রবিবার, ২৮ নভেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২১, ০৪:০৭:৫৩

খাগড়াছড়ির বাজারে আদার ঝাঁজ নেই

খাগড়াছড়ির বাজারে আদার ঝাঁজ নেই

খাগড়াছড়ি:- খাগড়াছড়িতে আদাচাষিরা খেত থেকে আদা তুলে বাজারে আনলেও কাঙ্ক্ষীত দাম মিলছে না। ফলে তাঁরা এ বছর লোকসানের আশঙ্কা করছেন। খাগড়াছড়ির মানিকছড়িতে গত বছর প্রতি মণ আদা বিক্রি হয় ১ হাজার ৮০০ থেকে ২ হাজার টাকায়। এবার তা নেমে এসেছে ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৪০০ টাকায়। বাজারদর আশানুরূপ না হওয়ায় চাষিরা পড়েছেন বিপাকে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর উপজেলায় ২৭০ হেক্টর জমিতে আদা ও ৩৬০ হেক্টরে হলুদ চাষা হয়েছে। বাজারদর আশানুরূপ না হওয়ায় চাষিরা পড়েছেন বিপাকে। গত শনিবার উপজেলার বড় বাজার (সাপ্তাহিক হাট) মানিকছড়ি রাজবাজারে সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রান্তিক কৃষকেরা বাজারে আদা নিয়ে এসেছেন। সমতলের পাইকারেরা প্রতি মণ ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৪০০ টাকার ওপরে কিনছেন না। এতে কৃষকেরা লোকসানের আশঙ্কা করছেন। প্রান্তিক কৃষক মো. আবুল কাশেম বলেন, ‘আমি বস্তায় আদা চাষ করেছি। বাজার ভালো হলে লাভবান হওয়ার স্বপ্ন দেখছিলাম। এখন দেখছি বাজারধস। প্রতি মণ ১ হাজার ৬০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকায় বিক্রি করলে লাভ থাকবে। না হলে কেউ ভবিষ্যতে আদা চাষ করতে চাইবেন না।’ কৃষি ব্যাংক ব্যবস্থাপক দিলীপ কুমার দেওয়ান জানান, এ অঞ্চলের প্রান্তিক কৃষকেরা মসলাজাতীয় ফসলের ওপর স্বল্প সুদে (৪ শতাংশ) ঋণ নিয়ে আদা-হলুদ চাষ করেন। বাজারদর ভালো হলে কৃষকের আগ্রহ বাড়ে। না হলে তাঁরা এসব ফসল চাষে আগ্রহ হারান। উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সুমন গুপ্ত জানান, এ বছর উপজেলায় মসলাজাতীয় ফসল আদা ও হলুদ ৬৩০ হেক্টরে চাষা হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসিনুর রহমান বলেন, ‘মসলাজাতীয় ফসল আদা-হলুদ চাষাবাদে কৃষকেরা ব্যাংক থেকে কম সুদে ঋণ নিয়ে চাষাবাদ করেন। বাজারদর ভালো হলে কৃষকদের মসলা চাষে আগ্রহ বাড়বে। খারাপ হলে আগ্রহ কমবে।’

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?