এই ভোটেও হারলেন যারা

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় সোমবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ১০৬ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারমান কাজী জাফরউল্লাহ ফরিদপুর-৪ আসনে টানা তিন মেয়াদে নৌকা পেলেও একবারও জিততে পারেননি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তাকে পরাজিত করে টানা তিনবার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন। গতকাল দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণায় দেখা যায়, ঈগল প্রতীক নিয়ে নিক্সন চৌধুরী পেয়েছেন ১ লাখ ৪৮ হাজার ৩৫ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাজী জাফরউল্লাহ নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১ লাখ ২৪ হাজার ৬৬ ভোট। ২৩ হাজার ৯৬৯ ভোটে বিজয়ী হয়েছেন নিক্সন চৌধুরী। কাজী জাফরউল্লাহর হ্যাটট্রিক পরাজয় ও নিক্সন চৌধুরীর হ্যাটট্রিক জয় হয়েছে। শুধু কাজী জাফরউল্লাহই নন, এমন অনেক হেভিওয়েট প্রার্থী পরাজিত হয়েছেন এবারের ভোটে। যদিও মাঠের প্রধান বিরোধী দল বিএনপিসহ তাদের সমমনা কয়েকটি রাজনৈতিক দল অংশ নেয়নি। আওয়ামী লীগের শরিক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু নৌকা পেলেও স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়েছেন। কুষ্টিয়া-২ আসনের টানা তিনবারের এমপি ইনু এবার ১৪ জোটের প্রার্থী হয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৯২ হাজার ৪৪৫ ভোট। এদিকে আসনটিতে ট্রাক প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করে এক লাখ ১৫ হাজার ৭৯৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন কামরুল আরেফিন। কামরুল আরেফিন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান।

পিরোজপুর-২ আসনে সাবেক এপিএস ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজের কাছে হেরে গেছেন নৌকা নিয়ে নির্বাচন করা জাতীয় পার্টি-জেপির চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু। মহিউদ্দিন মহারাজ ঈগল প্রতীক নিয়ে ৯৯ হাজার ৭২৪ ভোট পেয়েছেন। আর নৌকা নিয়ে নির্বাচন করা আনোয়ার হোসেন মঞ্জু পেয়েছেন ৭০ হাজার ৩৩৩ ভোট। মঞ্জুর বাড়ি পিরোজপুর-২ আসনের ভান্ডারিয়া শহরে। মহিউদ্দিন মহারাজ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তিনি পিরোজপুর জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রশাসক ছিলেন। হবিগঞ্জ-৪ আসনে বর্তমান এমপি, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলীকে পরাজিত করে বিজয়ী হয়েছেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। স্থানীয়ভাবে ঘোষিত নির্বাচনের ফলাফল অনুযায়ী, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা সুমন ১ লাখ ৯৮ হাজার ভোট পেয়েছেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের দুবারের সংসদ সদস্য মাহবুব আলী পেয়েছেন ৪৭ হাজার ভোট।
মাদারীপুর-৩ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহমিনা বেগম ৯৬ হাজার ৩৩৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের আবদুস সোবহান গোলাপ পেয়েছেন ৬১ হাজার ৯৭১ ভোট। আবদুস সোবহান গোলাপ দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক।
রাজশাহী-২ নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোট করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা। জোটের প্রার্থী হিসেবে নৌকা পেলেও তিনি বিজয়ী হতে পারেননি। তাকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শফিকুর রহমান বাদশা। শফিকুর রহমান বাদশা কাঁচি প্রতীকে পেয়েছেন ৩৪ হাজার ৯০৬ ভোট। ফজলে হোসেন বাদশা পেয়েছেন ৩১ হাজার ৪৬৬ ভোট।

ময়মনসিংহ-১ আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ট্রাক প্রতীক নিয়ে ৯৩ হাজার ৫৩১ ভোট পেয়ে বেসরকারি ফলাফলে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন মাহমুদুল হক সায়েম। তিনি নৌকার প্রার্থী বর্তমান এমপি জুয়েল আরেংকে ১৯ হাজার ৬৭৯ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেন।

টাঙ্গাইল-৮ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অনুপম শাহজাহান ৯৬ হাজার ৪০১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী পেয়েছেন ৬৭ হাজার ৫০১ ভোট। নেত্রকোনা-৩ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে হেরে গেছেন বর্তমান এমপি ও আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল। এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীক নিয়ে ইফতিকার উদ্দিন তালুকদার পিন্টু ৮৪ হাজার ৬৭৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। অসীম কুমার উকিল পেয়েছেন ৬৯ হাজার ০৪১ ভোট।

কুষ্টিয়া-৪ আসনে বড় ভোটের ব্যবধানে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে হারলেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান এমপি সেলিম আলতাফ জর্জ। জর্জ নৌকা প্রতীক নিয়ে আসনটিতে পেয়েছেন ৮০ হাজার ১১১ ভোট। অধিকাংশ কেন্দ্রেই ফল বিপর্যয় হয়েছে তার। ট্রাক প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করে ৯৮ হাজার ৪১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক এমপি আবদুর রউফ। ১৭ হাজার ৯৩০ ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন সেলিম আলতাফ জর্জ।

মানিকগঞ্জ-২ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকের দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলুর কাছে হেরে গেলেন তিনবারের এমপি কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম। এ আসনে মোট ১৯৩টি ভোট কেন্দ্রে ট্রাক প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী দেওয়ান চাহিদ আহমেদ টুলু পেয়েছেন ৮৪ হাজার ৫২৫ ভোট। অন্যদিকে নৌকা প্রতীকে মমতাজ বেগম পেয়েছেন ৭৮ হাজার ২৬৯ ভোট। ফলে ৬ হাজার ২৫৬ ভোট বেশি পেয়ে ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলু বিজয়ী হয়েছেন।

গাইবান্ধা-১ আসনে পুরোনো ও অভিজ্ঞ জাতীয় পার্টির প্রার্থী দুবারের এমপি ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারীকে হারিয়ে জয়ের মুখ দেখেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার আবদুল্লা নাহিদ নিগার। বেসরকারি ফলাফলে ঢেঁকি প্রতীকে নাহিদ নিগার পেয়েছেন ৬৬ হাজার ৪৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী লাঙল প্রতীকে ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী পেয়েছেন ৪৩ হাজার ৪৯১ ভোট।

গাজীপুর-৫ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সাবেক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকিকে হারিয়ে জিতেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকের আখতারউজ্জামান। প্রাপ্ত ভোট অনুযায়ী, ট্রাক প্রতীকের ডাকসুর সাবেক ভিপি আখতারউজ্জামান পেয়েছেন ৬১ হাজার ৬৯৭ ভোট। অন্যদিকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মেহের আফরোজ চুমকি পেয়েছেন ৫০ হাজার ৬৯৬ ভোট।

রংপুর-১ আসনে হেরে গেলেন জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব ও স্বতন্ত্র প্রার্থী (ট্রাক প্রতীক) মসিউর রহমান রাঙ্গা। তাকে প্রায় ৫০ হাজার ভোটের ব্যবধানে হারিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী (কেটলী প্রতীক) এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আসাদুজ্জামান বাবলু।

স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে হেরে গেলেন কুমিল্লা-২ আসনের বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিমা আহমাদ মেরি। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকে অধ্যাপক আবদুল মজিদের কাছে পরাজিত হন। কুমিল্লা-৩ আসনের বর্তমান এমপি ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন হেরে গেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের কাছে। কুমিল্লা-৪ আসনের বর্তমান এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুল হেরে গেছেন দেবিদ্বারের সদ্য সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের কাছে। বাংলাদেশ প্রতিদিন

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions