শিরোনাম
শান্তিচুক্তির পর পার্বত্য চট্টগ্রামে কয়েক দশকের সংঘাতের অবসান হয়েছে– পার্বত্য সচিব বান্দরবানে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের গুলিতে নিহত সেনা সদস্যের দাফন সম্পন্ন চট্টগ্রামে ১৫ দিনে সড়কে ঝরল ৬০ প্রাণ,দুর্ঘটনার কারণ ও সুপারিশ ভারতের নির্বাচনের প্রাক্কালে বাংলাদেশে মন্দিরে হামলা! সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তর্ক-বিতর্ক পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড! ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিচ্ছেন আমানতকারীরা চট্টগ্রামে ৩ দশমিক ৭ মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত দাবদাহ ও জলবায়ুর বিপর্যয়ে দেশ ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের’ বিরুদ্ধে মামলায় যাচ্ছে মন্ত্রণালয় বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতিতে লুট ১৪ অস্ত্র ফেরত না দিলে শান্তি আলোচনা বন্ধ

বান্দরবানের সাঙ্গু নদী থেকে বালু তোলার হিড়িক

রিপোর্টার
  • আপডেট সময় শনিবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ১০০ দেখা হয়েছে

বান্দরবান:- বান্দরবানের রুমা উপজেলার সদর ইউনিয়নের সাঙ্গু নদীর তিনটি ঘাট এলাকা থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেখানে অভিযান চালিয়ে বালু উত্তোলনকারীদের জরিমানাও করা হয়েছে। তবে এরপরও থামছে না বালু উত্তোলন। এতে করে কৃষি উৎপাদন ঝুঁকিতে পড়েছে। বালু উত্তোলনের কারণে ঘোলা হয়ে যাওয়ায় তীরে বসবাসকারী মানুষেরা নদীর পানি ব্যবহার করতে পারছে না।

সদর ইউনিয়নের মুন লাই পাড়া ঘাট, রুমাচর পাড়া ঘাট ও পলিকা পাড়া ঘাট—এই তিনটি এলাকা থেকে মেশিন দিয়ে বালু তোলা হচ্ছে। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৩ দিন ধরে এই কার্যক্রম চলছে। যাঁরা বালু তুলছেন তাঁরা সবাই স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। ফলে স্থানীয়রা প্রতিবাদও করতে পারছেন না।

বালু উত্তোলনের জন্য ওই তিনটি স্থানেই ২৪ অশ্বশক্তি ক্ষমতাসম্পন্ন তিনটি মেশিন বসানো হয়েছে। ১০ ইঞ্চি পাইপ যুক্ত করে উত্তোলন করা হচ্ছে বালু। শ্রমিক ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সদর ইউনিয়নের মো. হাসান মুরাদ, মো. মতলব, রুমা সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. আবু বক্কর, মো. দস্তগীর, জুয়েল দাশ, মিল্টন মার্মা, প্রণব লাল চক্রবর্তী, এ কে মালেক ও শাকিলের নেতৃত্বে সিন্ডিকেট তিনটি বালু তোলার মেশিন বসিয়েছে।

অবৈধভাবে বালু তোলার অভিযোগ স্বীকার করেছেন ইউপি সদস্য আবু বক্কর। তিনি বলেন, উন্নয়ন কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। বালু উত্তোলন করার ব্যাপারে প্রশাসনের অনুমতি নেই।

এই সিন্ডিকেটের আরেক সদস্য হাসান মুরাদও বলেন, অনুমোদন নেই। সবাইকে ম্যানেজ করে ব্যবসা করছেন তাঁরা।

পানিসংকটে বাসিন্দারা শীতকালে সাঙ্গু নদীর পানি সাধারণত পরিষ্কার থাকে। এ সময় নদীর পানিপ্রবাহের খুব কাছে অনেকে গর্ত খোঁড়েন। নদীর থেকে চুইয়ে চুইয়ে ওই গর্তে যে পানি আসে, তা পান ও গৃহস্থালির নানান কাজে ব্যবহার করা হয়। তবে এবার বালু উত্তোলনের কারণে পানি ঘোলা হয়ে যাচ্ছে। ফলে এই পানি ব্যবহারে বিপাকে পড়তে হচ্ছে নদীপারের বাসিন্দাদের।

রুমাচর পাড়াবাসী উথোয়াই মং মার্মা বলেন, তাঁদের নিচপাড়ার ৭০ পরিবার এবং উপরপাড়ার ৩৫ পরিবার সম্পূর্ণ সাঙ্গু নদীর পানির ওপর নির্ভরশীল। তবে গত বছর থেকে শুষ্ক মৌসুমে নদী থেকে বালু তোলার কারণে পানি ঘোলা থাকছে। এই পানি ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

নৌযান চলাচল ও কৃষি উৎপাদন ব্যাহত
সম্প্রতি ওই এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, পানি কমে যাওয়ায় তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে প্রবাহ। এর ফলে পাড় ও প্রবাহের মধ্যে বেশ খানিকটা জায়গা ফাঁকা রয়েছে। এসব জায়গায় নদীপারের বাসিন্দারা সবজির চাষ করেছেন। তবে যেসব জায়গায় নদী থেকে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে, সেই সব জায়গায় কোনো চাষাবাদ করা যাচ্ছে না। বালু তুলে মূলত নদীর পাড়েই রাখা হচ্ছে। আবার বালু তোলার কারণে নদীও ভাঙছে। এতেও কৃষিজমি বিলীন হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে রুমাচর উপরপাড়ার বাসিন্দা চসানু মারমা বলেন, ‘নদীর তীরে এ বছর ৪০ শতক মটরশুঁটি, শিমজাতীয় সবজিসহ বিভিন্ন সবজি চাষ করেছি। মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করার কারণে নদীর তীর ভেঙে গিয়ে সবজিখেত নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।’

এ ছাড়া নৌযান চলাচলও ব্যাহত হচ্ছে। স্থানীয় বোটচালক মুইম্রা অং মার্মা বলেন, সাঙ্গু নদীর মাঝখানে বালু তোলার মেশিন বসানোর কারণে রুমা বাজার থেকে গ্যালেঙ্গ্যা বাজার, বলিপাড়া নৌবোট চলাচল ব্যাহত হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রুমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ মাহবুবুল হক বলেন, ‘গত সপ্তাহে অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ৫০ হাজার টাকা করে মোট ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছি।’

তবে এরপরও থামেনি বালু উত্তোলন। এই ব্যাপারে বান্দরবান পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ফখর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘রুমায় সাঙ্গু নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে পরিবেশ আইনে সর্বোচ্চ আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো
© All rights reserved © 2023 Chtnews24.net
Website Design By Kidarkar It solutions