মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৮, ০৮:০৬:৫৮

বান্দরবানের আকাশে মেঘ,পর্যটকেরা বিমোহিত

বান্দরবানের আকাশে মেঘ,পর্যটকেরা বিমোহিত

বান্দরবানঃ-বাংলাদেশের ভূ-স্বর্গ পার্বত্য জেলা বান্দরবান। এখানে রয়েছে অসংখ্য পর্যটন কেন্দ্র। শান্তি আর সম্প্রীতিতে রয়েছে এই জেলার বেশ সুনাম। আর এই পর্যটন জেলায় বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রের সৌন্দর্যের পাশাপাশি পাহাড়ের বিভিন্ন স্থানে দেখা মিলে মেঘের ছোয়া, তাইতো সময় অসময়ে পর্যটকেরা মেঘের সৌন্দর্য্য উপভোগে ছুটে যাচ্ছে পার্বত্য জেলা বান্দরবানে।
বান্দরবান শহর থেকে দক্ষিণ পূর্ব দিকে বান্দরবান-থানছি সড়কের পথ ধরে ছুটে চললে সড়কের দুধারে বিভিন্ন স্থানে দেখা মিলবে মেঘের। এখানে আকাশ-মেঘ ভ্রমণপিপাসু মানুষকে যেন হাতছানি দিয়ে ডাকছে। অবারিত সবুজ প্রান্তর যেখানে মিশে যায় মেঘের ভেলায়। এখানে মেঘের সাথে পাহাড়ের যেন আজন্ম বন্ধুত্ব। প্রকৃতি যেন সাজিয়েছে আপন মনের মাধুরী মিশিয়ে। এখানে ইচ্ছে করলেই ছোঁয়া যায় মেঘ, আকাশকেও মনে হয় বেশ কাছে, তাইতো পর্যটকদের কাছে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে ওঠছে এই জেলা।
ঢাকা থেকে বান্দরবানে বেড়াতে আসা পর্যটক মো:খালেকুর রহমান। পেশায় একজন বেসরকারি চাকুরীজীবি, কথা হলো তার সাথে। মোঃ খালেকুর রহমান জানান, তিনি প্রতিবছরই বান্দরবানে বেড়াতে আসেন। বান্দরবানের পাহাড়, নদী আর মেঘের ছোয়া খুবই মনোমুগ্ধকর।
যশোর থেকে বান্দরবানের পর্যটন কেন্দ্র চিম্বুক পাহাড়ে বেড়াতে আসা পর্যটক হামিদুর রহমান বলেন, বান্দরবানের সৌন্দর্য্য দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিটি জায়গা যেন দেখার মত। সড়কের আকাঁবাকা মোড়,পাহাড়ের গায়ে পাহাড়ের ভাঁজ আর মেঘের ছড়াছড়িতে মন ভরে যায়। বিশেষ করে বান্দরবান থানছি সড়কের দুধারে যে মেঘ দেখা যায় তা সত্যিই অপূর্ব।
পাহাড়ি আঁকাবাঁকা সড়কের পথ পাড়ি দিয়ে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে অনেক উচুঁতে পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র। নীলগীরি, চিম্বুক পাহাড়, নীল দিগন্ত আর নীলাচল পর্যটন কেন্দ্রে ভ্রমনে এসে উঁচু পাহাড়ের চূড়ায় দাঁড়িয়ে এমন প্রাকৃতিক দৃশ্য প্রকৃতি প্রেমীদের করছে আরো বিমোহিত।
বান্দরবানের গাছগাছালি ঘেরা বিস্তৃর্ণ পাহাড়,নদী,ঝর্ণার সৌন্দর্যের পাশাপাশি মেঘের দিগন্ত জোড়া সৌন্দর্য্য ভ্রমন পিপাসু প্রতিটি মানুষকে করে উৎফুল্ল। তবে এই পর্যটন শিল্পকে সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে প্রশাসনের আরো বেশি নজর দেয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।
বান্দরবানের বিশিষ্ট কবি, সংস্কৃতিকর্মি চৌধুরী বাবুল বড়ুয়া বলেন,বান্দরবান সত্যিই অপূর্ব একটি জেলা। তবে এই পর্যটন জেলাকে আরো সুন্দরভাবে সাজাঁতে প্রশাসনকে আরো দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।
এদিকে প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান,পর্যটন জেলা বান্দরবানকে সুন্দরভাবে সাজিয়ে পর্যটকদের আরো বেশি বিনোদন দেওয়ায় জন্য নতুন নতুন পরিকল্পনা গ্রহণ করছে জেলা প্রশাসন।
বান্দরবান জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) অরুণ কৃষ্ণ পাল বলেন, আমরা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বান্দরবানকে সুন্দর একটি পর্যটন জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মেঘলা, নীলাচল, চিম্বুকসহ অসংখ্য পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে ।এনডিসি অরুণ কৃষ্ণ পাল আরো বলেন, বান্দরবান আসলেই একটি সুন্দর শহর। এখানকার মনোরম পরিবেশ আসলেই সত্যিই সুন্দর। বিশেষ করে পাহাড় আর মেঘ দুচোখ ভরে অনুভব করে পর্যটকেরা।
পর্যটন সংশিষ্টরা জানান, বান্দরবানের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধিতে প্রশাসনকে আরো বেশি জোরালো ভুমিকা রাখতে হবে আর এতে জেলায় পর্যটকের সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি অর্থনৌতিক অবস্থার অনেকটাই উন্নয়ন ঘটবে।

এই বিভাগের আরও খবর

  আলাউদ্দিন-লিমা দম্পতির জীবনে ঘটে যাওয়া মর্মান্তিক ঘটনার বর্ননা লাভ পয়েন্টের কোথাও নেই

  বান্দরবানের আকাশে মেঘ,পর্যটকেরা বিমোহিত

  মহালছড়িতে ধুমনীঘাট-মনাটেক পর্যটনের নতুন সম্ভাবনা পর্যটকদের আনন্দ বাড়বে

  ঘুরে আসুন ঝরনার গ্রাম দীঘিনালা

  পাথরের ভাজে শীতল জল যেন জানান দেয় স্বচ্ছ জলের ধারায় ‘দামতুয়া জলপ্রপাত’

  লামার অসংখ্য ঝর্ণা-পাহাড়-নদী ও বিনোদন স্পট হাতছানি দিচ্ছে

  পর্যটনের অপার সম্ভাবনাময় পানছড়ির লেক ‘মায়াবিনী’

  খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় ভ্রমন পিপাসুদের নতুন মাত্রা ভগবান টিলা

  প্রতিদিনই পর্যটকদের ভ্রমনের নিরাপত্তা, আবাসনসহ বিভিন্ন বিষয়ে জেলা প্রশাসনের নজরদারি রয়েছে-দিলীপ কুমার বণিক

  বান্দরবানে জেলা প্রশাসন কর্তৃক পরিচালিত মেঘলা ও নীলাচলে পর্যটক অবস্থানের সময় বাড়লো

  চার মাস পর পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হলো রাঙ্গামাটির ঝুলন্ত সেতু

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

সরকার ও নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে বিএনপির বিভিন্ন অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন বানচালের জন্য তারা এসব অজুহাত তুলছে। আপনি কি তার সঙ্গে একমত?