রবিবার, ২৪ মার্চ ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ০৮ নভেম্বর, ২০১৮, ০১:৩২:৪৫

জনগণ ভোট দিলে আবার সরকার গঠন, না দিলে আফসোস নেই-শেখ হাসিনা

জনগণ ভোট দিলে আবার সরকার গঠন, না দিলে আফসোস নেই-শেখ হাসিনা

ডেস্ক রিপোর্টঃ-প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামী নির্বাচনে জনগণ ভোট দিলে পুনরায় সরকার গঠন করবো, আর না দিলে আফসোস নেই। তবে যারাই ক্ষমতায় আসুক, উন্নয়নের ধারা যেন অব্যাহত রাখে। বুধবার (৭ নভেম্বর) রাতে গণভবনে ২৫টি রাজনৈতিক দল-জোটের সঙ্গে সংলাপে সূচনা বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, সরকারের ধারাবাহিকতা থাকায় উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনও সংঘাত ছাড়াই প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রেখে সমুদ্র বিজয় এবং ভারতের সঙ্গে ছিটমহল বিনিময় সম্পন্ন হয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। এই অর্জন আমাদের ধরে রাখতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এর আগে নির্বাচনী ইশতেহারে দিন বদলের সনদ দিয়েছিলাম। আমরা সে সনদ বাস্তবায়ন করেছি। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় গণভবনের ব্যাঙ্কুয়েট হলে ১৪ দলীয় জোট ও ২৫টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে সংলাপ শুরু হয়। ২৫টি রাজনৈতিক দলের সাথে এ সংলাপে ১৪ দলীয় জোটের ২৩ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

এই বিভাগের আরও খবর

  ওবায়দুল কাদের শারীরিকভাবে সম্পূর্ণ সুস্থ ও শঙ্কামুক্ত

  'ইভিএম' এ ভোট হলে রাঙ্গমাটিতে নিহতের ঘটনা ঘটত না-নির্বাচন কমিশনার

  পদ্মাসেতুতে বসল নবম স্প্যান, দৃশ্যমান ১৩৫০ মিটার

  উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের জন্য যেন মানুষের ক্ষতি না হয়-প্রধানমন্ত্রী

  বাইপাস সার্জারি শেষে ভাল আছেন ওবায়দুল কাদের

  আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে: ডিএমপি কমিশনার

  তৃণমূল পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠানমালা ছড়িয়ে দিতে চাই-প্রধানমন্ত্রী

  রাঙ্গামাটির হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে নির্বাচনের কোনো সম্পর্ক নেই-হানিফ

  উন্নয়ন প্রকল্পে তদারকি বাড়াতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা

  বাঘাইছড়িতে হামলায় হতাহতের ঘটনায় ইসির নিন্দা ও শোক

  নির্বাচনে অনিয়মের প্রতিশোধ মানুষের জীবন নিয়ে হয় না-সিইসি কেএম নুরুল হুদা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডাকসু নির্বাচনের সঙ্গে একাদশ সংসদ নির্বাচনের তুলনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এতে ৩০ ডিসেম্বরের ‘ভোট ডাকাতি’র পুনরাবৃত্তি ঘটেছে। আপনি কি তা মনে করেন?