বুধবার, ২৭ অক্টোবর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ০৮ আগস্ট, ২০২১, ০২:৫৩:৩০

চট্টগ্রামের পর্যটন স্পট : দেড় বছরে ক্ষতি ২০ কোটি টাকা

চট্টগ্রামের পর্যটন স্পট : দেড় বছরে ক্ষতি ২০ কোটি টাকা

ডেস্ক রির্পোট:- করোনায় প্রবল ধাক্কা লেগেছে চট্টগ্রামের পর্যটন স্পটসমূহে। দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকার কারণে প্রতিমাসে বিপুল অংকের টাকা গচ্চা দিচ্ছেন স্পটসমূহের মালিকরা। আয় নেই এক টাকাও। উল্টো মাসের পর মাস ধরে রক্ষণাবেক্ষণ খরচ, স্টাফদের বেতন, বিদ্যুৎ বিল, সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে ভাড়া পরিশোধসহ বিভিন্ন খরচ মেটাতে গুণতে হচ্ছে লাখ লাখ টাকা। পার্ক মালিক ও কর্তৃপক্ষ জানায়, চট্টগ্রামের পর্যটন স্পটগুলো গত প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ। এ কারণে বেকার হয়ে পড়েছে এ খাতের সঙ্গে সম্পৃক্ত ১০ সহস্রাধিক মানুষ। পর্যটন স্পটগুলো বন্ধ থাকায় চট্টগ্রামে এ খাতে প্রায় ২০ কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের। এ ক্ষতি প্রতিমাসেই গাণিতিক হারে বাড়ছে বলেও জানান তারা। চট্টগ্রামের অন্যতম পর্যটন স্পটগুলোর মধ্যে রয়েছে ফয়’সলেক কনকর্ড এমিউজমেন্ট পার্ক এবং সংলগ্ন চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা, পতেঙ্গা সি-বিচ, বহদ্দারহাট স্বাধীনতা কমপ্লেক্স, পতেঙ্গাস্থ বাংলাদেশ বাটার ফ্লাই পার্ক, বো বো ওয়ার্ল্ড, আগ্রাবাদ জাদুঘর, চট্টগ্রাম শিশু পার্ক ইত্যাদি। এসব পার্কের প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা আয় হতো। এ আয় দিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনভাতা প্রদান এবং রক্ষণাবেক্ষণসহ যাবতীয় খরচ নির্বাহ হতো। কিন্তু করোনায় বন্ধ থাকায় আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছে পর্যটন স্পটসমূহ। চাকরি হারিয়েছেন অনেকে। পার্ক সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, পর্যটকদের পদভারে মুখর থাকতো নগরীর পর্যটন স্থাপনাসমূহ। বিশেষ করে প্রতিবছর ঈদের সময়ে দর্শনার্থীদের ভিড়ে সরগরম থাকতো। ঈদের নামাজের পর থেকে ভিড় বাড়তো এবং সন্ধ্যা পর্যন্ত আনন্দে মেতে থাকতো সবাই। কিন্তু করোনার কারণে মাসের পর মাস বন্ধ রয়েছে পর্যটন স্থাপনাসমূহ। এতে ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছে পর্যটন স্থাপনাসমূহ পরিচালনাকারী মালিক ও প্রতিষ্ঠান। নগরীর পর্যটন খাতে করোনায় প্রথম ধাক্কা লাগে ২০২০ সালের মার্চে। ওই মাসের মাঝামাঝি সময়ে করোনায় বন্ধ হয়ে গেছে চট্টগ্রামের সকল পর্যটন স্পট। এতে হুমকির মুখে পড়ে এ শিল্প। ওই বছরের সেপ্টেম্বরের পর কয়েক মাস পর্যটন স্পটসমূহ খোলা থাকলেও দর্শনার্থীরা খুব একটা আসেননি। সর্বশেষ গত এপ্রিল থেকে পুনরায় বন্ধ করে দেওয়া হয় পর্যটন স্পটসমূহ। এতে বিপুল পরিমাণের আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছে স্পটসমূহের মালিকরা। ফয়’সলেক কনকর্ড এমিউজমেন্ট পার্কের ডেপুটি ম্যানেজার (মার্কেটিং) বিশ্বজিত ঘোষ বলেন, ‘করোনায় ব্যাপকভাবে আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছে কনকর্ড এমিউজমেন্ট পার্ক। স্টাফদের বেতন, রক্ষণাবেক্ষণ, বিদ্যুৎবিলসহ অন্যান্য খাতে প্রতিমাসে খরচ হচ্ছে প্রায় ৩৫ লাখ টাকা। করোনার শুরু থেকে এ অবস্থা চলে আসছে’। নগরীর বহদ্দারহাট বাস টার্মিনালের বিপরীতে অবস্থিত স্বাধীনতা কমপ্লক্স। এটির পরিচালক মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘করোনার আগে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এটি খোলা থাকতো। দর্শনার্থীদের পদভারে মুখর থাকতো। সাপ্তাহিক বন্ধ এবং বিশেষ দিবসগুলোতে দর্শনার্থীর সংখ্যা আরো বেড়ে যেত। বিশেষ করে দুই ঈদে সপ্তাহখানেক ধরে মানুষের ভিড় লেগে থাকতো। তাতে ব্যবসাও ভাল হতো। কিন্তু করোনার থাবায় ২০২০ সালের ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে এ কমপ্লেক্স। এর মধ্যে ২০২০ সালের শেষের কয়েক মাস এবং চলতি বছরের তিন মাস খোলা থাকলেও করোনার ভয়ে দর্শনার্থী খুব একটা আসেননি। এ কারণে আমরা ব্যাপকভাবে আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছি। কমপ্লেক্স বন্ধ থাকার কারণে প্রতি মাসে স্টাফ বেতন, বিদ্যুৎ বিল ও অন্যান্য খাত মিলে প্রায় তিন লাখ টাকা ক্ষতি গুণতে হচ্ছে’। বাংলাদেশ বাটারফ্লাই পার্ক’র সিনিয়র জিএম মোহাম্মদ আশরাফ আলী বলেন, ‘করোনার আগে নগরীর পতেঙ্গাস্থ হযরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর সংলগ্ন এলাকায় অবস্থিত বাংলাদেশ বাটারফ্লাই পার্কে নানা রকম প্রজাপতি দেখতে প্রতিদিন ৩০০ থেকে ৫০০ জন দর্শনার্থীর সমাগম ঘটতো। দর্শনার্থীর ফি দিয়ে পার্কটি ভালই চলছিল। কিন্তু করোনার কারণে ২০২০ সালের ২০ মার্চ থেকে এটি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর মাঝখানে কয়েকমাস খোলা থাকলেও দর্শনার্থী তেমন একটা আসেননি। পার্কটি দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকলেও স্টাফদের বেতনভাতা, বিদ্যুৎবিল, রক্ষণাবেক্ষণ খরচ বন্ধ থাকেনি। বর্তমানে প্রতিমাসে খরচ হচ্ছে ৮ লাখ টাকা’। পূর্বকোণ

এই বিভাগের আরও খবর

  গুরুসতাং পাহাড়: এক অদেখা সৌন্দর্যের হাতছানি

  আমরা আটজন ও খাগড়াছড়ি

  কক্সবাজারের সেন্টমার্টিনে আটকে পড়েছেন ৩০০ পর্যটক

  বান্দরবানের রহস্যঘেরা আলীর গুহা

  বান্দরবানে ভ্রমণের ক্লান্তি ভোলায় মুরুং ঝর্ণা

  সম্ভাবনাময় ঝরনা কেন্দ্রিক পর্যটন গড়ে তোলার জন্য প্রাকৃতিক ঝরনা রক্ষা করতে হবে

  করোনার মধ্যেও দেশীয় পর্যটকের সংখ্যা দুই কোটিতে পৌঁছেছে: বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

  দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার নান্দনিক পর্যটন স্পটের নাম বান্দরবান জেলা

  খাগড়াছড়ির পর্যটন অর্থনীতির বিকাশ,মাসে লেনদেন ১০ কোটি টাকা

  আজ ‘বিশ্ব পর্যটন দিবস’

  প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি রাঙ্গামাটির ন" কাটা ও মোপ্পাছড়া ঝর্ণা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?