শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট, ২০২১, ০৩:৫৫:০৩

কাজ শেষ না করেই পালিয়েছে ঠিকাদার

কাজ শেষ না করেই পালিয়েছে ঠিকাদার

ডেস্ক রির্পোট:- কাজ শেষ না করেই পালিয়েছে ঠিকাদার। এতে মুখ থুবড়ে পড়ে আছে নগরীর অতি ব্যস্ত পাঁচটি সড়কের সংস্কার ও উন্নয়ন কার্যক্রম। রাস্তাগুলোর বেহাল দশায় নাগরিক দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। নতুন করে টেন্ডার আহ্বান এবং ঠিকাদার নিয়োগ করে অসম্পূর্ণ কাজ সম্পন্ন করার উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, নগরীর বৌদ্ধ মন্দির সড়ক, জিইসি মোডের মেট্রোপলিটন হাসপাতাল থেকে প্রবর্তক মোড় পর্যন্ত ও আর নিজাম রোড, সিআরবি সড়ক, চট্টেশ্বরী মোড় থেকে গোলপাহাড় মোড় পর্যন্ত মেহেদিবাগ সড়ক এবং রহমতগঞ্জের আবদুস সাত্তার সড়কের উন্নয়ন ও সংস্কারের জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করেছিল চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। জাইকার অর্থায়নে পরিচালিত পাঁচটি সড়ক উন্নয়নে গৃহিত এই প্রকল্পটির ৯ কোটি ৩৫ লাখ টাকার কাজ পেয়েছিল আবদুস সালাম-ডিএইচ ইঞ্জিনিয়ারিং জেভি লিমিটেড নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ২০২০ সালের ১২ এপ্রিল টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে দেয়া হয়েছিল কার্যাদেশ। গত বছরের ২৫ ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার কথা ছিল। সে লক্ষ্যে কাজ শুরুও করেছিল ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। বৌদ্ধ মন্দির সড়কের কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন করে তারা। আর বাকি সব রাস্তার কাজ কোথাও আংশিক, কোথাওবা সামান্য কাটাকুটি করে কাজ বন্ধ করে পালিয়ে যায় ঠিকাদার। ফলে ব্যস্ততম সড়কগুলোর কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় নাগরিক দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি বিলের বেশ বড় একটি অংকও তুলে নিয়ে গেছে বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়। চট্টেশ্বরী মোড় থেকে গোলপাহাড় মোড় পর্যন্ত এক কিলোমিটারের মতো রাস্তাটিতে দুইটি হাসপাতাল রয়েছে। রয়েছে স্কুল। রাস্তাটির দুই পাশে শত শত বাসা বাড়ি এবং এ্যাপার্টমেন্টে হাজার হাজার মানুষের বসবাস। অথচ রাস্তাটির খুব সামান্য অংশে কিছু কাজ করা হয়েছে। রাস্তাটির একাংশে পিচ ঢালাই দেয়া হয়েছে। রাস্তাটির বেশির ভাগ অংশ জুড়ে বেহাল অবস্থা বিরাজ করছে। পুরো রাস্তা খানাখন্দকে ভরা এবং কাটাকুটি করে একাকার করে রাখা রয়েছে। রাস্তাটি দিয়ে পথচারী চলাচল তো দূরের কথা, গাড়ি চলাচলও অতি কঠিন হয়ে উঠেছে। স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, নগরীর এত গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক দীর্ঘদিন ধরে চরম নাজুক অবস্থায় পড়ে রয়েছে। দুই মাসেরও বেশি সময় রাস্তাটি চরম বেহাল অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এই প্রকল্পের অন্যান্য অসম্পুর্ন রাস্তাগুলোর অবস্থাও শোচনীয়। ঠিকাদার পালিয়ে যাওয়ার পর চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নতুন করে প্রকল্পটির কাজে হাত দেয়। এরমধ্যে সিআরবি সড়কের কাজ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ নিজেরা করবে বলায় রাস্তাটি বাদ দেয়া হয় সিটি কর্পোরেশনের প্রকল্প থেকে। বৌদ্ধ মন্দিরের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি তিনটি সড়কের উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করার জন্য একটি প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে। এতে ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে সাত কোটি টাকা। প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী ফারজানা মুক্তা। তিনি বলেন, অনুমোদন পাওয়ার সাথে সাথেই নতুন করে টেন্ডার আহ্বান করে ঠিকাদার নিয়োগ দিয়ে কাজ সম্পন্ন করা হবে। প্রকল্পটির টেন্ডার প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করে রাস্তাগুলো জরুরিভিত্তিতে সংস্কার করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।আজাদী

এই বিভাগের আরও খবর

  চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় সাদা বাঘের ঘরে জন্মেছে নতুন শাবক

  সবুজ চাদরে ছেয়ে গেছে গুমাই বিল

  কর্ণফুলীতে সাম্পান মাঝিদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

  চমেক হাসপাতাল ও বিআরটিএ’র ২৮ দালাল আটক

  সীতাকুণ্ডের পাহাড়ে জ্বলে নিঃশেষ প্রাকৃতিক গ্যাস!

  চমেকে চালু হল “ওয়ান স্টপ ইমারজেন্সি কেয়ার”মিলবে সব ধরনের জরুরী সেবা

  আজ চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতাল বন্ধের এক বছর

  চট্টগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ : ভোটের প্রস্তুতি ইসি’র

  প্রেস ক্লাব ও সাংবাদিক ইউনিয়নের উদ্যোগে ৪ সাংবাদিকের শোকসভা

  চট্টগ্রাম মেডিকেলে সরকারি দলের নেতার মদদপুষ্ট চক্রের বেশি দামে খাবার সরবরাহ,মামলার সুপারিশ দুদকের

  ‘পুলিশ’ লেখা গাড়িতে ভুয়া এএসপিসহ আটক ৩

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?