ভোটের মাঠে বাহাদুরের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় রবিবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৩০৮ দেখা হয়েছে

চট্টগ্রাম ;-পর্যটনের অপার সম্ভাবনার জেলা বান্দরবান। ৭ উপজেলা ও ২ পৌরসভা নিয়ে গঠিত জেলার একমাত্র সংসদীয় এই আসন। ৩০০ নম্বরের এই আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৫০ হাজার। এই জেলায় ভোটের হিসাব-নিকাশটা সব সময় হয় পাহাড়-সমতলের রাজনীতির জটিল সমীকরণকে কেন্দ্র করে। দেশের অন্যান্য স্থানের মতো এখানে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির রাজনীতি সরব থাকলেও স্থানীয় পাহাড়ি-বাঙালি আঞ্চলিক দলগুলোও সক্রিয়। এসব দলের মধ্যে রয়েছে জেএসএস ও ইউপিডিএফ। তাদের আবার বিভিন্ন উপদল রয়েছে। আর বাঙালিদের বিভিন্ন উপদল বিলুপ্ত হয়ে পার্বত্য নাগরিক পরিষদ নামে একই ছাতার নিচে আসে বাঙালিরা। এর মূল নেতৃত্বে রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য কাজী মুজিবুর রহমান। তাঁর অবস্থানও জেলায় বেশ পোক্ত বলে ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে প্রস্তুতি থাকলেও ভোটের মাঠে বিএনপির নড়াচড়া এখনো দৃশ্যমান নয়; বরং তারা নিরপেক্ষ নির্বাচনের আন্দোলনকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন এ মুহূর্তে। তবে নেতারা বলছেন, দলগত সিদ্ধান্ত এলে যেকোনো মুহূর্তে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত তাঁরা।
আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দলটির মনোনয়নের প্রাধিকার তালিকার শীর্ষে আছে ছয়বারের সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রী সংসদ সদস্য বীর বাহাদুর উশৈসিং। এখানে তিনিই একক প্রার্থী।

বান্দরবানে তাঁর নেতৃত্বে চলা উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কারণে সবাই তাঁকে এগিয়ে রাখছে। এরপর আওয়ামী লীগের আরও দু-একজনের নাম শোনা গেলেও তাঁরা ভোটের মাঠে আলোচনায় আসার মতো নন বলে জানিয়েছেন সদর উপজেলার বালাঘাটা এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন। তবে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত কাজী মুজিবুর রহমান ভোটের মাঠে বাঙালি জনগোষ্ঠীর অনুভূতি কাজে লাগিয়ে বীর বাহাদুরকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিতে পারেন বলেও জানান রিয়াজ।

জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য কাজী মুজিবুর রহমান বলেন, ‘জনগণ চাইলে নির্বাচনে মাঠে থাকব। অধিকারবঞ্চিত মানুষের পক্ষে কাজ করার লক্ষ্য নিয়ে নির্বাচন করতে প্রস্তুত। নির্বাচিত হলে উন্নয়নে সমতা প্রতিষ্ঠার কাজটিও করব।’

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইসলাম বেবী বলেন, ‘বান্দরবানের উন্নয়ন-অগ্রগতিতে বীর বাহাদুরের কোনো বিকল্প নেই। তাই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনিই আমাদের একক প্রার্থী।’

এদিকে বান্দরবান বিএনপির রাজনীতিতে অনেক দিনের দুই পরিচিত নাম সাচিং প্রু জেরি ও ম্যামাচিং মারমা। তাঁদের মধ্যে সাচিং প্রু জেরি কেন্দ্রীয় বিএনপির উপজাতিবিষয়ক সম্পাদক। ম্যামাচিং মারমা বান্দরবান জেলা বিএনপির সভানেত্রী ও সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। দুজনই সাবেক সংসদ সদস্য। তাঁদের একটা নির্দিষ্ট ভোটব্যাংক এখানে আছে।

নির্বাচনের বিষয়ে ম্যামাচিং মারমা বলেন, ‘আন্দোলন-সংগ্রাম নিয়ে আমরা মাঠে আছি। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা এলে যেকোনো সময় নির্বাচনে যেতে আমাদের সার্বিক প্রস্তুতি আছে। তবে এই মুহূর্তে আমাদের সবটুকু প্রচেষ্টা মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার বিষয়টি ঘিরে।’

মূলধারার রাজনৈতিক দলগুলোর পাশাপাশি এখানে জনসংহতি সমিতিরও একটা শক্ত অবস্থান রয়েছে। সম্প্রতি জঙ্গিবিরোধী যৌথ বাহিনীর অভিযানের মুখে তারা গা ঢাকা দিয়েছে। এ কারণে ভোটের মাঠে তাদের নড়াচড়া দৃশ্যমান নয়। এ ছাড়া বান্দরবানে বাঙালিদের মধ্যে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী আন্দোলনের ভোটও কম নয়। বিএনপি নির্বাচনে গেলে তাদেরকে নিয়েও হবে আলাদা সমীকরণ, এমনটাই বলছেন সংশ্লিষ্টরা।আজকের পত্রিকা

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions