শিরোনাম
কাল থেকে নিয়মিত বিচারিক কার্যক্রমে ফিরছে সুপ্রিম কোর্ট : তীব্র গরমে আইনজীবীদের গাউন পরতে হবে না দেশের সর্বোচ্চ ৪২.৬ ডিগ্রি তাপমাত্রা যশোরে, গলে যাচ্ছে সড়কের পিচ রাঙ্গামাটির কাপ্তাই হ্রদের পানি হ্রাস পাওয়ায় দুর্ভোগে লাখো মানুষ, বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত পার্বত্য শান্তি চুক্তির মোট ৭২টি ধারা,বাস্তবায়িত হয়েছে ৬৫ ধারা – জাতিসংঘে বাংলাদেশ রিজার্ভ কমে দুই হাজার কোটি ডলারের নিচে ইসরায়েলকে ‘সর্বোচ্চ পর্যায়ের’ জবাব দেওয়ার হুঁশিয়ারি ইরানের পৃথিবীটা বড় নিষ্ঠুর, বলছেন ট্রলের শিকার হওয়া কানসেলো সাবমেরিন ক্যাবল বন্ধ, ইন্টারনেট স্বাভাবিক হবে কবে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা নিয়ে হঠাৎ সরব আওয়ামী লীগ ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিল আরেক দেশ

পাহাড়ের আতঙ্ক কেএনএফ কি পুরোনো রূপে ফিরছে

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বুধবার, ৩ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৮০ দেখা হয়েছে

বান্দরবান:- তিন পার্বত্য জেলার মধ্যে সবচেয়ে শান্ত ও সম্প্রীতির জেলা হিসেবে পরিচিত ছিল বান্দরবান। ২০২২ সাল থেকে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড এই জেলাকে অস্থির করে তোলে। কেএনএফকে সঙ্গে নিয়ে পার্বত্য জেলা পরিষদের উদ্যোগে যখন শান্তি প্রক্রিয়া এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে, এ সময়ে ব্যাংক থেকে অস্ত্র লুট ও ব্যাংক ম্যানেজার অপহরণের ঘটনায় আবারও আলোচনায় এসেছে কেএনএফ। এ ঘটনায় জেলায় শান্তি স্থাপনের উদ্যোগ সফলতা পাবে কি না এই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

কারা এই কেএনএফ
‘কুকি-চিন রাজ্য’ নামে একটি পৃথক রাজ্যের দাবিতে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) পাহাড়ের ৯টি উপজেলা তাদের পূর্বপুরুষদের আদিম নিবাস, দখলদারেরা তাদের ভূমি দখল করে নেয় এবং কোটাসহ সরকারি বিভিন্ন সুবিধা থেকে তারা বঞ্চিত। জেএসএসসহ অন্য সংগঠনগুলো তাদের ভূমি ব্যবহার করে সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্যে পরিণত করে বিভিন্ন অপরাধ করছে, তাই এসব থেকে মুক্তি পেতে এই সংগঠন সৃষ্টি করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাথান বম। সংগঠনটি ২০১৭ সালে কেএনভি নামে সশস্ত্র সাংগঠনিক কার্যক্রম শুরু করে শতাধিক সদস্য মিয়ানমারের কাচিন, কারেন প্রদেশ এবং ভারতের মণিপুর রাজ্যে প্রশিক্ষণে পাঠায়। ২০১৯ সালে কমান্ডো প্রশিক্ষণ শেষে সশস্ত্র অবস্থায় তারা দেশে ফিরে আসে। রুমা সীমান্ত ও ভারতের মিজোরাম সীমান্তের জাম্পুই পাহাড়ে ভারী অস্ত্রে সজ্জিত এ সংগঠনের সশস্ত্র ও নিরস্ত্র মিলিয়ে ছয় শর বেশি সদস্য রয়েছে। বর্তমানে তারা পাহাড়ের পাঁচটি উপজেলায় ঘাঁটি গেড়ে এসবিবিএল, একে ৪৭, এসএমজি, পিস্তল, নিজস্ব পদ্ধতিতে তৈরি ল্যান্ড মাইন ব্যবহার করে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে।

কেএনএফের যত অপরাধ
কেএনএফের সংঘাতময় পরিস্থিতির কারণে ২০২২ সালের ১৭ অক্টোবর থেকে জেলায় পর্যটক যাতায়াতে দফায় দফায় নিষেধাজ্ঞা জারি ও পরে প্রত্যাহার করে জেলা প্রশাসন। পর্যটক যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞায় জেলার দুই শতাধিক হোটেল-মোটেল কার্যত পথে বসে, রুমার ছয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মাসের পর মাস বন্ধ থাকে। একই বছরের ১৫ নভেম্বরের পর ১৩২টি পরিবারের ৫৪৮ জন ভারতের মিজোরামে আশ্রয় নেয়। রুমা সদরে ১৪০ মারমা নারী-পুরুষ আশ্রয় গ্রহণ করলেও তারা পরে বাসায় ফিরে যায়। ২০২৩ সালের ১০ মার্চ রাঙামাটির বিলাইছড়ির তিনটি পাড়া থেকে ৫৬ পরিবার রেইছা ও রোয়াংছড়ি সদরে আশ্রয় গ্রহণ করে। এ ঘটনায় পাঁচজন সেনা এবং কেএনএফ সদস্যসহ নিহত হয় আরও ১৬ জন। অপহরণের শিকার হয় অন্তত ৩০ জন। ফলে জেলার ব্যবসা-বাণিজ্যে ধস নামে, জনজীবনে অস্থিরতা বিরাজ করে। কেএনএফের সঙ্গে জঙ্গি সংগঠনের যোগসাজশ আছে দাবি করে যৌথ বাহিনী এ সময় পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে জামাআতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার ৬৮ জন জঙ্গি ও কেএনএফের বেশ কয়েকজনকে আটক করে। এ সময় বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

আলোচনায় ব্যাংক লুট
গতকাল মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) ৫০-৬০ জনের সশস্ত্র দল রুমা সোনালী ব্যাংকে প্রবেশ করে। এ সময় অস্ত্রের মুখে ব্যাংকের পাহারায় থাকা পুলিশ, আনসার সদস্যদের দুটি সাব-মেশিন গান ও ৬০টি গুলি, ৮টি চায়নিজ রাইফেল ও ৩২০টি গুলি এবং ৪টি শটগান ও ৩৫টি গুলি লুট করে তারা। এ সময় ব্যাংক ম্যানেজার নিজাম উদ্দিনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। আর বান্দরবানে এ ধরনের ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্কের পাশাপাশি ফের আলোচনায় কেএনএফ।

কেএনএফে কোন্দল
বিভিন্ন দাবি নিয়ে শান্তির পথে ফিরে আসা-না আসাকে কেন্দ্র করে কেএনএফে মতবিরোধকে কেন্দ্র করে ব্যাংক লুটের এই ঘটনা ঘটে বলে মনে করছে অনেকে। শান্তি প্রক্রিয়ার সমঝোতার মধ্যেই ব্যাংক লুটের ঘটনার পর শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির এক সদস্য এ ঘটনার বিষয়ে কেএনএফ থেকে জানতে চাইলে বর্তমানে ভারতের মিজোরামে অবস্থানরত সংগঠনটির প্রধান নাথান বমের উপদেষ্টা লালএংলিয়ান বম বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। আমরাও এ ঘটনায় হতবাক।’

ব্যর্থ হবে শান্তি প্রক্রিয়া?
কেএনএফ সদস্যদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লার নেতৃত্বে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের নেতাদের নিয়ে ২০২৩ সালের জুন মাসে ১৮ সদস্যের শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটি গঠন করা হয়। এর পর থেকে সংগঠনটির নেতাদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে আসছে শান্তি কমিটি। ফলে পাহাড়ে সশস্ত্র কর্মকাণ্ড ও আতঙ্ক কিছুটা কমে আসে। দুই পক্ষের মধ্যে একাধিকবার ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠক হয়। এরপর গত বছরের ৫ নভেম্বর প্রথম সরাসরি বৈঠকে চারটি বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়। গত ৫ মার্চ দ্বিতীয় বৈঠকে ছয় দফা দাবি উপস্থাপন করা হয়। এ বৈঠকে শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লার নেতৃত্বে ১৩ জন সদস্য অংশ নেন। এই সময়ে ব্যাংক লুট ও অপহরণের ঘটনা শান্তি প্রক্রিয়াকে ব্যর্থ করবে বলে মনে করছে অনেকে।

যা বলছে প্রশাসনিক কর্তারা
রুমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাজাহান বলেন, ‘বুধবার বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এ বিষয়ে মামলা হয়নি, ব্যাংক ম্যানেজার উদ্ধারে কাজ চলছে, আটক করা হয়নি কাউকে।’

এদিকে এ ঘটনায় শান্তি প্রক্রিয়ায় প্রভাব পড়বে কি না—এই প্রশ্নে জেলা পুলিশ সুপার সৈকত শাহিন বলেন, ‘চলমান শান্তি প্রক্রিয়ার সংলাপের মধ্যে কেন এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে তা আমরা খতিয়ে দেখছি।’

শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির মুখপাত্র ও পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য কাঞ্চন জয় তংচঙ্গ্যা বলেন, ‘এ ঘটনায় শান্তি প্রক্রিয়ায় প্রভাব পড়বে। আমরা এ ঘটনায় স্তম্ভিত ও হতবাক। শান্তির সমঝোতা অমান্য করে তাদের এই ঘটনায় সবকিছু প্রশ্নবিদ্ধ।’

আইনশৃঙ্খলায় প্রভাব পড়েছে কি না—এই প্রশ্নের জবাবে জেলা প্রশাসক (ডিসি) শাহ মোজাহিদ উদ্দিন বলেন, ‘এ ঘটনার পর সব সংস্থা একযোগে কাজ করছে। সবকিছু স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করছি। এখনো আতঙ্কিত হওয়ার মতো কিছুই নেই।’আজকের পত্রিকা

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions