বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ০৪:০৬:৫৩

সম্ভাবনাময় ঝরনা কেন্দ্রিক পর্যটন গড়ে তোলার জন্য প্রাকৃতিক ঝরনা রক্ষা করতে হবে

সম্ভাবনাময় ঝরনা কেন্দ্রিক পর্যটন গড়ে তোলার জন্য প্রাকৃতিক ঝরনা রক্ষা করতে হবে

খাগড়াছড়ি:- নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও খাগড়াছড়িতে গত এক দশকে বিকশিত হয়েছে পর্যটন খাত। সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও সড়ক যোগাযোগ বিস্তৃত হওয়ায় এর অগ্রগতি হয়েছে। ‘ফাউন্টেন টুরিজম’ (ঝরনা পর্যটন) পাহাড়ে পর্যটনে সমৃদ্ধি আনবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। তবে পর্যটকদের নিরাপত্তা সংকটসহ অনেক পর্যটন কেন্দ্র দুর্গম হওয়ায় অনেক পর্যটক এই সব এলাকায় ভ্রমণে আগ্রহী হচ্ছেন না। খাগড়াছড়িতে ছোটবড় ঝরনার সংখ্যা দশটি। এ মধ্যে রিছাং ঝরনা, শিলাছড়ি, তৈদুছড়া, তুয়ারি মাইরাং, হরিণামারা, তৈছামা, হাজাছড়া অন্যতম। ঝরনার গড় উচ্চতা ৫০ থেকে ৬০ ফুট। ভরা বর্ষায় প্রাণ ফিরে পায় এসব ঝরনা। নয়নাভিরাম এসব ঝরনাকে ঘিরে খাগড়াছড়িতে সম্ভাবনাময় ‘ফাউন্টেন টুরিজম’। জেলার দীঘিনালায় তৈদুছড়া-১ ও তৈদুছড়া-২ ঝরনা অবস্থিত। এসব এলাকায় সড়ক যোগাযোগ না থাকায় হেঁটে এসব ঝরনা পৌঁছাতে সময় লাগে প্রায় ২ ঘণ্টা। ফলে সব বয়সী পর্যটক এখানে যেতে পারে না। এ রকম আরও ৫টি ঝরনা রয়েছে এই এলাকায়। ঝরনা সংলগ্ন এলাকার ইউপি সদস্য গণেশ ত্রিপুরা জানান, ‘আমার এলাকায় তৈদুছড়া, তুয়ারি মাইরাং, তৈছামাসহ ৫টি ঝরনা রয়েছে। তবে সম্ভাবনা সত্ত্বে অবকাঠামো উন্নয়ন না হওয়ায় এখানে পর্যটন বিকশিত হচ্ছে না। অনেক দেশ কমিউনিটি টুরিজমের মাধ্যমে উন্নয়ন হলেও পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষ একেবারে বঞ্চিত।’ জেলা পরিষদ পার্কের আহ্বায়ক পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল বলেন, ‘এখানকার অর্থনীতি মূলত কৃষি ও বন নির্ভর। এর বাইরে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় খাত হল পর্যটন। জেলা পরিষদের উদ্যোগে ঝুলন্ত সেতুসহ পার্ক গড়ে তোলায় এটি এখন পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণীয় স্থান। এখানে পর্যটন কেন্দ্রিক অবকাঠামো উন্নয়ন ও নিরাপত্তা জোরদার করা গেলে পর্যটন খাত আরও সমৃদ্ধ হবে। এ ছাড়া পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে টুরিস্ট পুলিশের টহল বাড়াতে হবে।’ ঝরনা কেন্দ্রিক পর্যটন গড়ে তোলার জন্য প্রাকৃতিক ঝরনা রক্ষায় বন ও পরিবেশ সুরক্ষা এবং বনায়নের পরামর্শ দিয়েছে খাগড়াছড়ির বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. সরোয়ার আলম। তিনি বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম প্রচুর প্রাকৃতিক ঝরনা রয়েছে। এসব ঝরনায় বর্ষায় যেভাবে পানি প্রবাহিত হয় তা ধরে রাখতে গেলে আমাদের বন রক্ষা করতে হবে। নতুন করে বনায়ন ও পরিবেশ সুরক্ষা করতে হবে। পর্যটকদের নিরাপত্তা দান প্রসঙ্গে টুরিস্ট পুলিশ খাগড়াছড়ি ইউনিটের ইনচার্জ বিজন কুমার দাশ বলেন ‘আলুটিলা, রিছাং ঝরনা, জেলা পরিষদ এলাকায় আগত পর্যটকদের নিরাপত্তা দিচ্ছে টুরিস্ট পুলিশ। তবে দুর্গম এলাকায় যেসব পর্যটন এলাকা রয়েছে সেখানে যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় টহল দিতে পারি না। এসব এলাকায় উন্নয়ন হলে টুরিস্ট পুলিশ সেবা দিতে পারবে।’

এই বিভাগের আরও খবর

  বান্দরবানের রুমা ও আলীকদমে আজ রাত ১২টা থেকে ২৮ নভেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত পর্যটকদের ভ্রমণ নিষিদ্ধ

  খাগড়াছড়িতে আলুটিলাকে ঘিরে মহাপরিকল্পনা

  তিন পার্বত্যাঞ্চলে পর্যটক কমেছে

  রাঙ্গামাটি,খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান পাহাড়ে শীতের ছোঁয়া

  রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ির স্বর্গপুর ঝরনা,সুরধ্বনি শুনিয়ে যাচ্ছেন মেঘমল্লার সুরে

  গুরুসতাং পাহাড়: এক অদেখা সৌন্দর্যের হাতছানি

  আমরা আটজন ও খাগড়াছড়ি

  কক্সবাজারের সেন্টমার্টিনে আটকে পড়েছেন ৩০০ পর্যটক

  বান্দরবানের রহস্যঘেরা আলীর গুহা

  বান্দরবানে ভ্রমণের ক্লান্তি ভোলায় মুরুং ঝর্ণা

  সম্ভাবনাময় ঝরনা কেন্দ্রিক পর্যটন গড়ে তোলার জন্য প্রাকৃতিক ঝরনা রক্ষা করতে হবে

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?