Chtnews24.com
পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি অধিগ্রহণ আইনের আবারো জটিলতাঃ ক্ষুব্ধ সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যরা
Tuesday, 23 Oct 2018 20:46 pm
Reporter :
Chtnews24.com

Chtnews24.com

ডেস্ক রিপোর্টঃ-ভূমি মন্ত্রনালয়ের অসহযোগিতার কারণে পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি অধিগ্রহণ আইনের আবারো জটিলতা দেখা দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সদিচ্ছা থাকা সত্বেও ভূমি মন্ত্রনালয়ের অসহযোগিতার কারণে এই আইনটি সংসদে পাঠাতে না পারায় দুঃখ প্রকাশ করেন বৈঠকে সকলেই। আইনটি ভূমি মন্ত্রনালয় থেকে সংসদে না পাঠিয়ে আইনটি সংস্থাপন মন্ত্রনালয়ের প্রেরণ করে ভূমি মন্ত্রনালয় থেকে।
মঙ্গলবার (২৩ অক্টোবর) পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ভূমি মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিবের উপর ক্ষুব্ধ হলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র আ ম ওবায়দুল মোকতাদির। বৈঠকে কাপ্তাই হ্রদ ড্রেজিং বিষয়েও বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।
বৈঠকে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর ঊশৈসিং এমপি, মহিলা সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুদত্ত চাকমা, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লাসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে এই খবরে পার্বত্য অঞ্চলের বিরুপ প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে। পার্বত্য অঞ্চলের সাধারণ মানুষ বলেন, আমলাদের কারণে পার্বত্য অঞ্চলের মানুষ কষ্ট পাচ্ছে। সরকারের সদিচ্ছা থাকলেও কিছু কিছু আমলার কারণে পার্বত্য অঞ্চলের মানুষে দীর্ঘদিন ধরে সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আমলা তান্ত্রিক জটিলতার কারণে কোন কাজ সঠিক ভাবে হচ্ছে না বলে মনে করেন সাধারণ মানুষ।
মহিলা সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির এটাই শেষ বৈঠক। এই বৈঠকে আমরা ভূমি অধিগ্রহণ আইনটি পাশ করে যেতে না পারায় খুবই খারাপ লাগছে। তিনি বলেন, আইনটি পাশের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর খুবই সদিচ্ছা ছিলো। কিন্তু ভূমি মন্ত্রনালয়ের অসহযোগিতার কারণেই এই আইনটি সংসদে পাঠানো গেলো না। এই আইনটি সংসদে পাঠানো গেলেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পাস করে দিতেন বলেই তিনি আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, এছাড়া কাপ্তাই হ্রদ ড্রেজিং বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। এই কমিটি না থাকলেও এই ড্রেজিং এর কাজ চলবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।