শিরোনাম
২৩ বাংলাদেশি নাবিকের মুক্তি,মুক্তিপণ দিতে হলো ৫০ লাখ ডলার পুকুরপাড়ে বসে নারীদের গোসলের ভিডিও ধারণ করা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০ রাঙ্গামাটির সাজেকে রিসোর্ট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানির সংকট রাঙ্গামাটিতে বৈশাখের খরতাপে অস্থির জনজীবন,তাপমাত্রা ৩৮ডিগ্রী সেলসিয়াস খাগড়াছড়িতে ত্রিপুরাদের তৈবুংমা-অ-খুম বগনাই উৎসব উদযাপন খাগড়াছড়িতে মারমা সম্প্রদায়ের মাহা সাংগ্রাই-এ জলোৎসবে রঙ্গিন বান্দরবানে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় নববর্ষের উৎসব পালন বান্দরবানে আসামি ধরতে গিয়ে ছুরিকাঘাতে পুলিশ সদস্য আহত রাঙ্গামাটিতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপজেলা নির্বাচন নিয়ে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে

পিলখানা ট্র্যাজেডির ১৫ বছর,এখনো নিষ্পত্তি হয়নি একটি মামলাও

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৯০ দেখা হয়েছে

ডেস্ক রির্পোট:- ২০০৯ সালের ২৫শে ফেব্রুয়ারি। সকাল ৯টায় রাজধানীর পিলখানায় দরবার হলে শুরু হয় বার্ষিক দরবার। সারা দেশ থেকে আসা বিডিআর জওয়ান, জেসিও, এনসিওসহ ২ হাজার ৫৬০ জন সদস্যে তখন পরিপূর্ণ দরবার হল। সকাল ৯টা ২৬ মিনিটে তৎকালীন বিডিআর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদের বক্তব্য চলাকালে মঞ্চের বাঁ দিকের পেছন থেকে সিপাহি মইন ও সিপাহি কাজল অতর্কিত মঞ্চে প্রবেশ করেন। কাজল পেছনে থাকেন আর মইন মঞ্চে উঠে বিডিআর মহাপরিচালকের বুকে অস্ত্র তাক করেন। তখনো শাকিল আহমেদ সবাইকে বার বার শান্ত হওয়ার অনুরোধ জানান। প্রত্যেক কর্মকর্তাকে নিজ নিজ ইউনিট সামাল দেয়ার নির্দেশ দেন। ঠিক তখনই সিপাহিদের মধ্য থেকে ‘জাগো, জাগো’ বলে স্ল্লোগান শুরু হয়। এরপরই সিপাহি সেলিম রেজার নেতৃত্বে একটি দল সশস্ত্র অবস্থায় দরবার হলে ঢুকে পড়ে। পুরো পরিস্থিতি চলে যায় নিয়ন্ত্রণের বাইরে।

সেদিন কিছু বিপথগামী কিছু সদস্য দাবি আদায়ের নামে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সদর দপ্তর পিলখানায়। অগ্নিসংযোগ, লুটপাটের পাশাপাশি ৫৭ জন বিভিন্ন পর্যায়ের সেনা কর্মকর্তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। বিপথগামী বিদ্রোহীদের হাত থেকে রেহাই পায়নি শিশু ও নারীরাও। ৩৬ ঘণ্টার এ হত্যাযজ্ঞে ৫৭ সেনা কর্মকর্তা, একজন সৈনিক, দুই সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী, ৯ বিজিবি সদস্য ও পাঁচজন বেসামরিক ব্যক্তিসহ মোট ৭৪ জনকে হত্যা করা হয়। পিলখানায় আবিষ্কৃত হয় গণকবর। রক্তাক্ত ওই ঘটনার প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিডিআর) নাম পরিবর্তন করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) রাখা হয়। বর্বরোচিত ওই হত্যাকাণ্ডের ১৫ বছর পার হয়ে গেলেও এ ঘটনায় দায়ের হওয়া দুটি মামলার একটিও এখনো চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হয়নি। নিম্নআদালত থেকে হত্যা মামলার রায় উচ্চ আদালতের আপিল বিভাগে শুনানির জন্য অপেক্ষায় থাকলেও কার্যক্রমই শুরু হয়নি বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা মামলা।

সূত্র জানায়, ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬শে ফেব্রুয়ারির নৃশংস ওই ঘটনায় প্রথমে রাজধানীর লালবাগ থানায় হত্যা এবং বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা হয়। পরে এসব মামলা নিউমার্কেট থানার কাছে স্থানান্তর করা হয়। সিআইডি দীর্ঘ তদন্ত শেষে হত্যা মামলায় ২৩ বেসামরিক ব্যক্তিসহ প্রথমে ৮২৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দেয়। পরে সম্পূরক অভিযোগপত্রে আরও ২৬ জনের নাম অন্তর্ভুক্ত করায় আসামির সংখ্যা হয় ৮৫০। অপরদিকে বিস্ফোরক আইনে করা মামলায় ৮০৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয় সিআইডি। পরে আরও ২৬ জনকে অভিযুক্ত করে ৮৩৪ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেয়া হয়। এর প্রেক্ষিতে পুরান ঢাকার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান ২০১৩ সালের ৫ই নভেম্বর প্রথম হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড, ১৬০ জনকে যাবজ্জীবন, ২৫৬ জনকে ৩ বছর থেকে ১৭ বছর পর্যন্ত বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়। চারজন আসামি বিচার চলাকালে মারা যাওয়ায় মামলার দায় থেকে তারা অব্যাহতি পান।

এ ছাড়া ২৭৮ জনকে খালাস দেয়া হয়। রায়ে খালাসপ্রাপ্ত আসামিদের সাজা চেয়ে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। অন্যদিকে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা তাদের সাজা বাতিল চেয়ে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন। আপিল শুনানির জন্য সুপ্রিম কোর্টের বিশেষ ব্যবস্থায় সর্বমোট ৩৭ হাজার পৃষ্ঠার পেপারবুক প্রস্তুত করা হয়। এ জন্য মোট ১২ লাখ ৯৫ হাজার পৃষ্ঠার ৩৫ কপি ও অতিরিক্ত দুই কপি পেপারবুক প্রস্তুত করা হয়। বিচারিক আদালতের রায়ের পর ২০১৭ সালের ২৬ ও ২৭শে নভেম্বর তিন বিচারপতির সমন্বয়ে হাইকোর্টের বিশেষ বেঞ্চ রায় ঘোষণা করেন। এরপর ২০২০ সালের ৮ই জানুয়ারি পিলখানা হত্যা মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের রায়ে ১৩৯ আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়। যাবজ্জীবন সাজা দেয়া হয় ১৮৫ জনকে এবং বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয় ২২৮ জনকে। রায় প্রকাশের পর খালাস চেয়ে আপিল করেন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত এবং যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ২০৩ আসামি। আর হাইকোর্টে খালাস পাওয়া ৭৫ জন এবং সাজা কমে যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত ৮ আসামিসহ ৮৩ জনের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করে রাষ্ট্রপক্ষ। যা এখনো শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে হাইকোর্টের আপিল বিভাগে। তবে আপিল বিভাগে বিচারক সংকটের কারণে সর্বোচ্চ আদালতে মামলাটির শুনানি শুরু করা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে এটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন বলেন, সরকারপক্ষ থেকে আমরা আশা করছি যে ট্রায়াল কোর্ট যাদেরকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছে এবং যাদেরকে হাইকোর্ট কনফার্ম করেছে বা মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছে সেটা সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগেও বহাল থাকবে। কিন্তু এই মুহূর্তে পর্যাপ্ত বিচারক নেই। আশা করা যাচ্ছে বিচারক এলে আলাদা বেঞ্চ করতে হবে। কারণ এটি শুনানির জন্য একসঙ্গে শুনতেই পারবে না। তাছাড়া একটানা শুনেও যদি শুনানি করেন তাহলেও ২ মাস সময় লেগে যেতে পারে।

বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, এতজন আসামি তাদের উকিল কতোজন। একজন আসামিকে যদি ১০০ জন জেরা করে তাহলে কতো সময় লাগে? সময় তো আমাদের জন্য না, সময় লাগছে তাদের জন্যই।

এদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী আমিনুল ইসলাম বলেছেন, হত্যা মামলায় তিনশ’র মতো আসামির ১০ বছর বা তারও কম সাজা হয়েছে। তারা সাজা খেটে মুক্তির অপেক্ষায় আছে। কিন্তু বিস্ফোরক মামলাটি বিচারাধীন থাকায় এবং সেখানে তারা জামিন না পাওয়ার কারণে মুক্তি মিলছে না। তারা অমানবিকভাবে জেল খাটছেন। বর্তমানে যেভাবে মামলাটি চলছে এভাবে চলতে থাকলে এ মামলা কবে শেষ হবে তার কোনো সীমা নাই। তিনি বলেন, বিচারিক আদালতে আমরা বার বার দরখাস্ত দিয়ে দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য আবেদন করেছি, জামিন চেয়েছি, কিন্তু কিছুই পাচ্ছি না। আপিলগুলো এখনো শুনানির অপেক্ষায়। উচ্চ আদালতে না হয় বিচারক সংকট আছে কিন্তু নিম্ন আদালতে তো বিচারক সংকট নেই। কিন্তু নিম্ন আদালতের মামলা আজ ১৫ বছর ধরে ট্রায়াল চলছে। এই আইনজীবী বলেন, একই ঘটনায় একটি মামলা সর্বোচ্চ আদালতে বিচারের অপেক্ষায়। অথচ আরেকটি মামলা ঝুলেই আছে। এ বিষয়ে তো রাষ্ট্রপক্ষের একটা ব্যাখ্যা থাকা উচিত। প্রধান বিচারপতির কাছে আমাদের আকুল আবেদন, এ নিরীহ আসামিদের দিক বিবেচনা করে এবং উভয় দিক বিবেচনা করে এই মামলার শুনানি কার্যক্রম যেন দ্রুত নিষ্পত্তি করা হয়।

শোকাবহ দিবসের কর্মসূচি: পিলখানায় সংঘটিত বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডে শহীদ ব্যক্তিদের স্মরণে শাহাদতবার্ষিকী পালন করবে বিজিবি। দিনের কর্মসূচিতে রয়েছে, পিলখানাসহ বিজিবি’র সব রিজিয়ন, সেক্টর, প্রতিষ্ঠান ও ইউনিটের ব্যবস্থাপনায় বাদ ফজর খতমে কোরআন, বিজিবি’র সব মসজিদে এবং বিওপি পর্যায়ে শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় সকাল ৯টায় বনানীর সামরিক কবরস্থানে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, ৩ বাহিনীর প্রধান (সম্মিলিতভাবে), স্বরাষ্ট্র সচিব এবং বিজিবি মহাপরিচালক (একসঙ্গে) শহীদদের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। এ ছাড়া দিবসটি পালন উপলক্ষে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)’র সকল স্থাপনায় বিজিবি পতাকা অর্ধনমিত থাকবে এবং বিজিবি’র সকল সদস্য কালোব্যাজ পরিধান করবে। পিলখানাস্থ বিজিবি কেন্দ্রীয় মসজিদ, ঢাকা সেক্টর মসজিদ এবং বর্ডার গার্ড হাসপাতাল মসজিদে শহীদ ব্যক্তিবর্গের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। মানবজমিন

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions