শিরোনাম
উপজেলা পরিষদ নির্বাচন,প্রথম ধাপে বিনা ভোটে ২৬ প্রার্থী নির্বাচিত রাঙ্গামাটির ৪ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ রাঙ্গামাটিতে বৃহস্পতিবার সড়ক ও নৌপথ অবরোধ–ইউপিডিএফ পাহাড়ে আগর বাগান বাড়লেও বাজার ব্যবস্থাপনার অভাব মিটার নেই, সংযোগ নেই তবুও বিদ্যুৎ বিল ৬ লাখ ৬৯ হাজার টাকা চুয়েটের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় কাপ্তাই সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ ‘রূপান্তর’ বিতর্ক: জোভান-মাহিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খান ইউনিসের এক গণকবরেই মিলল ৩০০ লাশ কেন্দ্রের নির্দেশ উপেক্ষা করে নির্বাচনে বিএনপির ৩৮ জন বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতি: রুমা ছাত্রলীগ সভাপতিসহ ৭ জন কারাগারে

গায়ে গায়ে রেস্তোরাঁ, উপেক্ষিত আইন ঝুঁকিতে নগরবাসী

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় রবিবার, ৩ মার্চ, ২০২৪
  • ৭৪ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- সারি সারি সুউচ্চ ভবন। ভবনগুলোর তলায় তলায় নামিদামি রেস্তোরাঁ। এমন চিত্র রাজধানীর গুলশান, বনানী, উত্তরা, ধানমন্ডি, মিরপুর, বেইলি রোড, মোহাম্মদপুরের মতো অভিজাত এলাকার। ফুড ইন্ডাস্ট্রি ক্যাটাগরিতে এসব ভবনের অনুমোদন নেই। আইনের তোয়াক্কা না করে আবাসিক বা বাণিজ্যিক ভবনে এসব রেস্তোরাঁ দেদারসে ব্যবসা করছে।

বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির হিসাব অনুযায়ী, দেশে রেস্তোরাঁর সংখ্যা ৪ লাখ ৮১ হাজার। এর মধ্যে ঢাকা শহরে আছে প্রায় ২৫ হাজার। এসব ভবনে নেই পর্যাপ্ত অগ্নি নিরাপত্তাব্যবস্থা।

নগর গবেষক স্থপতি ইকবাল হাবিবের মতে, ভবনগুলো যেন একেকটা টাইমবোমা। অগ্নিনিরাপত্তার অনুপস্থিতির পাশাপাশি রয়েছে অগ্নিঝুকিঁও। ভবনগুলোর প্রতিটি ফ্লোরে রয়েছে রান্নাঘর। এসব রান্নাঘরে ব্যবহার করা হয় সিলিন্ডার গ্যাস। আগাম এনে স্তূপাকারেও রাখা হয় গ্যাসভর্তি সিলিন্ডার।

বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির নেতারা বলছেন, আইনে আছে হোটেল-মোটেল-রেস্তোরাঁ করতে গেলে অবশ্যই রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির ছাড়পত্র লাগবে। এই ছাড়পত্র থাকলেই শুধুমাত্র সরকারি সংস্থাগুলো ব্যবসার অনুমতি দেবে। রেস্তোরাঁ ব্যবসা করতে গেলে সিটি করপোরেশন, বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন, ফায়ার সার্ভিসসহ মোট ১৩টি সরকারি প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন লাগে। কিন্তু এক্ষেত্রে সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট সরকারি দপ্তরগুলো এই আইন না মেনে দেদারসে রেস্তোরাঁ ব্যবসার অনুমোদন দিয়ে যাচ্ছে। এভাবেই যত্রতত্র বেড়ে চলেছে রেস্তোরাঁর সংখ্যা।

বেইলি রোড দুর্ঘটনার পর রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) বলছে, বাণিজ্যিক অনুমোদন নিয়ে ভবনটিতে ফুড ইন্ডাস্ট্রি চালানো হচ্ছিল। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলছেন, ‘ভবনটি বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড (বিএনবিসি) না মেনে তৈরি করায় ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয়েছে।’ তবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আমলে না নিয়েই সিটি করপোরেশন বেইলি রোডের ওই প্রতিষ্ঠানটির ট্রেড লাইসেন্স দিয়েছে।

বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি বলছে, বেইলি রোডের ওই ভবনে আটটি রেস্তোরাঁর মধ্যে মালিক সমিতির সদস্য মাত্র একটি। বাকি সাতটি প্রতিষ্ঠানই মালিক সমিতির ছাড়পত্র ছাড়া বেআইনিভাবে ট্রেড লাইসেন্স পেয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ রোস্তারাঁ মালিক সমিতির মহাসচিব ইমরান হাসান বলেন, ‘রেস্তোরাঁ ব্যবসা করতে মালিক সমিতির ছাড়পত্র গ্রহণের আইন বাধ্যতামূলক থাকা সত্ত্বেও সেটা মানছে না সিটি করপোরেশনসহ অন্য সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো। আমরা একটা প্রস্তাবনা প্রস্তুত করছি। শিগগিরই এটি সরকারের কাছে পেশ করব।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ইমরান হাসান বলেন, ‘‘বেইলি রোডের ওই ভবনে যে রেস্তোরাঁগুলো রয়েছে তার মধ্যে মাত্র একটি রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সদস্য। ‘কাচ্চি ভাই’ও সদস্য না। অথচ মালিক সমিতির ছাড়পত্র না থাকলে লাইসেন্সই পাওয়ার কথা না।’’

মনিটরিংয়ের ক্ষমতা চায় বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি
রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সদস্যরা দেশের পোশাক ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিজিএমইএর আদলে কাজ করতে চায়। বিজিএমইএ যেভাবে পোশাক কারখানাগুলোর কমপ্লায়েন্স মনিটরিং করে সেভাবে রেস্তোরাঁগুলো মনিটরিংয়ের ক্ষমতা চায় মালিক সমিতি।

এক্ষেত্রে মালিক সমিতির দাবি, সরকারি সংস্থাগুলোকে সঙ্গে নিয়েই সমিতি কাজটি করতে চায়। লাখ লাখ রেস্তোরাঁ নিয়মিত মনিটরিং করার মতো সক্ষমতা সরকারি প্রতিষ্ঠানের নেই।

রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির মহাসচিব ইমরান হাসান বলেন, ‘মনিটরিংয়ের ক্ষমতা মালিক সমিতিকে দিতেই হবে। না হলে পরিস্থিতির উন্নতি হবে না। আমরা অচিরেই এ ব্যাপারে একটা প্রস্তাবনা সরকারের কাছে দেব।’

তিনি আরও বলেন, ‘বেইলি রোডের ওই ভবনের মতো শত শত ভবন ঢাকা শহরে রয়েছে। অলিগলি থেকে শুরু করে অভিজাত এলাকায় যথাযথ কাগজপত্র ছাড়াই গড়ে তোলা হয়েছে ফুড ইন্ডাস্ট্রি।’

রাজউকের ছয় সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি ইতিমধ্যে বেইলি রোডের ভবনটি পরিদর্শন করেছে। কমিটির পর্যবেক্ষণ হলো, ভবনটিতে কোনো ফায়ার এক্সিট ছিল না। জরুরি পরিস্থিতিতে বের হওয়ার পথ ছিল না। বিশেষভাবে নির্মিত ওই বহির্গমন গেট আগুনের মধ্যেও দুই ঘণ্টা পর্যন্ত অক্ষত থাকে। ফায়ার এক্সটিংগুইসারসহ কোনো ব্যবস্থাই ভবনটিতে ছিল না।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) যুগ্ম সম্পাদক নগর গবেষক স্থপতি ইকবাল হাবিব বলেন, ‘যে কাজের কথা বলে ভবনের অনুমতি নেওয়া হয় সেই কাজের বাইরে অন্যকিছু করার সুযোগ নেই। কাজেই বাণিজ্যিক ভবনে রেস্তোরাঁ করার সুযোগ নেই। কারণ রেস্তোরাঁয় রান্না করার দরকার হয়। সেজন্য বিশেষ ব্যবস্থা থাকতে হয়।’

ইকবাল হাবিব আরও বলেন, ‘গুলশান, বনানী, ধানমন্ডিসহ অভিজাত এলাকার বিভিন্ন বহুতল ভবনে যেসব রেস্তোরাঁ হয়েছে সেগুলোর অগ্নিনিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।’

সেবাসংস্থার জবাবদিহি ও নগর উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা কার্যকরের তাগিদ
অগ্নিঝুঁকি কমাতে সেবা সংস্থার জবাবদিহি ও নগর উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা কার্যকর করার তাগিদ দিয়েছে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বিআইপি)। গতকাল শনিবার বাংলামোটর কার্যালয়ে বেইলি রোড দুর্ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এমন পর্যবেক্ষণ দিয়েছে নগর পরিকল্পনাবিদদের সংগঠন বিআইপি।

লিখিত বক্তব্যে ইনস্টিটিউটের সভাপতি অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান বলেন, ‘বেইলি রোডের দুর্ঘটনার মতো দুর্ঘটনাগুলো সেবা সংস্থাগুলোর গাফিলতিজনিত হত্যাকাণ্ড হিসেবে বিবেচনা না করলে এবং সংশ্লিস্ট যেসব ব্যক্তি ও সংস্থা দায়িত্ব পালনে গাফিলতি, উদাসীনতা ও অন্যায় আচরণ করেছেন তাদের যথাযথ আইনের আওতায় না আনলে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতেই থাকবে’। খবরের কাগজ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions