বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

বৃহস্পতিবার, ২৩ মে, ২০১৯, ০৩:৩৪:১০

উপ-নির্বাচনে যাওয়ায় খালেদা জিয়ার অসন্তোষ, স্বাক্ষর করেননি মনোনয়নপত্রে

উপ-নির্বাচনে যাওয়ায় খালেদা জিয়ার অসন্তোষ, স্বাক্ষর করেননি মনোনয়নপত্রে

ডেস্ক রিপোর্টঃ-বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ‘আপোষহীনতা’ প্রকাশ করলেন বুধবার। আসন্ন বগুড়া-৬ আসনের উপ-নির্বাচনের জন্য বিএনপির মনোনয়ন ফরম পাঠানো হয়েছিল তার কাছে। কিন্তু তিনি তাতে স্বাক্ষর করেননি। বরং রাগ করে ফেরত পাঠিয়েছেন।
কেরানীগঞ্জ কারাগারসূত্রে জানা যায়, আজ বিএনপির পক্ষ থেকে তাদের কাছে মনোনয়নপত্র পাঠানো হয় বেগম জিয়ার স্বাক্ষর নেওয়ার জন্য। কারণ বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। কারাগারের একজন কর্মকর্তা তাড়াহুড়া করে বিএনপির এই মনোনয়নপত্র নিয়ে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিজন সেলে বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।
তবে মনোনয়ন ফরম দেখে কিছুটা ক্ষিপ্ত হন তিনি। বেগম জিয়া বলেন, ‘কিসের নির্বাচন? এই নির্বাচন কে করতে বলেছে? আমি নির্বাচন করবো না। এই ফরম নিয়ে যান। যারা নির্বাচন করতে চায় তাদেরকে গিয়ে দিতে বলেন।’
পরে কেরানীগঞ্জ কারাগারের ঐ কর্মকর্তা স্বাক্ষর ছাড়াই মনোনয়ন ফরম নিয়ে ফিরে আসেন।

এই বিভাগের আরও খবর

  ষড়যন্ত্র-প্রতিকূল অবস্থা পেরিয়ে জাপা শক্তিশালী অবস্থানে-জিএম কাদের

  আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

  জাতীয় সম্মেলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি-ফখরুল

  বেগম জিয়ার মুক্তির পথে বাধা তাদের বক্তব্যেই প্রমাণ-আমির খসরু

  জিয়া কখনই নিজেকে স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করেননি-তথ্যমন্ত্রী

  বর্তমান নির্বাচন কমিশন কোমর ভাঙ্গা কমিশন-মির্জা ফখরুল

  আন্দোলন নয়, খালেদার মুক্তির জন্য আইনি পথে থাকুন-ড. হাছান মাহমুদ

  খালেদা জিয়ার কারামুক্তিতে সামনে দুই মামলার বাধা!

  খালেদা জিয়াকে আদালত জামিন দিলে সরকার হস্তক্ষেপ করবে না-কাদের

  ডিজিটাল বাংলাদেশের নামে ডিজিটাল দুর্বৃত্তপনার শেষ নেই-রিজভী

  সরকার একদিকে বাজেট দিচ্ছে, অন্যদিকে লুট করছে-আমীর খসরু

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির সমালোচনার জবাবে দুই মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এতে প্রমাণিত হয়েছে যে দেশে বিচার বিভাগ স্বাধীন। আপনি কি তার যুক্তিতে সন্তুষ্ট?