Chtnews24.com
রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবে দেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে আদিবাসী দিবস পালন করা হয় না-সন্তু লারমা
Saturday, 03 Aug 2019 21:07 pm
Reporter :
Chtnews24.com

Chtnews24.com

ডেস্ক রিপোর্টঃ-৯ আগষ্ট জাতিসংঘ ঘোষিত আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস। এই দিবসকে সামনে রেখে দেশের ৩০ লক্ষাধিক আদিবাসী জনগোষ্ঠীর অধিকার নিয়ে কাজ করা রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের উদ্যোগে রাজধানীতে শনিবার (৩ আগষ্ট) সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ঢাকার সুন্দরবন হোটেলে সকাল ১১টার সময় অনুষ্ঠিত হওয়া এই সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা। আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রংয়ের পরিচালনায় সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আইইডির নির্বাহী পরিচালক মানবাধিকার কর্মী নুমান আহমদ খান, রিচার্স এন্ড ডেভলপমেন্ট কালেক্টিভ এর সাধারণ সম্পাদক ও আদিবাসী বিষয়ক সংসদীয় ককাসের টেকনোক্রেট এক্সপার্ট মেম্বার জান্নাতুল ফেরদৌসি, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সহ-সভাপতি অজয় এ মৃ, খাসিয়া নেতা এন্ড্র সুলেমার সহ আদিবাসী নেতৃবৃন্দ।
মূল বক্তব্যে আদিবাসী ফোরামের সভাপতি এক সময়কার পাহাড়ের গেরিলা নেতা জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা বলেন, আদিবাসী জাতিসমূহের জীবনধারা, মৌলিক অধিকার ও মানবাধিকার, আদিবাসী জাতিসমূহের ভাষা ও সংস্কৃতি তথা আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার সম্পর্কে সদস্য রাষ্ট্র, জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়, নাগরিক সমাজ, মিডিয়া, সংখ্যাগরিষ্ঠ অ-আদিবাসী জনগণ ও সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেতন করে তোলা এবং আদিবাসীদের অধিকারের প্রতি সমর্থন বৃদ্ধি করাই হলো আদিবাসী দিবস উৎযাপনের মূল লক্ষ্য। বাংলাদেশে এই কাজগুলো বাস্তবায়নে রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবের দরুণ রাষ্ট্রীয়ভাবে এই দিবস পালিত না হওয়ার আক্ষেপ ও দুঃখের বহিঃপ্রকাশও করেন পাহাড়ের এই নেতা।
তিনি আরো বলেন, স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরও দেশের ৩০ লক্ষাধিক আদিবাসী জনগণ মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত। সম্পূর্ণ এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে আদিবাসী ভাষা, সংস্কৃতি ও জীবনধারাকে ঠেলে দেওয়া হয়েছে এবং ‘পপুলেশন ট্রান্সফার’ ও ক্রমাগত উচ্ছেদের ফলে নিজ  ভূমি থেকে বাস্তুচূত হয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম, গারো পাহাড়, উত্তরবঙ্গ, গাজীপুর, মধুপুর বনাঞ্চল, পটুয়াখালী-বরগুনা, খাসিয়া অঞ্চলে সর্বত্র আদিবাসীরা সংখ্যালঘুতে পরিণত হচ্ছে। এমতাবস্থায় আদিবাসীদের মানবিক মর্যাদা প্রতিষ্ঠা তো দূরের কথা, এখন আত্মপরিচয়, মাতৃভাষা ও নিজস্ব সংস্কৃতি নিয়ে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখাই কঠিন হয়ে পড়েছে বলে অভিযোগ করেন সাবেক এই গেরিলা নেতা।
এছাড়া মাতৃভাষা ইনষ্টিটিউটের নৃভাষা বৈজ্ঞানিক সমীক্ষায় পাওয়া ১৪ টি বিপন্ন ভাষার কথা উল্লেখ করেন তিনি। খাড়িয়া, কোড়া, সৌরা, মুন্ডারি, কোল, মালতো, খুমি, পাংখোয়া, রেংমিটচা, চাক, খিয়াং, লুসাই ও পাত্র ভাষা হারিয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে আছে বলেও উল্লেখ করেন এই আদিবাসী নেতা। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতার অভাব এবং এই ভাষা চর্চাকারী মানুষদের সংখ্যা কমে যাওয়া থেকে শুরু করে রাষ্ট্রের ক্রমাগত বঞ্চনার ফলেই এই বেহাল দশা বলেও অভিযোগ আদিবাসী ফোরামের সভাপতির।
আদিবাসীবাসী বিষয়ক সংসদীয় ককাসের টেকনোক্র্যেট এক্সপার্ট মেম্বার জান্নাতুল ফেরদৌসি বলেন, আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র গড়ার। এই চেতনা বাস্তবায়নে বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক রূপকে ফুটিয়ে তোলার জন্য আদিবাসীদের সমৃদ্ধ সংস্কৃতিকে রক্ষা করা রাষ্ট্রের কর্তব্য।
আইইডির নির্বাহী পরিচালক নুমান আহমদ খান বলেন, জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশের যে কর্তব্য ছিল আর বর্তমান আদিবাসীদের যে হাহাকার বাস্তবতা বেশ বিপরীত। এসডিজির চলমান স্লোগান ‘কাউকে পেছনে ফেলে নয়’ এই নীতি বাস্তবায়নে সবচেয়ে প্রান্তিক আদিবাসী জনগনকে উন্নয়নের আলোয় নিয়ে আসার জন্য রাষ্ট্রকে উদ্যোগ নিতে হবে। সকল  আদিবাসীর ভাষা ও পরিচয়কে স্বকিৃতি দানের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত এই রাষ্ট্রকে অসাম্প্রদায়িক চেতনা বাস্তবায়নেরও দাবী জানান তিনি।
আদিবাসী দিবসকে সামনে রেখে আগামীকাল ৪ আগষ্ট ২০১৯ সকাল ১০ টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে আদিবাসী বিষয়ক সংসদীয় ককাসের আলোচনা সভা, ৫ আগষ্ট সকাল ১০ টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আদিবাসী ফোরামের আয়োজনে প্রতি বছরের ন্যায় সমাবেশ, র‌্যালী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ৭ আগষ্ট সকাল ১০ টায় ঢাকার ডব্লিউ ভি.এ মিলনায়তনে বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্ক ও বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের যৌথ আয়োজনে আদিবাসী নারী বিষয়ক সেমিনার, ৯ আগষ্ট বেলা ২ টায় বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আয়োজনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার বকুলতলায় ছাত্র সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ২৭ আগস্ট এএলআরডি ও ১০ টির অধিক সংগঠন মিলিতভাবে আদিবাসীদের ভূমি অধিকার নিয়ে সেমিনার আয়োজন করবে ঢাকার সিরডাপ মিলনায়তনে।
উপস্থিত সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের উত্তর প্রদানের পাশাপাশি আদিবাসী দিবসকে কেন্দ্র করে আদিবাসী ফোরাম ও এর সহযোগী সংগঠন সমূহের আয়োজনে উপরোক্ত সিরিজ প্রোগ্রাম সমূহের সফলতা কামনা করে এবং আদিবাসীদের মৌলিক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন সমাপ্ত হয়। জাতিসংঘ এবারের আদিবাসী দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে- “আদিবাসী ভাষা চর্চা এবং সংরক্ষণে এগিয়ে আসুন”।