শিরোনাম
পাহাড়ে ৬ মাসে ১১ খুন বান্দরবানে কেএনএফের আস্তানায় যৌথ বাহিনীর অভিযান, নিহত ৩ রাঙ্গামাটির লংগদুতে সন্ত্রাসীদের হামলায় নিহত ২ মরদেহ রাঙ্গামাটি সদর হাসপাতালে স্কুলে ভর্তির টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ার নির্দেশনা,ব্যাপক প্রতিক্রিয়া বিকল্প চিন্তা শেখ হাসিনার প্রতি নরেন্দ্র মোদির অবিরাম সমর্থনে বাংলাদেশ ক্ষুব্ধ অর্থনীতিকে ধারণ করার সক্ষমতা হারাচ্ছে ব্যাংকিং খাত : ফাহমিদা খাতুন ২৬ কোম্পানির বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা রাঙ্গামাটিতে ইউপিডিএফ সদস্যসহ ২ জনকে হত্যার প্রতিবাদে ২০ মে জেলায় অর্ধদিবস সড়ক ও নৌপথ অবরোধের ডাক রাঙ্গামাটির লংগদুতে সন্তু গ্রুপ কর্তৃক ইউপিডিএফ সদস্যসহ ২ জনকে গুলি করে হত্যার নিন্দা ও প্রতিবাদ রাঙ্গামাটিতে ব্রাশ ফায়ারে ইউপিডিএফের সদস্যসহ দুইজন নিহত

শ্লীলতাহানীর মামলা নারী কাউন্সিলরের, ষড়যন্ত্রের অভিযোগ মেয়রের

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪১ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:-সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম নুনু মিয়ার সাথে পাল্টাপাল্টি মামলা ও বাকযুদ্ধের পর এবার নিজের পৌরসভার নারী কাউন্সিলরের সাথে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন মেয়র মুহিবুর রহমান। বিশ্বনাথ পৌরসভার এই মেয়রের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনে থানায় মামলা করেছেন এক নারী কাউন্সিলর। তবে মেয়র মুহিবের অভিযোগ- এক পুরুষ কাউন্সিলরকে সাথে নিয়ে ওই নারী কাউন্সিলর তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। তাকে গাড়ি চাপা দিয়ে হত্যাচেষ্টারও অভিযোগ করেছেন মেয়র।

অনিয়ন্ত্রিত কথাবার্তা ও নানা কর্মকাণ্ডে গেল প্রায় এক বছর ধরে সিলেটে আলোচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন বিশ্বনাথ পৌরসভার মেয়র মুহিবুর রহমান। একই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম নুনু মিয়ার সাথে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে থানা ও আদালতে গড়িয়েছে একাধিক মামলা। এবার নিজ পৌরসভার কাউন্সিলরদের সাথে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে ফের আলোচনায় এসেছেন তিনি।
ক্ষমতার অপব্যবহার, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিব্রতকর ভিডিও আপলোড এবং অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তার বিরুদ্ধে পৌরসভার ৭ জন কাউন্সিলর স্মারকলিপি দিয়েছেন। এছাড়া পৌরসভার সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাসনা বেগম শ্লীলতাহানির অভিযোগ তুলে মেয়র মুহিবুর রহমানের বিরুদ্ধে বিশ্বনাথ থানায় মামলা করেছেন।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) রাতে দায়ের করা ওই মামলায় মেয়র ছাড়াও দুই কাউন্সিলরসহ ৮ জনকে আসামী করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুই কাউন্সিলরসহ ৭ জন আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন। তবে মেয়র মুহিবুর রহমান এখনও জামিন আবেদন করেননি।

মামলায় মারধর, শ্লীলতাহানী ও গাড়ি দিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ করেন কাউন্সিলর রাসনা বেগম। মামলায় কাউন্সিলর রাসনা অভিযোগ করেন, পৌরসভার ৭ জন কাউন্সিলর মেয়রের দুর্নীতির বিরুদ্ধে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর অনাস্থা প্রস্তাব দেন। এতে মেয়র ও তার অনুসারীরা ক্ষিপ্ত হন। এর জের ধরে গত মঙ্গলবার বেলা ১টার দিকে মেয়র মুহিবসহ মামলার অন্য আসামিরা উপজেলার দক্ষিণ মিরেরচর কমিউনিটি ক্লিনিকের সামনে ফেসবুকে পৌরসভার স্থানীয় কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলরদের নিয়ে অশ্লীল মন্তব্য করা শুরু করলে তিনি ও স্থানীয় লোকজন বাধা দেন। এসময় মেয়র মুহিবুর রহমান তাকে চুলধরে টানাহেচড়া ও শ্লীলতাহানী করেন। অন্য অভিযুক্তরাও তাকে মারধর ও শ্লীলতাহানী করেন। এসময় নিজের গাড়ি দিয়ে মেয়র তাকে হত্যার চেষ্টা করেনও বলেও মামলায় অভিযোগ করেন ওই নারী কাউন্সিলর।

এদিকে, বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) এ প্রসঙ্গে সিলেটে সংবাদ সম্মেলন করেন মুহিবুর রহমান। সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন, কাউন্সিলর রাসনা তার বিরুদ্ধে সাজানো তথ্য দিয়ে থানায় মামলা করেছেন। কোন রকম তদন্ত ছাড়াই পুলিশ মামলাটি রেকর্ড করেছে।

মুহিবের অভিযোগ, একটি রাস্তা নির্মাণ কাজে কাউন্সিলর রাসনা বেগম ও তার সহযোগীদের চাঁদা দাবির প্রতিবাদ করায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নিজের বিরুদ্ধে এরকম মামলা-মোকদ্দমা নতুন কিছু নয় দাবি করে মুহিবুর রহমান বলেন, যখনই কোনো নির্বাচন আসে তখনই একটি পক্ষ তার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লাগে। এই মামলা অনুষ্ঠিতব্য উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে তার সমর্থিত প্রার্থীকে দুর্বল করার অপচেষ্টার অংশ বলেও দাবি করেন মুহিব।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions