শিরোনাম

দখলদারদের পেটে ২০ হাজার পুকুর-দিঘি, হারাচ্ছে আসকারদীঘি-বলুয়ারদীঘিও

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪
  • ৫১ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- চারপাশে গাছ-গাছালিতে ঘেরা দিঘি ভরা পানি। পড়ন্ত বেলায় দিঘির পাড়ে নানা বয়সীদের সমাগম। কেউ বসে বসে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করছেন কেউবা ধরছেন মাছ। দিঘিতে চলছে সাঁতার কাটা ও গোসল—এই চিত্র চট্টগ্রাম নগরীর জামাল খানের ঐতিহাসিক আসকারদীঘির। কিন্তু সেটি এখন অতীত।

সাড়ে ৪০০ বছর আগে মোঘলদের শাসনামলে প্রায় সাড়ে ৮ একর জমিতে খনন করা এই দিঘির বেশিরভাগটাই চলে গেছে দখলদারদের পেটে। দীঘি আছে মাত্র ২ একর জায়গাজুড়ে। চারিদিকে দখল করে নির্মাণ করা হয়েছে ঘরবাড়ি, এমনকি মসজিদ-মন্দিরও। এখন দীঘির পাড়ে আর মানুষ বসতে পারে না। কারণ, এখন সেখানে বসলে নাকে সৌরভ ভেসে আসে না। দুর্গন্ধে পাশ দিয়ে পথ চলাও দায়।

চট্টগ্রাম শহরের বুকে আসকারদীঘির মতোই আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দীঘি বলুয়ারদীঘি। এটির চারপাশ দখল হয়ে গেছে। এটি এখন ময়লার ভাগাড়ে পরিণত। এরকম আরও অনেক দীঘি কিছু পুরো ভরাট হয়ে গেছে, আর কিছু ভরাট হওয়ার অপেক্ষায়। এসব দখলের পেছনে রয়েছে ক্ষমতাসীনদের ছত্রছায়া।

আসকারদীঘি নামেই পরিচিত এলাকাটির স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল জব্বার। ৭৫ বছর বয়সী সাবেক এই সরকারি কর্মকর্তা আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘এই দীঘিতে আমরা সাঁতার কেটেছি। আমাদের শৈশব কেটেছে এখানে। দীঘি ভরা পানি, চারপাশে গাছ। এখনতো সব দখল।’

কয়েকবছর ধরে বলুয়ারদীঘি দখলের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন স্থানীয় মো. আরশেদ আজিম আরিফ। দখলের বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর, জেলা প্রশাসন, সিটি করপোরেশন, এমনকি চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিক চিঠি দিয়েছেন তিনি। কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠানের নিরব ভূমিকায় প্রভাবশালীরা দীঘিটি দখলে নিচ্ছে প্রতিদিন। একবছর আগে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক আসকারদীঘি-বলুয়ারদীঘিসহ দখলে থাকা পুকুর জলাশয় পুনরুদ্ধার করার ঘোষণা দিলেও এখনো কোনো অভিযান পরিচালনা করা হয়নি।

আরশেদ আজিম আরিফ বলেন, স্থানীয় প্রভাবশালীরা দিনে-দুপুরে মাটি ফেলে বলুয়ারদীঘি দখল করছেন। প্রশাসনকে এই বিষয়ে বারবার বলার পরও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। অজ্ঞাত কারণে প্রশাসন অভিযানও পরিচালনা করছে না।

মৎস অধিদপ্তরের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত ৩০ বছরে চট্টগ্রামে ১৯ হাজার ২৫০টি পুকুর জলাশয় ভরাট হয়ে গেছে বা দখল হয়ে গেছে। এর মধ্যে রয়েছে অনেক ঐতিহ্যবাহী পুকুর-জলাশয়ও। তবে ২০১৭ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি গবেষক মোরশেদ হোসেন মোল্লার এক সমীক্ষায় চট্টগ্রাম শহরে ১২শ ৪৯টি জলাশয়ের অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

এখনো বেঁচে থাকা চট্টগ্রাম শহরের পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ দীঘি ও ডেবা সরেজমিন পরিদর্শন করা হয়েছে। এগুলো হলো- চট্টগ্রামের কোতোয়ালীর আসকারদীঘি, বলুয়ারদীঘি, আগ্রাবাদ ডেবা, পাহাড়তলীর জোর ডেবা ও ভেলুয়ারদীঘি। আসকারদীঘি ও বলুয়ারদীঘির চারদিকে উঠেছে বহুতল স্থাপনা; রয়েছে মসজিদ-মন্দিরও। দখল-দূষণে সংকুচিত হচ্ছে এনায়েত বাজার এলাকার রানির দীঘি, পাহাড়তলীর পদ্মপুকুর, বড় মিয়ার মসজিদ পুকুর। বড়মিয়া মসজিদের পুকুর ওপরের উঠেছে মসজিদ। চারপাশে হয়ে গেছে দোকানপাঠও।

এছাড়া হালিশহরের খাজা দীঘি, চান্দগাঁওয়ের মুন্সি পুকুর, বাকলিয়ার আবদুল্লাহ সওদাগর পুকুর, আগ্রাবাদের দাম্মো দীঘি, কর্নেল হাট দীঘি, হাজারীর দীঘি, কারবালা পুকুর, কাজীর দীঘি ও রামপুর বড় পুকুরেরও আর অস্তিত্ব নেই। পাহাড়তলীর জোড় ডেবার আয়তন ২১ দশমিক ৪৮ একর।

সরেজমিনে দেখা যায়, পাহাড়তলী বাজারের শেষে রেলওয়ের জোড় ডেবা। এটির চারপাশে ধীরে ধীরে দখল হয়ে যাচ্ছে। গড়ে উঠেছে বস্তি-দোকান। জোড় ডেবার প্রবেশমুখ থেকে সোজা পশ্চিম ঝরনাপাড়া পর্যন্ত দুই শতাধিক বসতি ও ১২টি দোকান। এখান থেকে প্রতি মাসে গণি সরদারের লোকজন এসে আট হাজার টাকা নিয়ে যান বলে জানা গেছে। তবে, গণি সরদার এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

১৯ দশমিক ৭৮ একর আয়তনের আগ্রাবাদ জলাশয়। এই জলাশয়ের এক পাড়ে রেলওয়ের বাসা, অন্য পাড়ে বসতি-দোকান। স্থানীয়রা জানান, অন্তত পাঁচ শতাধিক বাসা-দোকান গড়ে উঠেছে। এখান থেকেও প্রতি মাসে টাকা তোলা হয়। প্রতিবছর এখানেও প্রায় অর্ধকোটি টাকার বাণিজ্য হয়। হাবিব উল্লাহ চৌধুরী এই টাকা তোলেন বলে অভিযোগ। তবে তিনি এসব অস্বীকার করেন।

পাহাড়তলীর ১৩ দশমিক ৭৪ একরের ভেলুয়ার দীঘি ঘিরে প্রায় তিন দশক ধরে চলছে দখলের মহোৎসব। এতে কমে গেছে দীঘির আয়তন। ২৫ নম্বর রামপুরা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুস সবুর লিটন ও নূর হোসেন বাক্কু এই জলাশয় দখলের সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে তাঁরা এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রামের তথ্যমতে, ১৯৯১ সালে মৎস্য অধিদপ্তরের এক জরিপে ১৯ হাজার ২৫০টি পুকুর-জলাশয়ের অস্তিত্ব মেলে। ২০০৬ সালে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের এক জরিপে চার হাজার ৫২৩টি পুকুর-জলাশয় পাওয়া যায়।

পরিবেশবিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা রসায়নের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ড. ইদ্রিস আলী বলেন, ১৯৯১ সালে মৎস্য অধিদপ্তরের জরিপে ১৯ হাজার ২৫০টি পুকুর-জলাশয়ের অস্তিত্ব মেললেও এখন (২০২৪ সালে) ১০ শতাংশও নেই। অর্থাৎ এখন ২০০ মতো জলাশয় আছে। তাও দখল হয়ে গেছে। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় এসব দীঘি-জলাশয় দখল হচ্ছে।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, এসব দীঘি-পুকুর ও জলাশয় দখলে নিতে বেশ অভিনব কৌশল নেওয়া হয়। প্রভাবশালীরা প্রথমে পুকুরের পাশের নাল জমিতে ছোট স্থাপনা নির্মাণ করেন। পরে স্থাপনার পাশে ধীরে ধীরে পুকুর ভরাট করেন। এক সময়ে ভূমি অফিসে জমির শ্রেণি পরিবর্তন করার আবেদন করেন। পরিদর্শনে গিয়ে ভূমি অফিসের লোকজন যদি দেখেন, পুকুরের কোনো অস্তিত্ব নেই, তখন তারা শ্রেণি পরিবর্তনের পক্ষে প্রতিবেদন দেন। এভাবে পুকুর নাল কিংবা কিলা ভুমিতে পরিণত হয়।

অধ্যাপক ড. ইদ্রিস আলী বলেন, মানুষ কৌশলে পুকুরের শ্রেণি পরিবর্তন করছে। এক্ষেত্রে খতিয়ানে জমির শ্রেণির পুকুর লেখা না থাকলে প্রতিকার পাওয়া দুষ্কর। পুকুর-জলাশয় ভরাটের বিরুদ্ধে আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখতে পারেন জনপ্রতিনিধিরা।

এবিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম জেলার উপ-পরিচাল মো. ফেরদৌস আনোয়ার বলেন, ‘পুকুর ভরাটের কোনো সংবাদ পেলে আমরা দ্রুততম সময়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি; জরিমানা করি। কিছুদিন আগে কর্ণফুলীতে পুকুর ভরাট করায় জরিমানা করেছি। যেগুলো ভরাট হয়ে গেছে, সেগুলোর ক্ষেত্রে খতিয়ান দেখে জলাশয় থাকলে, খনন করে আগের অবস্থায় ফিরে নিয়ে আসি। তবে এক্ষেত্রে মানুষদের আগে সচেতন হতে হবে।’আজকের পত্রিকা

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions