chtnews24.com
যে পানীয়তে ঝরবে পেটের মেদ
Thursday, 12 Aug 2021 12:45 pm
Reporter :
chtnews24.com

chtnews24.com

লাইফস্টাইল ডেস্ক:- করোনাকালে অনেকেই ঘরে বসে কাজ করছেন, হচ্ছে না শরীরচর্চা। অনিয়ন্ত্রিত ভাবে বাড়ছে ওজন, ভুগতে হচ্ছে মেদ-ভুঁড়ির সমস্যায়। শরীরের মেদ কমাতে ডিটক্সিফিকেশন খুবই জরুরি। এজন্য ডিটক্স ওয়াটারের জুড়ি মেলা ভার। তাই শরীরকে সতেজ রাখতে ও মেদ কমাতে পান করতে পারেন বিশেষ এক পানীয়। ওজন কমানোর উপযোগী ডায়েটে বিশেষজ্ঞরা সবসময় ফল, সবজি এবং পানীয় অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দেন। যা ওজন কমাতে আরও সাহায্য করে। এমনই একটি পানীয় হলো শসার ডিটক্স ওয়াটার। এই জাদুকরী পানীয় ক্যালোরি ও পেটের মেদ কমাতে বিস্ময়কর কাজ করে। শসায় ভিটামিন সি এবং কে, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক, ফ্লেভোনয়েডস, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং ফসফরাসের মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুণ রয়েছে। জেনে নিন, শসার এই বিশেষ পানীয় খেলে শরীরের যেসব উপকার হয়- ওজন কমাতে অবশ্যই ডায়েটে শসা রাখার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা। শসায় কম ক্যালোরি এবং বেশি দ্রবণীয় ফাইবার থাকে, যা হাইড্রেশন এবং দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করে। শসা হজমশক্তি শক্তিশালী করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা দূর করে। শসায় একটি অনন্য যৌগ আছে। যা পাচনতন্ত্র এবং লিভারকে সহায়তা করে এবং আপনার শরীরকে ডিটক্সিফাই করে। শসা খেলে খিদে কমে যায়, যা আপনাকে অতিরিক্ত খাওয়া থেকে বিরত রাখে। শসার জলীয় গঠন বেশ কয়েকটি ভিটামিন, খনিজ এবং ইলেক্ট্রোলাইট সমৃদ্ধ যা সহজেই শোষিত হয়। শসার পানিতে ফাইটোস্ট্রোজেন এবং হজমকারী এনজাইম থাকে, যা অন্ত্রের উপকার করে। শসা একটি ক্লাসিক কুলিং ফুড। যা গরমের দিনে শরীরে জলের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। এক সমীক্ষা অনুসারে, এক সপ্তাহ ধরে শসার পানীয় পান করলে সপ্তাহে প্রায় ২-৩ কেজি ওজন কমানো সম্ভব। কীভাবে তৈরি করবেন শসার পানীয়? শসা ধুয়ে খোসা ছাড়িয়ে পাতলা টুকরো করে কেটে নিন। টুকরোগুলো বিশুদ্ধ পানিভর্তি একটি জার বা কাঁচের বোতলে রাখুন। শসার পানিতে কিছু লেবুর টুকরো যোগ করুন। লেবু ও শসার এই পানি সারারাত ধরে ফ্রিজে রেখে দিন। এরপর সারাদিন অল্প করে এই পানি পান করুন। শসার এই পানীয় নিয়মিত পান করলে পেটের চর্বি দ্রুত কমতে শুরু করবে। এটি একটি ডিটক্স পানীয় যা শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেয়। সেই সাথে শরীরের পানিশূন্যতা দূর করে। তবে, পেটের মেদ কমাতে শসার এই ডিটক্স ওয়াটার পান করার পাশাপাশি নিয়মিত শরীরচর্চাও করতে হবে।