ নম্বর ওয়ার্ড) মাস্টারহাট এলাকার কোদাইল্লা পাড়ায় এ মারামারি বাধে।

ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কর্ণফুলী থানাধীন শিকলবাহা পুলিশ ফাঁড়ির আইসি (এসআই) মো. মোবারক হোসেন ও সংঘটিত এলাকার (একাংশ) ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলমগীর।

ঘটনার পর মাস্টারহাট এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে ফাঁড়ি পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। একই এলাকার হারুনের ছেলে ও ইলিয়াসের মেয়ে সংক্রান্ত ঘটনার জেরে রাতে দুই পক্ষের লোকজনের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। সঙ্গত কারণে অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলে-মেয়ের নাম সংবাদে অজ্ঞাত রাখা হয়েছে।

ঘটনার সূত্রপাত ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, গত তিন-চার মাস আগে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে স্থানীয় মো. ইলিয়াসের এক মেয়ে কে নিয়ে পালিয়ে যান একই এলাকার হারুনের ছেলে। তাঁরা দুজনেই ছিলেন অপ্রাপ্তবয়স্ক।

পরে বিষয়টি দুই পক্ষের লোকজন স্থানীয়ভাবে বসে সমঝোতায় সমাধান করেন। এরপর মেয়েটি নানার বাড়িতে ছিলেন। মঙ্গলবার সকালে বৃষ্টির পানিতে ছেলেটির যাতায়াতের সড়ক ডুবে যাওয়ায় প্রেমিকার বাড়ির সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ পথিমধ্যে ছেলেটিকে দেখতে পেয়ে মেয়ে পক্ষের লোকজন তর্কে জড়িয়ে পড়েন। এমনকি ছেলেটাকে মারধর করেন।

ছেলেটি আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন ভান্ডারির নাতি হন। তিনি বিষয়টি শুনে জানতে গিয়েছিলেন কেন মারধর করা হয়েছে। পরে উত্তেজিত হয়ে দুই পক্ষের লোকজন মারামারি ও ইটপাটকেল ছোঁড়াছুঁড়িতে জড়িয়ে পড়েন।

এতে প্রতিপক্ষের ছোঁড়া বোতল কিংবা ইটের আঘাতে আ.লীগ নেতা মহিউদ্দিন ভান্ডারির মাথা পড়ে ফেটে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। এ ঘটনায় এখনো অবধি থানায় কোন পক্ষের অভিযোগ কিংবা মামলা হয়নি।

এ প্রসঙ্গে শিকলবাহা পুলিশ ফাঁড়ির আইসি (এসআই) মো. মোবারক হোসেন বলেন, ‘ঘটনাটি শোনার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিদর্শন করেছি। সেখানে প্রচুর পরিমাণে ইট পাটকেল ও বোতল ছোঁড়া হয়েছে। বাসার জানালার দুটি কাঁচও ভাঙা দেখেছি। তিন তলা বাড়ির উপর থেকে ও নিচ থেকে একে অপরকে লক্ষ্য করে ইট ছুঁড়েছেন বলে মনে হচ্ছে। গুরুতর আহত একজনকে চমেক মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে গেছে বলে শুনেছি।’

কর্ণফুলী থানার ওসি তদন্ত মো. মেহেদী হাসান জানান, ‘শিকলবাহায় দুই পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাস্থলে থানা পুলিশ রয়েছে। পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক।’

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions