মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১, ০৭:২৪:০৯

নিরুপায় হয়ে দেশে ফিরে ৪ লাখ বাংলাদেশি

নিরুপায় হয়ে দেশে ফিরে ৪ লাখ বাংলাদেশি

ডেস্ক রির্পোট:- মহামারি করোনা ভাইরাসের মধ্যে ৪ লাখ বাংলাদেশি শ্রমিককে জোর করে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। তাদের মধ্যে সাড়ে ৩ লাখ পুরুষ ও ৫০ হাজার নারী রয়েছেন। দেশে ফেরত আসা প্রবাসী শ্রমিকদের ৭০ শতাংশের দেশে কাজ খুঁজে পেতে কষ্ট হয়েছে। তারা অনেকেই ঋণগ্রস্ত। ২০২১ সালের বিশ্ব মানবপাচার প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়। বুধবার (২৮ জুলাই) সকালে বিশ্ব মানবপাচার প্রতিরোধ দিবস ‘ওয়ার্ল্ড ডে এগেনস্ট ট্রাফিকিং ইন পারসন ২০২১’ সামনে রেখে ওয়েবিনারের আয়োজন করে আইওএম। এতে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন, বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী মিয়া সেপ্পো, বাংলাদেশের আইওএমের প্রধান গিওরগি গিগাওরিসহ বিভিন্ন দূতাবাসের কূটনৈতিক, জাতিসংঘ ও সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য দেন বাংলাদেশ জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী মিয়া সেপ্পো। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইনসিডিং বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক এ কে এম মাসুদ আলী। অনুষ্ঠানে একটি ভিডিও চিত্র দেখানো হয়। মূল প্রবন্ধে করোনাকালীন মানবপাচার নিয়ে বর্তমান চিত্র তুলে ধরে বলা হয়, ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে করোনা মহামারির সময়ে সাড়ে ৩ লাখ পুরুষ ও ৫০ হাজার নারী রয়েছেন। দেশে ফেরত আসা প্রবাসী শ্রমিকদের ৭০ শতাংশের দেশে কাজ খুঁজে পেতে কষ্ট হয়েছে। তারা অনেকেই ঋণে জর্জরিত। সাধারণত তিনটি রুটে বাংলাদেশিরা পাচার হয়ে থাকেন। রুটগুলো হলো- বাংলাদেশ-তুরস্ক-লিবিয়া-ইউরোপ, বাংলাদেশ-ভারত-শ্রীলঙ্কা-লিবিয়া-ইউরোপ এবং বাংলাদেশ-সংযুক্ত আরব আমিরাত-জর্ডান-লিবিয়া-ইউরোপ। সাম্প্রতিক সময়ে এসব রুটে যাওয়া বাংলাদেশিদের অনেকেই ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। করোনাকালীন মানবপাচারের ঝুঁকিও বহুগুণ বেড়ে গেছে। করোনায় জীবিকার সংকটে বেড়েছে প্রবাসী নারী-শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতন এবং বাল্যবিবাহ।

এই বিভাগের আরও খবর

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?