শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট, ২০২১, ০৫:১৯:৩৯

খুলবে দোকান, চলবে গণপরিবহন,তবে টিকা গ্রহণ ছাড়া কর্মস্থলে আসতে পারবেনা

খুলবে দোকান, চলবে গণপরিবহন,তবে টিকা গ্রহণ ছাড়া কর্মস্থলে আসতে পারবেনা

ডেস্ক রির্পোট:- আগামী এক সপ্তাহ সারা দেশে ব্যাপকভিত্তিক টিকা দান কার্যক্রম পরিচালনা করবে সরকার। এরপরই আগামী ১১ আগস্ট থেকে সব দোকানপাট, শপিংমল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও সীমিত পরিসরে গণপরিবহন খুলে দেয়া হবে। তবে টিকা গ্রহণ ছাড়া কেউ কর্মস্থলে আসতে পারবেন না। মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সভা শেষে এসব কথা জানিয়েছেন মন্ত্রিসভার জ্যেষ্ঠ সদস্য মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, অতিমারি করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে চলমান কঠোর বিধিনিষেধের মেয়াদ আরেক দফা বাড়িয়েছে সরকার। বর্ধিত এ লকডাউন চলবে আগামী ১০ আগস্ট পর্যন্ত। মোজাম্মেল হক বলেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আগামী এক সপ্তাহে এক কোটির বেশি মানুষকে টিকা দেবে। প্রত্যেক ওয়ার্ডে ন্যূনতম দুটি করে কেন্দ্রে টিকা দেয়া হবে। যার ফলে আশা করছি, কষ্ট করে ভ্যাকসিন নেয়ার পেছনে দৌড়াতে হবে না। প্রায় ১৪ হাজার কেন্দ্রে একসঙ্গে সপ্তাহব্যাপী ভ্যাকসিন দেয়া হবে। সেখানে বয়স্কদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। শ্রমজীবী মানুষ, দোকানদার, বাসের হেলপারদের ভ্যাকসিন দেয়া হবে। ভ্যাকসিন না নিয়ে কেউ কর্মস্থলে আসতে পারবেন না। যার যার এলাকা থেকে ভ্যাকসিন নিতে হবে।’ মন্ত্রী বলেন, ‘কেউ ভ্যাকসিন নিয়েছে কিনা, সেই তথ্য ওয়েবসাইটে চলে যাবে, কেউ মিথ্যা বলতে পারবে না। দোকানপাট খোলার আগে ৭, ৮ ও ৯ আগস্ট তিন দিন সুযোগ রাখলাম। এই সময়ের মধ্যে যাতে ভ্যাকসিন নিতে পারে সেই সুযোগ দিচ্ছি। ১১ আগস্ট থেকে যাতে দোকানপাট খুলতে পারে, সভা সেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।’ তিনি বলেন, ‘করোনা ভাইরাস কত দিন চলবে কেউ জানে না। যত শিগগির সম্ভব নিজেরা বা অন্য রাষ্ট্রের সঙ্গে চুক্তি করে যাতে ভ্যাকসিন তৈরি করতে পারি। সেটা হলে সবাইকে ভ্যাকসিন দিয়ে দেবো। চেষ্টা করবো যাতে ৪-৫ মাসের মধ্যে ভ্যাকসিন দেশে উৎপাদন করা যায়। আইসিইউ-এর অভাব রয়েছে। বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজের কনভেনশন সেন্টারে আগামী শনিবার থেকে ডেডিকেটেড আইসিইউ কেন্দ্র স্থাপন করা হবে।’ মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আরও বলেন, ‘কিছু রফতানি শিল্প খুলে দেয়া হয়েছে, নইলে বিশ্ব বাজার হারাতে হবে। অর্থনীতিকে সচল রাখতে এগুলো খুলে দেয়া হয়েছে। করোনার সংক্রমণ কমাতে সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ রেখে গত ১ থেকে ১৪ জুলাই সারা দেশে কঠোর লকডাউন কার্যকর করে সরকার। এরপর কোরবানির ঈদ ঘিরে ১৫-২২ জুলাই ৮ দিনের জন্য বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়। ২৩ জুলাই থেকে ফের ১৪ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হয়। যার মেয়াদ শেষ হবে ৫ আগস্ট। এরইমধ্যে আরও ৫ দিন লকডাউন বাড়িয়ে ১০ আগস্ট পর্যন্ত করা হয়েছে। শেষ ধাপের বিধিনিষেধের মধ্যে সব ধরনের শিল্প কলকারখানা বন্ধ রাখা হলেও গত রবিবার থেকে রফতানিমুখী শিল্প কারখানাগুলো খুলে দেয়া হয়। হঠাৎ এসব কারখানা খোলার ঘোষণায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঢাকামুখী শ্রমিকদের ঢল নামে।

এই বিভাগের আরও খবর

  চাকরি হারানো ব্যাংকারদের কাজে ফেরানোর নির্দেশ

  টাকা দিয়ে সরকার থেকে তথ্য নেওয়ার বিধান রেখে বিল পাস

  স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিবের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা

  ফেসবুক ইউটিউব মনিটরিং করতে মাঠ পুলিশকে নির্দেশ আইজিপির

  স্কুল শিক্ষক হত্যা: চারজনের ফাঁসি, নয়জনের যাবজ্জীবন

  মাথাপিছু বৈদেশিক ঋণ ২৪ হাজার ৮৯০ টাকা: অর্থমন্ত্রী

  ‘জরুরি সেবা দিতে হাসপাতাল অসম্মতি জানাতে পারবে না’

  নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল,আইনের ২৭ ধারা উপেক্ষা

  সরকারের নজর এখন চাকরিজীবীদের সম্পদের দিকে

  বিচারকের এমন কর্মকাণ্ড লজ্জাজনক

  নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমাকে লঘুদণ্ড দিয়েছে সরকার

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?