রবিবার, ১৭ অক্টোবর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ২৫ জুলাই, ২০২১, ০৭:০৮:০৫

রাস্তায় ধানের চারা রোপণ করে প্রতিবাদ

রাস্তায় ধানের চারা রোপণ করে প্রতিবাদ

ডেস্ক রির্পোট:-ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলার সাতৈর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের মধ্যপাড়া আরশাদের বাড়ি থেকে তারা আলীর বাড়ি পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে রাস্তাটি বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে কয়েক কিলোমিটারের এই কাঁচা রাস্তাটি চলাচলের একদমই অযোগ্য হয়ে পড়েছে। গত কয়েকদিনের একটানা বৃষ্টিতে রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে এলাকাবাসীর। স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বারদের একাধিকবার বলেও রাস্তাটি ভালো করার কোন উদ্যোগ নেয়নি কেউই। তার প্রতিবাদ স্বরুপ সেই রাস্তাটিতে ধানের চারা লাগালো স্থানীয়রা। এ নিয়ে এলাকায় বেশ আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে এ রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী হাজারো মানুষ প্রতিদিন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। বর্তমানে রাস্তাটি কাঁদা-পানিতে একাকার হয়ে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে অনেকেই পা পিছলে পড়ে আহত হচ্ছেন। এছাড়া এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে জুতা হাতে নিয়ে চলাচল করতে হয়। স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি খুব খারাপ থাকলেও কেউ কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছেনা। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের বলা হলেও তারা রাস্তাটি সংস্কারে কোন উদ্যোগ নেননি। মাঝে মধ্যে এলাকাবাসী নিজেদের উদ্যোগে মাটি কেটে রাস্তাটি সংস্কার করলেও বৃষ্টির কারণে ফের খারাপ হয়ে যায়। এ রাস্তা দিয়ে চলাচলকারীরা দীর্ঘদিন ধরে সমস্যার মধ্যে থাকলেও কর্তৃপক্ষের কোনও মাথা ব্যথা নেই। তাই বাধ্য হয়ে স্থানীয় এলাকাবাসী রবিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে রাস্তাটির বিভিন্ন স্থানে ধানের চারা রোপণ করে প্রতিবাদ জানান। সাতৈর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মুজিবুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ কাঁচা রাস্তাটির বেহাল দশা। বিগত ৫ বছর আগে কাবিখার মাধ্যমে রাস্তাটি সংস্কার করা হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে রাস্তাটির অবস্থা খুব খারাপ। রাস্তাটির এলজিইডি'র অধিভুক্ত করা হয়েছে। আমরা একাধিকবার ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছি রাস্তাটি সংস্কারের জন্য। এলাকাবাসীর কথা চিন্তা করে দ্রুত রাস্তাটি সংস্কার করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?