Chtnews24.com
বাঘাইছড়ি নারকীয় হত্যাকান্ড, মানবাধিকার লংঘন নয় কি?
Friday, 22 Mar 2019 20:07 pm
Reporter :
Chtnews24.com

Chtnews24.com

রাঙ্গামাটিঃ-বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের সমন্বয়কারী বিশিষ্ট মানবাধিকারের প্রবক্তা দৈনিক গিরিদর্পণ ও সাপ্তাহিক বনভূমি সম্পাদক এ,কে,এম মকছুদ আহমেদ সম্প্রতি বাঘাইছড়ির নারকীয় হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়ে এক বিবৃতিতে বলেছেন ব্রাশ ফায়ারে সংঘটিত হত্যকান্ড কী মানবাধিকার লংঘন নয় কি? নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শেষে বাঘাইছড়ি উপজেলা সদরে ফেরার সময়ে পাহাড়ে ওৎ পেতে থাকা আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে ব্রাশ ফায়ার করে এ হত্যাকান্ড চালায়। ঘটনাস্থলে ৬ জন এবং চট্টগ্রামে নেয়ার পথে একজনসহ মোট ৭ জনকে হত্যা করা হয়।
এছাড়া ১১ জনকে চট্টগ্রাম ও ঢাকা সিএমএইচে ভর্তি করে চিকিৎসা দিচ্ছে। এটা কি মানবাধিকারের চরম লংঘন নয় কী। ১ দিন পরে বিলঅইছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভপতি কে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। যে কোন ধরনের হত্যাকান্ডই মানবাধিকার লংঘন। এটা পার্বত্য চট্টগ্রামের জন্য কোন নতুন ঘটনা নয়। এটা কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। তবে এভাবে নির্বাচন কাজে নিয়োজিতদের উপর জঘন্যতম হামলা হয়নি।
কিন্তু দুঃখের বিষয় যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে এবং বাংলাদেশে কর্মরত কোন মানবাধিকার সংগঠনের কোন প্রতিবাদ বা নিন্দা জানিয়েছেন কিনা গত তিন দিনে কোথাও দেখা যায়নি। এধরনের নীরবতা মানবাধিকারের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বলে মনে করি।
হত্যাকান্ডের ৩ দিন পর ২০/৩/১৯ ইং তারিখ পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে। এটা বিচার কি হবে সেটা পরের কথা। কিন্তু এত হত্যাকান্ড ঘটেছে একটার ও বিচার হয়নি। পূর্বেতো মামলাই হতো না। বর্তমানে আরও ২/১ টা মালা হয়েছে।
হত্যাকান্ডের বিচারের উপযুক্ত শাস্তি প্রদান করা হলে হয়তো হত্যাকান্ড কমতে পারে।
এখানে একটা কথা না বললে নয় বিদেশী এবং দেশী কিছু নেতা বা মানবাধিকার কর্মীরা উপজাতীয়দের উপর একটা ঢিল ছুড়লেই পৃথিবী উল্টিয়ে ফেলে কিন্তু এবার ৬ জন বাঙ্গালী এবং একজন উপজাতীয়কে নৃশংস ভাবে হত্যা করার পর ও টু শব্দও করেনি। এটা মানবাধিকারের কোন পর্যায়ে পড়ে জানি না।
এছাড়াও জাতীয় রাজণৈতিক দল গুলো থেকেও কোন প্রতিবাদ নিন্দা দেখা  যায়নি। এটা খুবই দুঃখ জনক।