শিরোনাম
উপজেলা পরিষদ নির্বাচন,প্রথম ধাপে বিনা ভোটে ২৬ প্রার্থী নির্বাচিত রাঙ্গামাটির ৪ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ রাঙ্গামাটিতে বৃহস্পতিবার সড়ক ও নৌপথ অবরোধ–ইউপিডিএফ পাহাড়ে আগর বাগান বাড়লেও বাজার ব্যবস্থাপনার অভাব মিটার নেই, সংযোগ নেই তবুও বিদ্যুৎ বিল ৬ লাখ ৬৯ হাজার টাকা চুয়েটের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় কাপ্তাই সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ ‘রূপান্তর’ বিতর্ক: জোভান-মাহিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খান ইউনিসের এক গণকবরেই মিলল ৩০০ লাশ কেন্দ্রের নির্দেশ উপেক্ষা করে নির্বাচনে বিএনপির ৩৮ জন বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতি: রুমা ছাত্রলীগ সভাপতিসহ ৭ জন কারাগারে

ত্রিপুরা ভাষায় পাঠদান না থাকায় চট্টগ্রামে ঝরে পড়ছে শিক্ষার্থী

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪
  • ৬২ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- তিন পার্বত্য জেলার পাশাপাশি সমতলেও বসবাস করছে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী। চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি, হাটহাজারী, মিরসরাই, ও সীতাকুণ্ডসহ বিভিন্ন উপজেলায় বসবাস করছেন ন্যূনতম ৬০ হাজার ত্রিপুরা। কিন্তু মায়ের ভাষার বাইরে বাংলা ভাষায় পাঠদান হওয়ায় প্রাথমিকেই ঝড়ে পড়ছে এসব শিক্ষার্থী। এমন পরিস্থিতিতে সমতলে বসবাসরত ত্রিপুরা শিক্ষার্থীদের স্বার্থে মাতৃভাষায় পাঠদান পদ্ধতি চালু দাবি জানিয়েছে তারা। পাশাপাশি মাতৃভাষায় পাঠদানের ক্ষেত্রে শিক্ষকদের পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা দিতেও অনুরোধ তাদের। কোটা পদ্ধতির মাধ্যমে প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ে সমতলে পর্যাপ্ত পরিমাণে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী থেকে শিক্ষক নিয়োগ হলেই এই সংকট কাটানো যাবে বলে মনে করছেন ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের মানুষ। এ জন্য ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর সঠিক ইতিহাস, সংস্কৃতি সংবলিত তথ্য পাঠ্যপুস্তকে উপস্থাপন করার অনুরোধ করেছেন তারা।

রোববার (৩ মার্চ) চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন দাবির কথা জানান ত্রিপুরা ছাত্র সংসদ (টিসিএস)। এর আগে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের কাছে একটি স্মারকলিপি দেন তারা।

ত্রিপুরা ছাত্র সংসদের (টিসিএস) কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ধন কিশোর ত্রিপুরা বলেন, বাংলাদেশে বসবাসরত ক্ষুদ্র জাতিসত্তাসমূহের মধ্যে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী অন্যতম। পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাড়াও প্রায় এক-তৃতীয়াংশ ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর মানুষ চট্টগ্রাম জেলার ফটিকছড়ি, মীরসরাই, সীতাকুণ্ড, হাটহাজারী, কুমিল্লা, চাঁদপুর, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, রাজবাড়ি, ফরিদপুর এবং কক্সবাজার জেলায় বসবাস করে। এককালে ত্রিপুরা জাতির সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য বেশ সমৃদ্ধ ছিল। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, সময়ের আবর্তে ত্রিপুরা জাতিগোষ্ঠীর ভাষাও সংস্কৃতি দিন দিন বিলুপ্তির পথে এগোচ্ছে।

একই তথ্য জানান ত্রিপুরা ছাত্র সংসদের (টিসিএস) কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রুমিও ত্রিপুরা। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট গঠনের পর দেশের বিভিন্ন জাতিসত্তার অবস্থান ও ভাষা পরিস্থিতি নিয়ে তথ্য অনুসন্ধানের জন্য একটি কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়। বাংলাদেশের নৃ-ভাষা বৈজ্ঞানিক সমীক্ষা এ কর্মসূচির মাধ্যমে সারা দেশে মাঠপর্যায়ে একটি সমীক্ষা পরিচালনা করতে গিয়ে বাংলা ছাড়াও আরও ৪০টি ভাষার সন্ধান পেয়েছে ইনস্টিটিউট। সমীক্ষার মাধ্যমে সবচেয়ে ভয়াবহ যে তথ্যটি উঠে এসেছে তা হলো এই ৪০ ভাষার ১৪টি বিপন্নপ্রায়। অনেকের মতে, এই বিপন্ন ভাষাগুলোর সংখ্যা আরও অধিক হবে।

রুমিও ত্রিপুরা বলেন, বিভিন্ন ক্ষুদ্র জাতিসত্তার রাজনৈতিক, সামাজিক ছাত্র সংগঠনের দাবির ফলে সরকার ২০১০ সালের জাতীয় শিক্ষানীতিতে সকল জাতিসত্তার জন্য মাতৃভাষায় শিক্ষার নীতিগ্রহণ করে। বহু দাবি দাওয়া ও প্রতীক্ষার পর ২০১৭ সালে সরকার চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা (ককবরক), সাঁওতাল (সাদরি), গারো ভাষায় শিশুদের জন্য প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ের বই রচনা করে। বর্তমানে প্রাক-প্রাথমিক স্তরে মাতৃভাষায় বই বিতরণ করা হলেও মাতৃভাষায় শিক্ষক সংকট, আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, শিক্ষকের উপযুক্ত প্রশিক্ষণের অভাব, তদারকি ও তত্ত্বাবধানের অভাবে উদ্যোগ সম্পন্নভাবে সফল হচ্ছে না।

ধন কিশোর ত্রিপুরা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর শিশুরা মাতৃভাষায় আংশিকভাবে শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পেলেও সমতলের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর চেয়ে সমতলে বসবাসরত ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষা আরও বেশি বিপন্ন। সাম্প্রতিক সময়ে সমতলের ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষা সংকটের মুখে। অনেকে নিজস্ব মাতৃভাষা হারিয়ে বাংলা ভাষায় ভাব বিনিময় করতে বাধ্য হচ্ছে। যদি সময়োপযোগী কার্যকরে কোনো উদ্যোগ না নেওয়া হয় তাহলে অদূর ভবিষ্যতে ত্রিপুরাদের প্রাণের ভাষা ‘ককবরক’ হারিয়ে যাবে।

টিসিএস এর সভাপতি রুমিও ত্রিপুরা বলেন, ২০১৭ সালে প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর ককবরক ভাষাসহ ৫টি ভাষার মাধ্যমে ক্ষুদ্র জাতিসমূহের মাতৃভাষায় পাঠদানের জন্য পাঠ্য বই বিতরণ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু মাতৃভাষায় শিক্ষক সংকট, আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, শিক্ষকদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণের অভাব, তদারকি ও তত্ত্বাবধানের অভাবে তা সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন হচ্ছে না। পার্বত্য চট্টগ্রামে আংশিক সুযোগ পেলেও সমতলের ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর শিশুরা মাতৃভাষায় শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

হাটহাজারী ত্রিপুরা ছাত্র সংসদের সদস্য ফুলচাঁন ত্রিপুরা বলেন, ত্রিপুরাদের ঐতিহ্য ও ভাষা রক্ষা করতে হলে চারটি কাজ করতে হবে। সমতলে বসবাসরত ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের স্বার্থে মাতৃভাষায় পাঠদান পদ্ধতি চালু করতে হবে। কোটা পদ্ধতির মাধ্যমে প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ে সমতলে পর্যাপ্ত পরিমাণে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী থেকে শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে। মাতৃভাষায় পাঠদানের ক্ষেত্রে শিক্ষকদের পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর সঠিক ইতিহাস, সংস্কৃতি সংবলিত তথ্য পাঠ্যপুস্তকে উপস্থাপন করতে হবে।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions