শিরোনাম
বান্দরবানের সীমান্ত দিয়ে মিয়ানমারের আরও ১৩ সীমান্তরক্ষী পালিয়ে বাংলাদেশে রাঙ্গামাটিতে সাংগ্রাই জল উৎসব অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে আ.লীগ নেতার বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, সড়কে যান চলাচল বন্ধ ফরিদপুরে বাস-পিকআপ সংঘর্ষে নিহত ১৩ জনের নাম-পরিচয় পাওয়া গেছে বারতে পারে মৃত্যুের সংখ্যা বৈশ্বিক স্বাধীনতা সূচকে ১৬৪ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪১ কঠোর অবস্থানে ইরান, হামলার পাল্টা হামলা হবে ভয়াবহ, জবাব দেয়া হবে কয়েক সেকেন্ডেে রাঙ্গামাটি ৪ উপজেলায় নির্বাচনে: মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ৩৭ জন টেস্ট পরীক্ষার নামে বাড়তি ফি আদায় করা যাবে না: শিক্ষামন্ত্রী বিশ্বকাপ নিয়ে বেশি প্রত্যাশার দরকার নেই বলছেন শান্ত বান্দরবানের ৪ উপজেলায় নির্বাচন: মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ৩২ জন

বাস থেকে হাজার কোটি টাকা চাঁদাবাজি: কার পকেটে কত যায়

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় বুধবার, ৬ মার্চ, ২০২৪
  • ৪৯ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- দেশে ব্যক্তিমালিকানাধীন বাস ও মিনিবাস থেকে বছরে ১ হাজার ৫৯ কোটি টাকা চাঁদা আদায় করা হয়। এই চাঁদার ভাগ যায় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কর্মকর্তা-কর্মচারী, ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশ, মালিক-শ্রমিক সংগঠন ও পৌরসভা বা সিটি করপোরেশনের প্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের পকেটে। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

গতকাল মঙ্গলবার ধানমন্ডির মাইডাস সেন্টারে এক অনুষ্ঠানে ‘ব্যক্তিমালিকানাধীন বাস পরিবহন ব্যবসায় শুদ্ধাচার’ শীর্ষক ওই গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে টিআইবি। সংস্থাটির গবেষক মুহা. নূরুজ্জামান ফারহাদ, ফারহানা রহমান ও মোহাম্মদ নূরে আলম গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন।

২০২৩ সালের মে মাস থেকে ২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৩২টি জেলার বাসকর্মী, শ্রমিক, মালিক ও যাত্রীদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই গবেষণা প্রতিবেদন প্রস্তুত করে টিআইবি। গবেষণায় ৩২ জেলার ৫১টি বাস টার্মিনাল পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। ৬৯৬ জন যাত্রী, ৭০১ জন বাসকর্মী ও ১৬৮ জন বাসমালিকের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছে।

টিআইবির প্রতিবেদনে বলা হয়, ৪৮ দশমিক ৫ শতাংশ বাস কোম্পানি বিভিন্ন চাঁদা হিসেবে এ অর্থ দিতে বাধ্য হয়, যা কোম্পানিগুলো ‘করপোরেট সোশ্যাল রেসপনসিবিলিটি (সিএসআর)’ হিসেবে অভিহিত করে। এ ছাড়া রাজনৈতিক সমাবেশ, বিভিন্ন দিবস পালন, টার্মিনালের বাইরে রাস্তায় পার্কিং এবং সড়কের বিভিন্ন স্থানে ট্রাফিক আইন লঙ্ঘন ও ‘টোকেন বাণিজ্যের’ জন্য বাসমালিক ও শ্রমিকেরা চাঁদা বা নিয়মবহির্ভূত অর্থ দেন বা দিতে বাধ্য হন।

এ ছাড়া নিবন্ধন ও সনদ হালনাগাদ করতে ৫২ দশমিক ৯ শতাংশ যাত্রীবাহী বাস বিআরটিএতে ঘুষ দেয়। বাসপ্রতি মাসিক ১৭ হাজার ৬১৯ টাকা ঘুষ নিয়মবহির্ভূতভাবে আদায় করেন বিআরটিএর কর্মকর্তারা, যার পরিমাণ দাঁড়ায় বছরে ৯০০ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে চাঁদাবাজি, বিআরটিএর অনিয়ম ও শ্রমিক সংগঠনগুলো পরিবহন খাত থেকে নিয়মবহির্ভূতভাবে বছরে ১ হাজার ৫৯ কোটি টাকা আদায় করছে।

বাস থেকে হাজার কোটি টাকা চাঁদাবাজি: কার পকেটে কত যায়
গবেষণায় আরও উঠে এসেছে, আন্তজেলা দূরপাল্লার বাসগুলোকে বার্ষিক ১ হাজার ১৯ টাকা, সিটি সার্ভিসগুলোকে ৫ হাজার ৬৫৬ টাকা এবং আন্তজেলা আঞ্চলিক বাসগুলোকে ১ হাজার ১৩৩ টাকা ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশকে ঘুষ হিসেবে দিতে হয়। পাশাপাশি টার্মিনালে বাস রাখতে বাসপ্রতি দৈনিক ১০৫ টাকা চাঁদা দিতে হয়।

প্রতিবেদনে টিআইবি বলছে, দেশের পুরো পরিবহন খাত কতিপয় কোম্পানি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। শুদ্ধাচারের ঘাটতি থাকায় শ্রমিকেরা অবহেলিত এবং যাত্রীরা মানসম্মত সেবা থেকে বঞ্চিত। এই খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশলের সুষ্ঠু প্রয়োগসহ ১৫টি সুপারিশ করেছে টিআইবি।

বিআরটিএর এই ঘুষ লেনদেন মন্ত্রণালয় পর্যন্ত পৌঁছায় কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, এখানে একটু গণতন্ত্র বিরাজ করছে, ভাগাভাগি হচ্ছে। বিশেষভাবে কোথায় যাচ্ছে, সেটা বলা যাবে না। দলীয় পরিচয়ে সড়কে চাঁদাবাজি হচ্ছে। ট্রাফিক হাইওয়ে পুলিশ, সিটি করপোরেশনে অনিয়ম হচ্ছে। বিআরটিএ তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, অনুমান করা যায়, বিআরটিএতে যে ঘুষ নেওয়া হয়, তা সংস্থাটির কর্মকর্তাদের একাংশ পেয়ে থাকেন। যেহেতু বিআরটিএকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না, সেহেতু এর অংশীদারত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, সড়কে বাণিজ্যিকভাবে চলাচলকারী প্রতিটি বাসের জন্য নিবন্ধন ও তিন ধরনের সনদ (ফিটনেস, ট্যাক্স টোকেন ও রুট পারমিট) বাধ্যতামূলক থাকলেও ৪০ দশমিক ৯ শতাংশ বাসকর্মী ও শ্রমিকদের মতে, সংশ্লিষ্ট কোম্পানির এক বা একাধিক বাসের নিবন্ধনসহ কোনো না কোনো সনদের ঘাটতি আছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions