বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ,২০১৭

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ৩০ জুলাই, ২০১৭, ১১:৪৬:৩৩

বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধির খসড়া আপিল বিভাগের মনঃপূত হয়নি

বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধির খসড়া আপিল বিভাগের মনঃপূত হয়নি

ডেস্ক রির্পোটঃ-অধস্তন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধিমালার চূড়ান্ত খসড়া মনঃপূত হয়নি আপিল বিভাগের। খসড়া সম্পর্কে আদালত বলেছেন, এটা কিছুই হয়নি। আপিল বিভাগ থেকে যে সুপারিশ দেওয়া হয়েছিল তার কিছুই সেখানে নেই। আইন মন্ত্রী আমাদের সঙ্গে বৈঠকের পর পুরোপুরি ইউটার্ন করেছেন।’
অধস্তন আদালতের বিচারকদের শৃঙ্খলাসংক্রান্ত খসড়া বিধির বিষয়ে শুনানিকালে রবিবার (৩০ জুলাই) প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে ছয় সদস্যের পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চ থেকে এ মন্তব্য আসে।
তাই খসড়া নিয়ে সরকারের প্রতিনিধিদের বৈঠকের আহ্বান জানানো হয়েছে। এই সপ্তাহেই যে কোনোদিন বৈঠক হতে পারে বলে অভিমত দিয়েছেন আপিল বিভাগ।
সরকারকে উদ্দেশ্য করে প্রধান বিচারপতি বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে আসুন আমরা বৈঠকে বসি। মঙ্গলবার দুপুর ২টা থেকে বৃহস্পতিবার রাত ১২টা পর্যন্ত যেকোনো সময় বৈঠক হতে পারে। ওই বৈঠকে আপিল বিভাগের সব বিচারপতি উপস্থিত থাকবেন। একইসঙ্গে সরকারের পক্ষ থেকে আইন মন্ত্রী, অ্যাটর্নি জেনারেল এবং এ বিষয়ে কোনো বিশেষজ্ঞকে উপস্থিত থাকতে পারেন।
এই বৈঠকের আহ্বান জানিয়ে এক সপ্তাহের জন্য এ বিষয়ে শুনানি স্থগিত করা হয়েছে।
এর আগে গত ২৭ জুলাই প্রধান বিচারপতির কাছে শৃঙ্খলাবিধির খসড়া হস্তান্তরর করেন। ওইদিন সুপ্রিম কোর্টে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে বৈঠককালে এই খসড়া বিধিমালা হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী নিজেই।
বৈঠকের পর আইনমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, শৃঙ্খলা বিধির খসড়া আজ আমি প্রধান বিচারপতির কাছে হস্তান্তর করেছি। এটি এখন তিনি দেখবেন। এরপর খসড়া বিধিটি রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হবে। রাষ্ট্রপতির চূড়ান্ত অনুমোদনের পর এটি গেজেট আকারে জারি করা হবে।
২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে সরকার প্রণীত খসড়া শৃঙ্খলাবিধি সুপ্রিম কোর্ট তাদের সুপারিশসহ আইন মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করে। সেই থেকে এই বিধিরে গেজেট জারিতে ধারাবাহিকভাবে সময় নেয় সরকার।
আপিল বিভাগের নির্দেশনা বাস্তবায়ন না হওয়ায় ২০১৬ সালের ৮ ডিসেম্বর আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দুই সচিবকে তলব করেছিলেন আদালত। তবে ওই বছর ১১ ডিসেম্বর রাতে আইন মন্ত্রণালয় এক পরিপত্রের মাধ্যমে জানায়, নিম্ন আদালতের বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধির গেজেট প্রকাশের প্রয়োজনীয়তা নেই বলে রাষ্ট্রপতি সিদ্ধান্ত দিয়েছেন।
রাষ্ট্রপতির এ সিদ্ধান্তের সঙ্গে পরদিন ১২ ডিসেম্বর আপিল বিভাগ দ্বিমত পোষণ করেন। আদালত বলেছেন, ‘রাষ্ট্রপতিকে ভুল বোঝানো হচ্ছে।’ বিধি প্রণয়ন সম্পর্কে আপিল বিভাগ বলেন, ‘এটা বিচার বিভাগের স্বাধীনতার প্রশ্ন। এখানে কোনো কম্প্রোমাইজ নেই।’ তবে আপিল বিভাগের এই অভিমত সত্ত্বেও বিগত সাত মাসেও এই গেজেট জারি করা হয়নি।
উল্লেখ্য, মাসদার হোসেন মামলার রায়ের ৭ নম্বর নির্দেশনায় জুডিশিয়াল সার্ভিসের সদস্যদের জন্য পৃথক শৃঙ্খলাবিধি প্রণয়নের কথা বলা হয়েছে। ২০০৭ সালের নভেম্বরে নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগ পৃথকীকরণ বাস্তবায়ন হলেও এখনও পর্যন্ত বিচারকদের জন্য আলাদা শৃঙ্খাবিধি তৈরি করে তার গেজেট জারি করা হয়নি।

এই বিভাগের আরও খবর

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

পুলিশের আইজিপি এ কে এম শহিদুল হক বলেছেন, ‘দেশকে জঙ্গি, মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত করতে হলে পুলিশের পাশাপাশি জনগণকে কাজ করতে হবে।’ আপনিও কি তাই মনে করেন?