রবিবার, ১৭ অক্টোবর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১, ০৭:০৩:০৯

রাঙ্গামাটিতে করোনায় পর্যটনশিল্পে বড় ধস

রাঙ্গামাটিতে করোনায় পর্যটনশিল্পে বড় ধস

মো: নাজমুল হোসেন রনি:- করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দেশের ভ্রমণ ও পর্যটন খাতে বড় ধরনের ধস নেমেছে। বন্ধ হয়ে গেছে রাঙ্গামাটির জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্রগুলো। দেশের বড় জেলা রাঙ্গামাটির হোটেল-মোটেল গুলোতে সরকারি প্রজ্ঞাপনের আদেশে বন্ধ করে দেওয়া স্পটগুলো এখন বর্তমানে পর্যটকশূন্য। ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসের প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় রাঙ্গামাটির বিভিন্ন পর্যটন স্পটগুলোতে যাতায়াতে কড়াকড়ি নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে নামকরা সব ধরনের হোটেল-মোটেল। সবমিলিয়ে রাঙ্গামাটির পর্যটন খাতে নেমে এসেছে বিশাল ধস। করোনাভাইরাসের কারণে পর্যটকদের নিরুৎসাহিত করতে জেলা প্রশাসন থেকে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত পর্যটকদের আগমন নিরুৎসাহিত করা হল। রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসক মো: মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত রাঙ্গামাটির সব পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্রে পর্যটক ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এই নির্দেশনা যদি কেউ অমান্য করে, তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। রাঙ্গামাটি জেলা আবাসিক হোটেলি মালিক সমিতির সূত্র থেকে জানা গেছে, বর্তমানে তারা লোকসানে আছেন। করোনা ভাইরাসের ছোবলে সারা দেশের সঙ্গে আতঙ্কে রাঙ্গামাটির মানুষও। পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ ছাড়িয়ে মানুষ এখন অনেকটা রীতিমতো দিশেহারা। এমন পরিস্থিতি মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে রাঙ্গামাটির পর্যটনের ওপর। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে এরই মধ্যে হঠাৎ ফাঁকা হয়ে গেছে, সরকারি পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্সসহ জেলার সবক’টি পর্যটন স্পট ও আবাসিক হোটেল-মোটেল। এসব পর্যটন স্পট ও হোটেল-মোটেল এখন জনশূন্য। প্রভাব পড়েছে রেস্টুরেন্ট ও খাবার হোটেলেও। বেকার হয়ে পড়েছেন অনেকে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের আদেশ অনুযায়ী অধিক লোকসমাগম এবং পর্যটন এলাকায় ভ্রমণে বিরত থাকার নির্দেশনার পাশাপাশি সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। রাঙ্গামাটি সরকারি পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, গোটা পর্যটন এলাকাটি জনশূন্য। ফাঁকা দাঁড়িয়ে রয়েছে মনোরম ঝুলন্ত সেতুটি। কর্মচারীরা ছাড়া আশপাশে কোথাও লোকজনের ঘোরাঘুরি নেই। কর্মচারীরা জানান, এমনিতে লোকজন আসছে না। তা ছাড়া সরকারের নির্দেশনায় পর্যটন এলাকায় প্রবেশ সম্পূর্ণ বন্ধ রাখতে হয়েছে। সরকারি পর্যটন কমপ্লেক্সে ছাড়াও রাঙ্গামাটি শহরের স্পটে গিয়ে জানা গেছে, জেলা পুলিশের পলওয়েল পার্ক, সুখী নীলগঞ্জ, রাঙ্গামাটি রিজিয়নের আরণ্যক স্পটসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পট, শুভলং ঝর্না, কাপ্তাই এবং বাঘাইছড়ির সাজেকের পর্যটন এলাকায় এখন জনশূন্যতা। ফাঁকা হয়ে গেছে ওই সব পর্যটন এলাকা, বলতে গেলে পাহাড়ে করোনায় পর্যটন শিল্পের উপর বিস্তর প্রভাব পড়েছে, অনেকে সরকারি প্রনোদনার জন‍্য তাকিয়ে আছেন।

এই বিভাগের আরও খবর

  বান্দরবানের রহস্যঘেরা আলীর গুহা

  বান্দরবানে ভ্রমণের ক্লান্তি ভোলায় মুরুং ঝর্ণা

  সম্ভাবনাময় ঝরনা কেন্দ্রিক পর্যটন গড়ে তোলার জন্য প্রাকৃতিক ঝরনা রক্ষা করতে হবে

  করোনার মধ্যেও দেশীয় পর্যটকের সংখ্যা দুই কোটিতে পৌঁছেছে: বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

  দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার নান্দনিক পর্যটন স্পটের নাম বান্দরবান জেলা

  খাগড়াছড়ির পর্যটন অর্থনীতির বিকাশ,মাসে লেনদেন ১০ কোটি টাকা

  আজ ‘বিশ্ব পর্যটন দিবস’

  প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি রাঙ্গামাটির ন" কাটা ও মোপ্পাছড়া ঝর্ণা

  রাঙ্গামাটি,খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানে এখন পর্যন্ত আশানুরূপ পর্যটক আসছেন না

  পার্বত্য চট্টগ্রামের দার্জিলিং খ্যাত সাজেক এখন আলোয় আলোকিত

  রাঙ্গামাটির ঝুলন্ত সেতু এখন পানির নিচে

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?