বুধবার, ২০ মার্চ ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

মঙ্গলবার, ১২ মার্চ, ২০১৯, ০৮:৪৯:৩৮

হাসপাতালে চিকিৎসকদের প্রাইভেট প্র্যাকটিসের ব্যবস্থা করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা

হাসপাতালে চিকিৎসকদের প্রাইভেট প্র্যাকটিসের ব্যবস্থা করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা

ডেস্ক রিপোর্টঃ-বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা যাতে হাসপাতালে বসেই প্রাইভেট প্রাকটিস করতে পারেন সেজন্য সরকারি হাসপাতালগুলোতে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
মঙ্গলবার (১২ মার্চ) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ‘সরকারি কর্মচারী হাসপাতালকে ৫০০ শয্যায় উন্নীতকরণ’ শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদনের সময় প্রধানমন্ত্রী এসব নির্দেশনা দেন বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।
সভার পর ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সরকারি হাসপাতালেই যাতে চিকিৎসকরা একটা উইং (শাখা) নিয়ে বসে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করতে পারেন সেভাবেই হাসপাতালের অবকাঠামো তৈরি করতে হবে। আপনারা বারডেমে দেখছেন একটা উইং আছে, স্পেশালিস্ট ডাক্তাররা বসেন। আমরা কেন এটা করব না।
মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, চিকিৎসক ও রোগীরা বাইরে বাইরে দৌড়ায়। এখানেই (হাসপাতালে) তাদেরকে একটা সুন্দর জায়গা দিয়ে দেন। এখানেই তারা প্র্যাকটিস করুক। যাতে চিকিৎসকদের বাইরে যেতে না হয় এবং রোগীরাও সরকারি হাসপাতালেই সেবা পান। তাই প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালের ভেতরই চিকিৎসকদের জন্য আলাদা চেম্বার করে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন।
মন্ত্রী মান্নান বলেন, একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালে ডে-কেয়ার সেন্টার, কিডনি, হার্ট, ক্যান্সার ও পক্ষাঘাতগ্রস্তদের জন্য আলাদা আলাদা ব্লক তৈরি এবং রোগীরা যাতে আলো-বাতাস পায়, এমনভাবে হাসপাতালের অবকাঠামো তৈরিরও নির্দেশ দিয়েছেন।
হাসাপাতালগুলোতে ডে-কেয়ার সেন্টারের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, কিছু কিছু নার্স বা সিস্টাররা আছেন, তাদের সন্তান থাকতে পারে। কিছু রোগী আছে, বাচ্চা কোলে নিয়ে আসে, এদের জন্য একটা ডে-কেয়ার সেন্টার করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।
কিডনি, হার্ট, ক্যান্সার ও পক্ষাঘাতগ্রস্তদের জন্য আলাদা আলাদা ব্লক ধীরে ধীরে তৈরি করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। এটা কিন্তু রাতারাতি হবেনা। তবে করতে হবে এখন থেকে। এগুলোর করার জন্য উইশ করেছেন।
এসময় তিনি সকল সরকারি হাসপাতালে আইসিও ব্যাবস্থা রাখার নির্দেশনাও দিয়েছেন বলে জানান মন্ত্রী।
পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, হাসপাতালের যে ধরনের ডিজাইন, দেখলে মনে হয় বাসা বা ফ্ল্যাট। মানে একটা হোটেল হোটেল ভাব। প্লেইনে যারা ঢাকায় এসেছেন, তারা বলেছেন, বন্দর বন্দর মনে হয় ঢাকাকে। হাজার হাজার কন্টেইনার যেন ওপর থেকে মনে হয়।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এটা পরিবর্তন করুন, ডিজাইনটা একটু সুন্দর করুন। খোলামেলা করুন। রোগীরা যাতে আলো-বাতাস পেতে পারে, সেই ব্যবস্থা করুন। প্রয়োজনে ব্যাংককে, চেন্নাইয়ে বাইরের দেশগুলোতে ভালো ভালো হাসপাতাল আছে, সেগুলো দেখে আসুন, তারা কীভাবে বিল্ডিংগুলো করছে, দেখুন।

এই বিভাগের আরও খবর

  উন্নয়ন প্রকল্পে তদারকি বাড়াতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা

  বাঘাইছড়িতে হামলায় হতাহতের ঘটনায় ইসির নিন্দা ও শোক

  নির্বাচনে অনিয়মের প্রতিশোধ মানুষের জীবন নিয়ে হয় না-সিইসি কেএম নুরুল হুদা

  ‘বাংলা ভাষার বঙ্গবন্ধু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

  সন্ত্রাস চিরতরে বন্ধ করার ব্যবস্থা নিনঃ বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি প্রধানমন্ত্রী

  টাঙ্গাইলে প্রধানমন্ত্রী, কুমুদিনী কমপ্লেক্সে ৩১ প্রকল্প উদ্বোধন

  বাংলাদেশে ফিরতে চায় ২০ আইএস জঙ্গি

  শিশুদের শিক্ষার জন্য অতিরিক্ত চাপ দেওয়া উচিত নয়-প্রধানমন্ত্রী

  প্রথম শ্রেণিতে ছাপানো প্রশ্নে পরীক্ষা বন্ধ করতে হবে-প্রধানমন্ত্রী

  ওবায়দুল কাদেরকে কেবিনে স্থানান্তর, দেয়া হচ্ছে নরম খাবার

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডাকসু নির্বাচনের সঙ্গে একাদশ সংসদ নির্বাচনের তুলনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এতে ৩০ ডিসেম্বরের ‘ভোট ডাকাতি’র পুনরাবৃত্তি ঘটেছে। আপনি কি তা মনে করেন?