শনিবার, ১৮ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ০৯ এপ্রিল, ২০১৮, ০৮:৫৩:০৩

শুধু মুক্তিযোদ্ধা, নারী, নৃ-গোষ্ঠীর কোটার পক্ষে বিএনপি

শুধু মুক্তিযোদ্ধা, নারী, নৃ-গোষ্ঠীর কোটার পক্ষে বিএনপি

ডেস্ক রিপোর্টঃ-সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের দাবিকে ‘যৌক্তিক’ বলেছে বিএনপি। আগামীতে ক্ষমতায় গেলে মুক্তিযোদ্ধা, নারী ও প্রান্তিক জাতিগোষ্ঠির কোটা বাদে অন্য সব কোটা বাতিলের ঘোষণাও দিয়েছে দলটি।
কোটা সংস্কারের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো উত্তাল হওয়ার মধ্যে নয়া পল্টনে দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসে প্রতিক্রিয়া জানান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
তিনি বলেন, আমরা জানি এদেশকে সত্যিকার অর্থে গড়ে তুলতে হলে মেধার কোনো বিকল্প নাই। এই লক্ষ্যে স্থির থেকেও  আমরা সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো যৌক্তিক বিবেচনায় এনে ভিশন ২০৩০ তে বলেছি যে, মেধার মূল্যায়ন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় যথাযথ সংস্কার করা হবে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, নারী, ও প্রান্তিক জাতি-গোষ্ঠির কোটা ব্যাতি রেখে বাকি কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হবে।
বর্তমানে চাকরিতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জন্য পাঁচ শতাংশ, নারীদের জন্য ১০ শতাংশ এবং মুক্তিযুদ্ধের সন্তানদের জন্য ৩০ শতাংশ কোটা রয়েছে। এর বাইরে প্রতিবন্ধীদের জন্য এক শতাংশ, জেলা কোটা ১০ শতাংশ রয়েছে।
কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের উপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে ফখরুল বলেন, পুলিশি হামলায় অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী ও চাকরিপ্রার্থীসহ শতাধিক মানুষ গুরুতর আহত হয়। পুলিশি এই হামলার সাথে ছাত্রলীগের সশস্ত্র ক্যাডাররা যোগ দিয়ে রাতে শাহবাগ থেকে শুরু করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা পর্যন্ত রণক্ষেত্রে পরিণত করে।
গতকাল প্রার্থী ও ছাত্র-ছাত্রীদের যৌক্তিক দাবি আদায়ের আন্দোলন বিনা উস্কানিতে পুলিশের বর্বরোচিত আক্রমণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। যারা আহত হয়েছেন তাদের আশু সুস্থতা কামনা করছি এবং আন্দোলনের অংশগ্রহণকারী যাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানাচ্ছি।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, আন্দোলনের যে কোটার বিষয়টি মূল প্রতিপাদ্য সে সম্বন্ধে দেশের চার কোটি শিক্ষিত যুব সমাজের জীবন-জীবিকার প্রশ্নটি জড়িত। এই সম্বন্ধে বিএনপির নীতি-নির্ধারণী কমিটি সম্পূর্ণ অবহিত এবং বিষয়টি নিয়ে তারা উৎকণ্ঠিত।
সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, শামসুজ্জামান দুদু, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

অনগ্রসর বিবেচনায় নারী, নৃগোষ্ঠীদের জন্য জন্য সরকারি চাকরিতে যে কোটা রয়েছে, তা তুলে দেওয়ার পক্ষে মত জানিয়ে কোটা পর্যালোচনা কমিটির প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেছেন, অনগ্রসররা এখন অগ্রসর হয়ে গেছে। আপনি কি তার সঙ্গে একমত?