মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ২৫ জুলাই, ২০২১, ০৪:২৪:০৮

‘লীগ শব্দ জুড়ে দিয়েই আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পৃক্তের সুযোগ নেই’

‘লীগ শব্দ জুড়ে দিয়েই আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পৃক্তের সুযোগ নেই’

ডেস্ক রির্পোট:- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গঠনতন্ত্রের বিধান অনুযায়ী আওয়ামী লীগের রয়েছে সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন এবং বিভিন্ন উপকমিটি। স্বীকৃত সংগঠনের বাইরে যেকোনো নামের সঙ্গে ‘লীগ’ বা ‘আওয়ামী’ শব্দ জুড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। রবিবার সকালে তাঁর বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, দল ক্ষমতায় থাকলে নানান সুবিধাভোগী শ্রেণি এবং বসন্তের কোকিলরা এ ধরনের চেষ্টায় লিপ্ত হয় যুক্ত হয় নানান আগাছা-পরগাছা। দলীয় সভানেত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী দলের মধ্যে কারো প্রকাশ্যে বা অপ্রকাশ্যে এ ধরনের কাজে সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। দলের নাম ভাঙিয়ে ব্যক্তি-স্বার্থ হাসিলের অপচেষ্টাকারীদের বিরুদ্ধে নেয়া হবে প্রশাসনিক ব্যবস্থা। ওবায়দুল কাদের স্পষ্ট করে বলেন, কোনো বিতর্কিত ব্যক্তির দলে অনুপ্রবেশ ঘটলে কিংবা কারও কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রশ্ন উঠলে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে লিখিত অভিযোগ করা যেতে পারে।

এই বিভাগের আরও খবর

  নুরের নতুন দলের আত্মপ্রকাশ, নাম ‘গণ অধিকার পরিষদ’

  অপশাসন দীর্ঘস্থায়ী হলে শৃঙ্খলা ভেঙে পড়ে

  রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি

  রেজা-নূরের নতুন দল গণপরিষদ

  আ.লীগের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি

  চট্টগ্রামে ২৫ ইউনিয়নে ১৩টিতে ভোটের আগেই আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান জয়ী

  হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলায় ২০ হাজার ৬১৯ জনকে অভিযুক্ত করে ১০২টি মামলা আটক ৫৮৩ জন,পুনর্বাসনে একগুচ্ছ পদক্ষেপ

  আ.লীগের সোনার ছেলেরা সংঘাতের সাথে জড়িত : রিজভী

  সরকার কিছু সংস্থাকে দলীয়করণ করেছে: নজরুল ইসলাম

  কুমিল্লার ঘটনায় দায়ীকে লুকিয়ে রাখা হয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  পদ্মা ও মেঘনা নামে দুটি বিভাগ হবে: প্রধানমন্ত্রী

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?