বুধবার, ২৭ অক্টোবর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ০৩:৫২:২৮

'দেশের জন্য সাংবাদিকদের ঐক্য জরুরি'

'দেশের জন্য সাংবাদিকদের ঐক্য জরুরি'

ডেস্ক রির্পোট:- জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া মিলনায়তনে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া মিলনায়তনে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। ছবি: আজকের পত্রিকা দেশের জন্য সাংবাদিকদের ঐক্য অত্যন্ত জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ মানুষের সামনে তুলে ধরে সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বরেণ্য সাংবাদিক আতাউস সামাদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণসভায় তিনি এসব কথা বলেন। আজ রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া মিলনায়তনে স্মরণসভার আয়োজন করে আতাউস সামাদ স্মৃতি পরিষদ। সভায় বক্তারা তাঁর কর্মজীবনের কৃতি স্মরণ করেন। একই সঙ্গে সভায় বিশিষ্ট সাংবাদিক এ বি এম রফিকুর রহমানকে আতাউস সামাদ স্মৃতি পুরস্কার প্রদান করা হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, 'দেশের জন্য সাংবাদিকদের ঐক্য অত্যন্ত জরুরী। কারণ বর্তমানে যে মতামত ব্যক্ত করা একেবারে অপরিহার্য, তা সাংবাদিকেরাই করতে পারেন। সংবাদ এখন মালিকের কাছে গেলে বদলে যায়। তাই সাংবাদিকদের স্বাধীনতা রক্ষা করার জন্য ঐক্য দরকার। সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে যে হেয় আচরণ করা হয়েছে, তাঁর বিরুদ্ধে যেমন ঐক্য তৈরি হয়েছে, এটা ধরে রাখতে হবে।' সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, 'বর্তমানে সবাই সূর্যমুখীর মতো হয়ে গেছে। শুধু ক্ষমতার দিকে তাকিয়ে থাকে। নিজেকে ক্ষমতাবান করতে চায়। এই মহামারিতে লাখ লাখ মানুষ গরিব হয়েছে। বৈষম্য বেড়েছে সমাজে। আজ কেবল সভ্যতার সংকট নয়, আজ এই পৃথিবীতে মানুষের অস্তিত্বের সংকট তৈরি হয়েছে। এই করোনা, এই তালেবান হচ্ছে পুঁজিবাদ ও ফ্যাসিবাদের ফলাফল।' আতাউস সামাদের স্মরণে তিনি বলেন, 'রফিকুর রহমানের ছবি আমরা দেখেছি, কিন্তু সেই ছবির পেছনে যিনি ছিলেন, সেই আতাউস সামাদের কথা আজ আরও ভালোভাবে জানলাম। সবাই তাঁকে শিক্ষক হিসেবে পেয়েছেন আর আমি তাঁকে ছাত্র হিসেবে পেয়েছি। তাঁকে গণ-অভ্যুত্থানের সময় দেখেছি, স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে দেখেছি। কোনটা খবর, উনি সেটা খুব ভালো বুঝতেন।' পুরস্কার গ্রহণের পর এ বি এম রফিকুর রহমান বলেন, 'আমি রয়টার্সে চল্লিশ বছর ধরে যে কাজটা করি, সেটা সামাদ ভাইয়ের অনুরোধেই শুরু করেছিলাম। তিনি আমার জীবনে অতি গুরুত্বপূর্ণ একজন ব্যক্তি। প্রতিদিনই আমি তাঁকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি।' জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রিয়াজ উদ্দীন আহমেদ, কাদের গণি চৌধুরী, বাংলাদেশ সাংবাদিক ফেডারেশনের সভাপতি রুহুল আমিন খোকন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, আমাদের নতুন সময় পত্রিকার সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খান, এটিএন নিউজের সিনিয়র সাংবাদিক মুন্নি সাহা, আজকের পত্রিকার সম্পাদক অধ্যাপক গোলাম রহমান, মোস্তফা কামাল মজুমদার, কবি হেলাল আহমেদ, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি এ কে এম মহসিন প্রমুখ।

এই বিভাগের আরও খবর

  শর্ত ভেঙে সম্প্রচার বন্ধ করেছে ক্যাবল অপারেটররা : তথ্যমন্ত্রী

  জনকণ্ঠ থেকে অব্যাহতি চেয়েছেন তোয়াব খান

  সরকার কোনো বিদেশি চ্যানেল বন্ধ করেনি : তথ্যমন্ত্রী

  বিদেশি সব টেলিভিশন চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধ

  নয় মাসে ১৫৪ সাংবাদিক নির্যাতনের শিকার,‘ক্রসফায়ারে’ মারা গেছেন ৪৮ জন

  বিজ্ঞাপনমুক্ত না হলে দেশে চলবে না বিদেশি চ্যানেল

  নিবন্ধনহীন নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু

  বিএফইউজের নির্বাচন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট

  সাংবাদিক সংগঠনসমুহকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে মন্ত্রীপরিষদে আবেদন

  'দেশের জন্য সাংবাদিকদের ঐক্য জরুরি'

  ‘ব্রিফকেসবন্দি’ ২১০টি পত্রিকা বন্ধে জেলা প্রশাসনের কাছে চিঠি

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?