৫৪ মেডিকেল কলেজে ভর্তিতে আগ্রহ নেই শিক্ষার্থীদের,হাজার আসন খালি

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪
  • ৬৫ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- ভবিষ্যৎ চিকিৎসকদের মন জয় করতে পারেনি অধিকাংশ বেসরকারি মেডিকেল কলেজ। মাত্র ১৩টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে বরাদ্দকৃত আসনে শতভাগ শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। অপেক্ষমাণ (ওয়েটিং লিস্ট) থেকে দ্বিতীয় ধাপে শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ দেওয়ার পরও প্রায় এক হাজার আসন শূন্য। তৃতীয় ধাপে খুলে দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েব পোর্টাল। তবুও আশানুরূপ সাড়া নেই।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের তথ্যমতে, দেশের ৬৭টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে দেশি-বিদেশি শিক্ষার্থীর জন্য ৬ হাজার ২৯৩টি আসন রয়েছে। এসব আসনের বিপরীতে শিক্ষার্থী ভর্তির শেষ সময় ছিল গত ১৮ এপ্রিল। কিন্তু এখনো বেসরকারি মেডিকেল কলেজে প্রায় এক হাজার আসন শূন্য রয়েছে। অর্থাৎ নির্দিষ্টসংখ্যক আসনে প্রয়োজনীয় শিক্ষার্থী পায়নি ৫৪টি কলেজ। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর বেসরকারি মেডিকেল কলেজে দেশি-বিদেশি শিক্ষার্থী সংকট কাটাতে ফের ভর্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর মধ্যে গত ১৯ মে থেকে তিন সপ্তাহের জন্য বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ভর্তির আবেদনের পোর্টাল আবার খুলে দেওয়া হয়েছে। আর দেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ২১ মে থেকে গতকাল (৮ জুন) পর্যন্ত ফের ভর্তির আবেদন করতে বলা হয়েছে।

শিক্ষার্থী সংকটের জন্য অটোমেশন ও অধিদপ্তরের অদক্ষতাকে দায়ী করছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। তারা বলছে, আগে শিক্ষার্থীরা পছন্দমতো কলেজে ভর্তির সুযোগ পেত। কিন্তু অটোমেশন পদ্ধতির কারণে দুই বছর ধরে সেটি হচ্ছে না। এতে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও বেসরকারি

মেডিকেল কলেজ উদ্যোক্তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিএমসিএ) সভাপতি এবং ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এম এ মুবিন খান বলেন, অটোমেশনের কারণে বেসরকারি মেডিকেল শিক্ষা খাত হুমকির মুখে। মেধা তালিকার প্রথম দিকের শিক্ষার্থীরা আসছে না। কারণ তারা তাদের কাঙ্ক্ষিত মেডিকেল কলেজে ভর্তি হতে পারছে না। ফলে শেষের দিকের ছাত্রছাত্রী ভর্তি হচ্ছে। এমনকি গরিব বা মেধাবী ফ্রি কোটায় পর্যন্ত শিক্ষার্থী পাওয়া যাচ্ছে না।

তবে এমন অভিযোগ মানতে নারাজ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা) মো. মহিউদ্দিন মাতুব্বর বলেন, অটোমেশনের কারণে প্রকৃত মেধাবীরা ভর্তির সুযোগ পাচ্ছে; বাড়তি টাকা-পয়সা লাগছে না। মেধায় যে পিছিয়ে সে টাকা বেশি দিয়েও একটি ভালো কলেজে ভর্তি হতে পারছে না। তিনি বলেন, মানুষ অর্থনৈতিক চাপে রয়েছে। এ কারণে বেসরকারি মেডিকেল কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তিতে আগ্রহ কম। মধ্যবিত্তের পক্ষে বেসরকারিতে অর্থ খরচ করে সন্তানকে পড়াশোনা করানো কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। এখানে অটোমেশন দায়ী নয়।

তবে এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত নন মেডিকেল কলেজ মালিকরা। বিপিএমসিএ সভাপতি ডা. এম এ মুবিন খান বলেন, অটোমেশন মানোন্নয়নের মাপকাঠি নয়। একটি গ্রুপ পরিকল্পিতভাবে বেসরকারি খাতকে ধ্বংসের জন্য সূক্ষ্মভাবে কাজ করছে। মিথ্যা তথ্য দিয়ে ধূম্রজাল তৈরি করছে। ভর্তি প্রক্রিয়ায় কেউ নির্ধারিত ফির বাইরে আর্থিক লেনদেন করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণসহ প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে পুরো বিষয়টি তদন্তের দাবি জানিয়েছেন তিনি। মানোন্নয়নের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) এবং অধিভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতি বছর বেসরকারি মেডিকেল কলেজ পরিদর্শন করে থাকে। প্রয়োজনে এই চার সংস্থাকে আরও শক্তিশালী করার কথা বলেন ডা. এম এ মুবিন খান।

এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. রোকেয়া সুলতানা বলেন, বেসরকারি খাতকে বাদ দিয়ে কিছু চাই না। কোয়ালিটি মেইনটেন করে মেডিকেল শিক্ষাকে চালিয়ে নিতে চাই। অনেক বেসরকারি মেডিকেল কলেজে পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই; ক্লাসরুম সংকট; শিক্ষার্থী অনুপাতে হাসপাতাল শয্যাও সংকট আছে। এরপর যারা শিক্ষার্থী টানতে পারেনি তাদের কোয়ালিটি সমস্যা, অটোমেশন নয়। অটোমেশনে মেধার মূল্যায়ন হচ্ছে।

তিনি বলেন, বেসরকারি মেডিকেল কলেজের মালিকদের অটোমেশন একটা অজুহাত। কেউ সিরিয়ালে এগিয়ে থাকলে অবশ্যই সে ভর্তি হবে। আমরা অযোগ্য চিকিৎসক চাই না। যদি ১০ জন সলিড চিকিৎসক পড়াশোনা করে বের হন, সেটিই চাই। তারাই তো আমাদের চিকিৎসা দেবেন।

স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকে বেসরকারি মেডিকেল কলেজের আসন শূন্য থাকার পেছনে কারণ খুঁজে দেখার নির্দেশ দিয়েছি। সেইসঙ্গে সব বেসরকারি মেডিকেল কলেজের মান যাচাইয়েরও কথা বলেছি। আমরা মানসম্মত চিকিৎসা শিক্ষা নিশ্চিত করতে চাই।

শতভাগ আসন পূরণ ১৩ কলেজের

৬৭টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের মধ্যে এখন পর্যন্ত ১৩টি কলেজের শতভাগ আসন পূরণ হয়েছে। বাকি ৫৪ কলেজের আসন ফাঁকা রয়েছে। শতভাগ আসন পূরণ হওয়া কলেজগুলো হলো রাজধানীর আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ, আদ-দ্বীন উইমেন্স মেডিকেল কলেজ, বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ, উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ, ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজ, উত্তরা মেডিকেল কলেজ ফর উইমেন, সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ, ফরিদপুর ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন মেডিকেল কলেজ, কুমিল্লা ময়নামতি মেডিকেল কলেজ, রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ, সিলেট জালালাবাদ রাগিব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হসপিটাল মেডিকেল কলেজ এবং চট্টগ্রাম মেরিন সিটি মেডিকেল কলেজ।

১০ আসন পর্যন্ত ফাঁকা ১৬ কলেজে

মোট আসনের মধ্যে ১ থেকে ১০টি আসন ফাঁকা রয়েছে ১৬টি মেডিকেল কলেজে। কলেজগুলো হলো রাজধানীর হলি ফ্যামিলি রেডক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ, কিশোরগঞ্জ জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ এবং ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজে একটি করে আসন শূন্য রয়েছে। কুমিল্লা সেন্ট্রাল মেডিকেল কলেজ এবং চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ, ধানমন্ডি গ্রিন লাইফ মেডিকেল কলেজ দুটি করে আসন ফাঁকা রয়েছে। ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ এবং খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজে চারটি করে আসন শূন্য রয়েছে। টাঙ্গাইল কুমুদিনী মেডিকেল কলেজে পাঁচটি, রাজধানীর ইউনিভার্সাল মেডিকেল কলেজে ছয়টি, মানিকগঞ্জ মুন্নু মেডিকেল কলেজে সাতটি, ঢাকার সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজ, ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ এবং খুলনা গাজী মেডিকেল কলেজে আটটি করে আসন ফাঁকা রয়েছে। রাজধানীর পুরান ঢাকার আসগর আলী মেডিকেল কলেজ এবং চট্টগ্রাম সাউদার্ন মেডিকেল কলেজ ১০টি করে আসন ফাঁকা রয়েছে।

২০ আসনের বেশি ফাঁকা ২০ কলেজে

১০৫ আসনের ধানমন্ডি পপুলার মেডিকেল কলেজে ফাঁকা ৪৯ আসন। ৮০ আসনের গাজীপুর সিটি মেডিকেল কলেজে ফাঁকা ৪৮ আসন। ১০৫ আসনের রাজশাহীর বরেন্দ্র মেডিকেল কলেজে ফাঁকা ৩৮ আসন। ১০০ আসনের চট্টগ্রাম বিজিসি ট্রাস্ট মেডিকেল কলেজে ফাঁকা ৩৬ আসন। ১৩০ আসনের ঢাকা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজে ফাঁকা ৩৫ আসন। ৫০ আসনের মনোয়ারা সিকদার মেডিকেল কলেজে ফাঁকা ৩৬৫ আসন। ৭০ আসনের রাজধানীর মার্কস মেডিকেল কলেজে ফাঁকা ২০ আসন। ১১৫ আসনের এমএইচ মেডিকেল কলেজে ২৫; ৮৫ আসনের সিরাজগঞ্জ নর্থ বেঙ্গল মেডিকেল কলেজে ২২টি; ৮২ আসনের সিলেট পার্কভিউ মেডিকেল কলেজে ২৫; ৯৫ আসনের কিশোরগঞ্জ প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ মেডিকেল কলেজে ২৬; ১৩৫ আসনের রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল কলেজে ২৪; ৯০ আসনের গুলশান শাহাবুদ্দিন মেডিকেল কলেজে ২৬; ১৪০ আসনের শহীদ মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে ২০; ৫০ আসনের আহছানিয়া মিশন মেডিকেল কলেজে ২০; ৫০ আসনের আশিয়ান মেডিকেল কলেজে ২৬; ৫৭ আসনের মুন্সীগঞ্জ বিক্রমপুর ভূঁইয়া মেডিকেল কলেজে ২২; ৬০ আসনের ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজে ২২; ১৪০ আসনের ময়মনসিংহ কমিউনিটি বেইজড মেডিকেল কলেজে ৩১; ৮০ আসনের চট্টগ্রামের ইনস্টিটিউট অব অ্যাপ্লাইড হেলথ সায়েন্সে ২৭টি আসন ফাঁকা রয়েছে। এ ছাড়া ১১ থেকে ১৯টি আসন ফাঁকা রয়েছে বাকি ১৮টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে।কালবেলা

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions