মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ০৫ জুলাই, ২০২১, ০৬:২৮:২৯

অক্সিজেন সংকটে পাবনা হাসপাতালে ৪ করোনা রোগীর মৃত্যু

অক্সিজেন সংকটে পাবনা হাসপাতালে ৪ করোনা রোগীর মৃত্যু

ডেস্ক রির্পোট:-অক্সিজেন সংকটে পাবনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৪ করোনা রোগী মারা গেছেন বলে অভিযোগ করেছেন স্বজনরা। রবিবার (৪ জুলাই) দুপুর ১২ টা থেকে সোমবার (৫ জুলাই) দুপুর ১২ টার মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। পাবনা জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত সহকারী পরিচালক ডা. সালেহ মোহাম্মদ আলী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নিহতরা হলেন, সদর উপজেলার চরতারাপুর ইউনিয়নের মৃত আলহাজ্ব দায়েন বিশ্বাসের স্ত্রী রাশিদা বেগম (৭০), ঈশ্বরদীর চরকুরুলিয়া গ্রামের মৃত কোরবান সরকারের স্ত্রী রোকেয়া খাতুন (৭০), পাবনার শহর এলাকার নূরে আলম (৬৭), নাজমুল ইসলাম (৭২)। পাবনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দায়িত্বে থাকা একজন সিনিয়র চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সংক্রমণ বাড়তে থাকায় পাবনা হাসপাতালে করোনা রোগীর চাপ ব্যপক ভাবে বাড়ছে। হাসপাতালে এসেও রোগীদের বাইরে থেকে অক্সিজেন সংগ্রহ করতে হচ্ছে। তাতেও সংকট কাটছে না। এখন কোন রোগীর থেকে কেড়ে নিয়ে তো অন্যকে দেয়া যায় না। ঘাটতির কারণে ঠিকমত অক্সিজেন সরবরাহ করতে না পারায় রোগীরা মারা গেছেন। নিহত রাশিদা বেগমের বড় ছেলে মো: আলমগীর হোসাইন বলেন, আমার আম্মাকে রবিবার দুপুরে ঠান্ডা জ্বর শ্বাসকষ্ট নিয়ে সদরের করোনা ইউনিটে ভর্তি করেছিলাম। শুরু থেকেই অক্সিজেন সংকট ছিল, বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। ১০ বার বলার পরও তারা আমার মায়ের জন্য একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার দেয়নি। পরিশেষে অক্সিজেন সংকট নিয়েই মায়ের মত্যু হলো। তিনি জানান, এ সময় হাসপাতালের প্রতিটি রোগী প্রচণ্ড কষ্ট পাচ্ছিল। অক্সিজেনের অভাবে তার সামনে তিনজন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রোগীর ভাই মামুন হোসেন জানান, হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যবস্থা নেই বললেই চলে। অনেক ভাল রোগীকে করোনা ইউনিটে ভর্তি করে রেখেছে। আমার বোনকে ১২ দিন আগে হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছি। পরের দিন করোনা পরীক্ষার স্যাম্পুল দিলে আজ ১১ দিন অতিবাহিত হলেও কোন ফলাফল পাচ্ছি না। যার কারণে আমাদের রোগী এখন সুস্থ হলেও এই ওয়ার্ডে ভর্তি করে রেখেছে। অক্সিজেন সংকটে মত্যুর অভিযোগ নিয়ে পাবনা জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত সহকারী পরিচালক ডা: সালেহ মোহাম্মদ আলী বলেন, করোনা আক্রান্ত রোগীদের অনেকেই শেষ সময়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসে। আসলে শেষ সময়ে একজন করোনা রোগী হাসপাতালে আসলে কিছু করার থাকে না। যারা মারা গেছে তাদের বেশিরভাগই করোনা আক্রান্ত হয়ে শেষ সময়ে হাসপাতালে এসেছিল। তিনি জানান, জেনারেল হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন চালু না থাকায় অক্সিজেনের ব্যাপক সংকট দেখা দিচ্ছে। মেডিফোল্ড সিস্টেমে বড় বোতলে অক্সিজেন সরবরাহ শুরু হয়েছে। তবে, রোগীর চাপের সাথে পাল্লা দিতে আরো অক্সিজেন প্রয়োজন।

এই বিভাগের আরও খবর

  খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানে পাহাড়ি স্কুলছাত্রীদের ওপর যৌন নিপীড়নের নিন্দা ও প্রতিবাদ

  দেশে ক্যান্সার মহামারি ঠেকাতে শক্তিশালী তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন জরুরি: ডা. বিশাল রাও

  খাগড়াছড়ির লক্ষীছড়িতে পিসিপি ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ

  ফ্রিল্যান্সার আসিফুলের মাসিক আয় ৩ লাখ টাকা

  বাজারে দেড় হাজার কোটি টাকার নকল ওষুধ

  বাসর ঘরে থাকা নিয়ে মনমালিন্য, অভিমানে বরের ‘আত্মহত্যা’

  করোনা মহামারীতে বাল্যবিয়ের হিড়িক

  যাত্রীবাহী সিএনজিসহ ডোবায় পড়লো ট্রাক, নিহত ৪

  চট্টগ্রামে ভ্রূণ হত্যার অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

  মানবসেবায় উজ্জ্বল সিআরপি

  ৯ মাসের সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করলেন মা!

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?