Chtnews24.com
বান্দরবানে এলপিজি সিলিন্ডার গ্যাস বিক্রয়ে ব্যবসায়ীরা মানছে না কোন নিয়মনীতি
Friday, 07 Dec 2018 20:13 pm
Reporter :
Chtnews24.com

Chtnews24.com

বান্দরবানঃ-এলপিজি সিলিন্ডার গ্যাস বিক্রয়ে ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া ও বিস্ফোরক অধিদপ্তর ও ফায়ার সার্ভিসের লাইসেন্স নেয়া বাধ্যতামুলক, কিন্তু এইটায় মানা হচ্ছে না বান্দরবানে। নিরাপত্তামুলক কোন ব্যাবস্থা ছাড়াই চলছে সিলিন্ডার গ্যাস বেচা কেনা।
জ্বালানী হিসেবে ব্যবহত এলপিজি গ্যাস অত্যান্ত দাহ্য পদার্থ, তাই এর বেচাকেনা করতে ট্রেড লাইসেন্সের সাথে সাথে নিতে হয় বিস্ফোরক অধিদপ্তর ও ফায়ার সার্ভিসের লাইসেন্স। গ্যাস সংরক্ষণে নিতে হয় বাড়তি সর্তকর্তা। কিন্তু নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে বান্দরবান শহরের অলিতে গলিতে মুদিদোকান সহ যেনতেন ভাবে বিক্রি হচ্ছে এলপিজি গ্যাস। ক্রেতাদের ন্যায্যমুল্যে গ্যাস ক্রয়ের জন্য দোকানে প্রদর্শন থাকার কথা মুল্য তালিকা ,কিন্তু বেশিরভাগ দোকানে মুল্য তালিকার কোন অস্তিত্ব নেই  আর সেই সাথে অগ্নি নির্বাপক যন্ত্রের ও কোন হদিস নেই। আর বেশিরভাগ দোকানে নেই ট্রেড ও ফায়ার সার্ভিসের লাইসেন্স।
অতি মুনাফার লোভে একশ্রেণীর অসাধু ব্যাবসায়ীরা নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই যাকে তাকেই বিক্রির জন্য সরবরাহ করছে, এতে প্রকৃত ব্যাবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে আর নিরাপত্তামুলক কোন ব্যাবস্থা না থাকায় যে কোন সময় বড় দুর্ঘটনার সম্মুখীন হওয়ার আশংকায় স্থানীয়রা।
ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের রয়েছে এলপিজি সিলিন্ডার গ্যাস বিক্রেতাদের নিরাপত্তা দেখভালের দায়িত, কিন্তুু এই বিষয়ে জানার জন্য বান্দরবান ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা (সহকারী পরিচালক) মো:ইকবাল হোসেনের সাথে দেখা করে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি ক্যামরা সামনে কিছু বলতে রাজী হননি। অভিযোগ রয়েছে বান্দরবান ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কিছু অসাধু কর্মকর্র্তা বেশিরভাগ দোকানে নিরাপত্তামুলক ফায়ার এক্সটুমসার বোতল বিক্রি করে টাকা উপার্জন করে দায়িত্ব শেষ করছে আর সাধারণ মানুষদের প্রতিনিয়ত চলাচল করতে হচ্ছে চরম নিরাপত্তাহীনতায়।
এদিকে পৌরসভার কর্মকর্র্তারা জানান,যে কোন দ্রব্য বিক্রির জন্য মূল্য তালিকা প্রদর্শন বাধ্যতামূলক আর অসাধু ব্যাবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
এদিকে যেনতেনভাবে বিক্রি করা এ ধরনের গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করা ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক।
বড় যে কোন দুর্ঘটনা এড়াতে এবং জীবন ও সম্পদ রক্ষায় আশ্বাস নয় দ্রুত অসাধু এই ব্যাবসায়ীদের বিরুদ্ধে সবসময় অভিযান পরিচালনা করে কঠোর শাস্তি প্রদানের দাবি জানিয়েছে স্থানীয়রা।