কুকি-চিনের ভয়ংকর বার্তা

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৯ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- ২০১৭ সালে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট বা কেএনএফ (বম পার্টি নামেও পরিচিত, প্রতিষ্ঠাতা নাথাম বম) প্রতিষ্ঠার পর বিভিন্ন সময় হামলা, অপহরণসহ নানাভাবে তাদের শক্তি জানান দেয়। কয়েক দফা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে যৌথ অভিযানও পরিচালনা করেছিল। মাঝখানে কিছুদিন ‘শান্ত’ থাকার পর আবারও তৎপরতা শুরু করেছে বিচ্ছিন্নতাবাদী এ সশস্ত্র সংগঠনটি। সর্বশেষ মঙ্গলবার রাতে বান্দরবানের রুমায় সোনালী ব্যাংকে ডাকাতি করে নতুন করে আলোচনায় আসে তারা। এর ১৬ ঘণ্টা না পেরোতেই গতকাল বুধবার বান্দরবানের আরেক উপজেলা থানচির কৃষি ও সোনালী ব্যাংক থেকে দিনদুপুরে টাকা লুট করে নিয়ে যায়। পরপর এ দুটি ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি তাদের ভয়ংকর একটি বার্তা। যদিও শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত যৌথ বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রুমা উপজেলায় সোনালী ব্যাংকে

লুট করে পাহাড়ের বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র সংগঠনটি। এ সময় পুলিশ ও আনসার বাহিনীর ১৪টি অস্ত্র নিয়ে যায়। তবে ব্যাংকের ভল্ট ভাঙতে না পারায় টাকা নিতে পারেনি বলে জানিয়েছেন আইনশঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তারা। তবে সশস্ত্র গোষ্ঠীটি ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক নেজাম উদ্দিনকে তুলে নিয়ে যায়। এখনো তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। সোনালী ব্যাংকের শাখায় ডাকাতির আগে ব্যাংকের পাশে অবস্থিত মসজিদের মুসল্লিদেরও কিছু সময়ের জন্য জিম্মি করে রাখে কেএনএফ সদস্যরা। সেখান থেকেই তারাবি নামাজ পড়া অবস্থায় ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপককে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই ঘটনার ১৬ ঘণ্টা না যেতে বান্দরবানের আরেক উপজেলা থানচির কৃষি ও সোনালী ব্যাংক থেকে টাকা লুট করে নিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন থানচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মামুন।

ইউএনও জানান, গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে একটি সশস্ত্র সংগঠনের ১৫ থেকে ২০ জনের একটি দল কৃষি ও সোনালী ব্যাংকে ঢুকে ১৭ লাখ ৪৫ হাজার টাকা নিয়ে যায়। এ সময় তারা ফাঁকা গুলি ছোড়ে। তবে কোনো ধরনের গুলি বিনিময় হয়নি। তবে ব্যাংকের ভল্ট ভেঙে তারা টাকা নেয়নি বলে নিশ্চিত করেন ইউএনও।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রথমে তংক্ষ্যং পাড়া রোড থেকে তিনটি গাড়িতে করে ৩০ থেকে ৪০ জনের একটি সশস্ত্র দল এলেও একটি গাড়ি বাজার দিকে চলে যায়। আর দুটি গাড়িতে ১৫ থেকে ২০ জনের দলটি সরাসরি ব্যাংকে ঢুকে ডাকাতিতে অংশ নেয়। সোনালী ব্যাংক থানচি শাখার ক্যাশিয়ার ওমর ফারুক বলেন, ডাকতরা ব্যাংক থেকে টাকা আর মোবাইল ফোন লুট করে নিয়ে গেছে। আমাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। অফিসিয়ালি ঠিক কত টাকা লুট হয়েছে, তা তদন্ত ছাড়া বলা যাচ্ছে না। তবে ১৪ থেকে ১৫ লাখ টাকা হবে।

কৃষি ব্যাংকের ব্যবস্থাপক (মুখ্য) হ্লাশৈথোয়াই মারমা বলেন, কৃষি ব্যাংকের ২ লাখ ৪২ হাজার ২৭০ টাকাসহ কর্মচারীদের দুটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

সোনালী ব্যাংকের গ্রাহক ভুক্তভোগী আরমান বলেন, ‘আমি ভেতরে ছিলাম। ডাকাতরা মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে মোবাইল ফোনসহ আমার সঙ্গে থাকা সব টাকা নিয়ে গেছে।’ আরেক ভোক্তভোগী এক নারী বলেন, ‘আমিও ভেতরে ছিলাম। তবে আমার কাছ থেকে কিছু নিয়ে যায়নি। ১০ মিনিটের মতো তারা ভেতরে অবস্থান করেছিল এবং আমাদের ভয় না পাওয়ার জন্যও বলেছে তারা।’

এক গাড়িচালক বলেন, ‘তংক্ষ্যং পাড়া থেকে তুষ নিতে গিয়েছিলাম। সেখানে পৌঁছার পর অস্ত্র ঠেকিয়ে জোর করে আমাকে নিয়ে আসা হয়েছে। আমরা আতঙ্কে আছি।’

সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের অফিস সহকারী সন্তুস ও অংসাপ্রু জানান, পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরে তারা সঙ্গে সঙ্গে গেটের তালা লাগানোর চেষ্টা করেছিলেন। সবাইকে ধাক্কা দিয়ে অস্ত্র তাক করে চুপ থাকতে বলে তারা। জীবনে প্রথমবার তারা এমন ঘটনার মুখোমুখি হয়েছেন বলে জানান এই দুই কর্মচারী।

থানচি সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান অংপ্রু ম্রো বলেন, ‘এমন ঘটনা থানচিবাসীর জন্য অভিশাপ। বর্তমানে বাজারে দোকানপাটসহ জনমানুষের আতঙ্ক রয়েছে। সামনে ঈদ ও নববর্ষের ছুটিতে অনেক পর্যটক সমাগম হবে থানচিতে। নিরাপত্তার কারণে পর্যটকরা আপাতত থানচিতে বেড়াতে না এলে ভালো হবে।’

থানচি থানার ওসি জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আমরা ঘটনাস্থলে আছি। নিরাপত্তার জন্য আমাদের টহল দল ব্যাংকের সামনে অবস্থান করেছে।’

এদিকে গতকাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন, চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মাহফুজুর রহমান, বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন ও পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন।

পরিদর্শন শেষে জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন বলেন, ব্যাংকের ভেতরে ভাঙচুর হয়েছে। টাকা লুট হয়েছে কি না, তা বলা যাচ্ছে না। ভল্টে প্রবেশের জন্য ফিঙ্গার প্রিন্ট লাগবে। সিআইডি এসে ভল্ট পর্যবেক্ষণ করার পর বিস্তারিত বলতে পারব।

এক প্রশ্নের জবাবে জেলা পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন বলেন, ভল্ট খোলার জন্য ফিঙ্গার প্রিন্ট লাগবে। ভল্ট খোলা যায়নি। টাকা নিয়েছে কি নিয়ে যায়নি সেটা এখন বলা যাবে না, আরও কিছু সময় লাগবে।

রুমার সোনালী ব্যাংকের ক্যাশিয়ার উথোয়চিং বলেন, ডরমেটোরিতে যাওয়ার পথে আমার মোবাইল ছিনিয়ে নেয় ডাকাতরা। প্যান্টের পকেটে যা টাকা ছিল সব তারা নিয়ে গেছে। এরপর আমার পকেট থেকে ব্যাংকের চাবি নিয়ে নেয় এবং নড়াচাড়া করলে গুলি করার হুমকি দেয়। এরপর আমি কিছু জানি না। পরে ব্যাংকে ফিরে এসে দেখি ব্যাংকের ভেতরে ভাঙচুর চালিয়েছে।

রুমা উপজেলা জামে মসজিদের ইমাম মো. নুরুল ইসলাম বলেন, ‘তিন রাকাত নামাজ শেষ না হতেই আমরা দেখলাম যে অস্ত্র নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। মসজিদে ঢুকে সবাইকে অবরুদ্ধ করে রাখল। পরে ম্যানেজারের কথা জিজ্ঞেস করল। মসজিদের ভেতরেই ম্যানেজার ছিল এবং ম্যানেজারকে প্রথমে চিহ্নিত করতে না পারলেও অনেকক্ষণ পরে চিহ্নিত করতে পারে। তারা উন্নতমানের অস্ত্র হাতে ২০ জনের মতো ছিল। আমাদের একজনকেও উঠতে, বসতে দেয়নি কিংবা একটু কথাও বলতে দেয়নি।’

রুমার ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত) দিদারুল আলমের ভাষ্য, ডাকাতির সময় ব্যাংকের নিরাপত্তায় নিয়োজিত পুলিশ সদস্যদের কাছ থেকে ১০টি অস্ত্র ও ৩৮০ রাউন্ড গুলি ছিনিয়ে নেওয়া হয়। ব্যাংকের অদূরে থাকা আনসার ব্যারাক থেকে চারটি অস্ত্র ও ৩৫টি গুলি ছিনিয়ে নেয় সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। ওই সময় পুলিশ ও আনসারকে মারধর করে তারা। ব্যাংকের লাগোয়া অফিসার কোয়ার্টারে অবস্থান করা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তাসহ বেশ কয়েকজন কর্মামচারীকেও মারধর করা হয়।

মানববন্ধন: সোনালী ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপকের মুক্তি, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মারধরের প্রতিবাদ ও কর্মস্থলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারসহ ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন সরকারি কর্মচারীরা। গতকাল সকালে উপজেলা পরিষদ এলাকায় এ মানববন্ধন হয়। এতে সভাপতি হিসেবে মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ খালেদ রাউজান বক্তব্য দেন।কালবেলা

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions