Chtnews24.com
সেতু ও স্থলবন্দর কার্যক্রমের মধ্যদিয়ে ভারত-বাংলাদেশ বানিজ্যিক সুবিধা বাড়বে-রিভা গাঙ্গুলী দাশ
Sunday, 16 Jun 2019 21:06 pm
Reporter :
Chtnews24.com

Chtnews24.com

লিটন ভট্টাচার্য্য রানা, খাগড়াছড়িঃ-খাগড়াছড়ির রামগড় ও ভারতের সাব্রুম সীমান্তে ফেনী নদীর উপর নির্মানাধীন ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সেতু-১ এর নির্মান কাজ, স্থলবন্দর এলাকা এবং মহামুনি বৌদ্ধ বিহার পরিদর্শন করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাস।
রবিবার (১৬ জুন) দুপুরে হাই কমিশনার তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে রামগড় স্থলবন্দর এলাকায় এসে পৌছলে তাকে আনুষ্ঠানিক অভ্যর্থনা জানান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী ও জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সাংসদের সহধর্মিনি কুজেন্দ্র মল্লিকা ত্রিপুরা, ৪৩ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল তারিকুল হাকিম, খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম সালাউদ্দিন, জেলা পরিষদ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু, জেলা পরিষদ সদস্য পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল প্রমুখ।
পরিদর্শন শেষে ভারতীয় কমিশনার সাংবাদিকদের বলেন, পরিকল্পনা অনুযায়ী সেতু ও স্থলবন্দর কার্যক্রমের মধ্যদিয়ে ভারত-বাংলাদেশ বানিজ্যিক সুবিধা পাবে, তেমনি দুই দেশের মধ্যে একটি ভাতৃত্বের সেতুবন্ধনও তৈরী হবে। ভারতীয় হাই কমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাশ আশা প্রকাশ করে বলেন, মৈত্রী সেতু ও স্থলবন্দর নির্মিত হলে আন্ত: যোগাযোগ বৃদ্ধি ছাড়াও ব্যবসা বানিজ্যের সুবিধা বাড়বে এবং যাতায়াত সহজ হবে। অবশ্য তিস্তাচুক্তির বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্ন এড়িয়ে যান তিনি।
মৈত্রীসেতু পরিদর্শনকালে বাংলাদেশ অংশের প্রতিনিধিত্ব করেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মো: শহিদুল ইসলাম, খাগড়াছড়ি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্যের সহ-ধর্মিনী মল্লিকা ত্রিপুরা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমএম সালাউদ্দিন, রামগড় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ কার্বারী, জেলা পরিষদ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু এবং জুয়েল চাকমা প্রমূখ।
পরিদর্শনে ভারতীয় হাই কমিশনারের সাথে ছিলেন, ডেপুটি কমিশনার (চট্টগ্রাম) অনিন্দ্র ব্যানার্জি, ভারতীয় ন্যাশনাল হাইওয়ের জিএম দিল ভাকসিং, ফাষ্ট সেক্রেটারী নবনিতা চক্রবর্তী প্রমুখ। পরে রামগড় পাহাড়াঞ্চল কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে দুপুরের খাবার শেষে রামগড় ত্যাগ করেন।
উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৬জুন প্রাধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী ঢাকাতে সেতুটির ভিক্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। ৪১২মিটার দৈর্ঘ্য ও ১৪.৮০ মিটার প্রস্থের সেতুটি নির্মাণে ব্যায় ধরা হয়েছে ৮২.৫৭ কোটি ভারতীয় রোপী। সবকিছু ঠিক থাকলে ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে সেতুটি নির্মান কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। আর স্থলবন্দর নির্মানকে ঘিরে বন্দর টার্মিনাল, অফিস, গুদামসহ অন্যান্য অবকাঠামো নিমার্ণে ভূমি অধিগ্রহণের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে।