মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ০৪:২৬:৩৩

অর্ধনগ্ন ছবি পোস্ট করে বিতর্কে অভিনেত্রী

অর্ধনগ্ন ছবি পোস্ট করে বিতর্কে অভিনেত্রী

বিনোদন ডেস্ক:- বলিউডের অভিনেত্রী গহন বশিষ্ঠ। পর্ন ছবি তৈরি এবং ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিলেন তিনি। সম্প্রতি কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন গহনা। নতুন ছবির শুটিং শুরু করে দিয়েছেন তিনি। আর সেই শুটিং ফ্লোর থেকে অর্ধনগ্ন ছবি পোস্ট করলেন অভিনেত্রী। পর্নকাণ্ডে রাজ কুন্দ্রা গ্রেপ্তার হওয়ার পর একমাত্র রাজের সমর্থনে কথা বলেছিলেন অভিনেত্রী গহনা বশিষ্ঠ। নানা সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাডাল্ট ছবি তৈরি স্বপক্ষে নানা যুক্তিও রাখতে দেখা গিয়েছিল গহনাকে। তবে এবার আর কোনো বক্তব্য নয়। বরং সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলেন এক অর্ধনগ্ন ছবি! শেয়ার করে গহনা লিখলেন, ‘আমি একজন প্রাপ্তবয়স্ক!’ গহনা তার ইনস্টাগ্রামে যে ছবি পোস্ট করেছেন, তাতে দেখা গেছে, খোলা পিঠে, শুধুমাত্র শরীরের সামনের অংশে সাদা চাদর ঢাকা দিয়ে বসে আছেন। ছবি পোস্ট করে তিনি আরও লিখলেন, ‘এই ছবি শুট করার সময় আমার আশপাশে ২০ জনের মতো লোক ছিল। আমি নেশায় মত্ত ছিলাস না, কোনো পানীয়ও পান করিনি। সুস্থ থাকা অবস্থাতেই শুট সম্পূর্ণ করেছি। আমার বয়স ১৮- এর বেশি। আমি প্রাপ্ত বয়স্ক। দয়া করে আমার প্রযোজকের বিরুদ্ধে মামলা করবেন না!’ এর আগে ইনস্টাগ্রামে নগ্ন হয়ে লাইভে এসেছিলেন গহনা। সেই লাইভে এই অভিনেত্রীকে দেখা গিয়েছিল বিছানায় শুয়ে আছেন তিনি। নিজেই জানিয়েছিলেন, তার শরীরে একটুরোও কাপড় নেই। গহনার কথায়, আমি যখন পোশাক পরে থাকি না, তখন কেউ তো আমাকে পর্ন ছবির নায়িকা বলে না, কিন্তু যখন পোশাক পরে ভিডিও দিই, তখনই শুনতে হয় আমি পর্ন ছবির নায়িকা। সমাজটা এত দু’মুখো কেন? রাজ কুন্দ্রার সমর্থনে গহনা এর আগেও ইনস্টাগ্রামে লাইভ করে নানা মন্তব্য করেছেন। ‘রাজ কুন্দ্রার গ্রেপ্তারি সম্পূর্ণ বেআইনি। পুলিশ রাজকে হেফাজতে রাখল। ওর থেকে মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, সিডি, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ডিটেল সব নিয়ে নিল। তদন্তের জন্য তো যথেষ্ঠ তথ্য প্রমাণ পুলিশের হাতে রয়েছে। তাহলে অযথা রাজ কুন্দ্রাকে কেন আটকে রাখা হচ্ছে? চার্জশিটও তো ফাইল করা হয়ে গিয়েছে।’ এমনকি, গহনা স্পষ্টই বলেছিলেন কীভাবে রাজের সঙ্গে পরিচয় হয়। রাজ তার সঙ্গে নাকি কোনো অশ্লীল আচরণ করেননি!

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?