বুধবার, ১৫ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০৬ এপ্রিল, ২০১৮, ০৭:০২:৩৮

রোহিঙ্গাদের ফেরানোর বাস্তব অগ্রগতি নেই-প্রধানমন্ত্রী

রোহিঙ্গাদের ফেরানোর বাস্তব অগ্রগতি নেই-প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্টঃ-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে রোহিঙ্গা পুনর্বাসনে চুক্তি সম্পাদিত হওয়া সত্ত্ব্বেও এখন পর্যন্ত কোনো দৃশ্যমান বাস্তব অগ্রগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। সফররত অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মহাসচিব সলিল শেঠি বৃহস্পতিবার গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত্কালে তিনি এ কথা বলেন। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম ব্রিফিং করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের কয়েকজন মন্ত্রী বাংলাদেশ সফর করেছেন এবং বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দুরবস্থা দেখে গেছেন। আমরা বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছি। কিন্তু বাস্তবে কোনো অগ্রগতি হচ্ছে না। তিনি বলেন, দ্রুত এবং কার্যকরীভাবে রোহিঙ্গাদের চিহ্নিত করতে ইতোমধ্যেই রোহিঙ্গাদের বায়োমেট্রিক রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়েছে। বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষায় অত্যন্ত সচেতন। রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পুনর্বাসন সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, সরকার সেখানে অস্থায়ীভাবে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় কেন্দ্র তৈরি করছে।
সফররত অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মহাসচিব সলিল শেঠি বলেন, রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের সেনাবাহিনী পরিচালিত নির্যাতন একটি অপরাধ। সলিল শেঠি বলেন, তিনি কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো পরিদর্শন করেছেন, রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেছেন এবং রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের প্রমাণ উপগ্রহের ছবি ও ভিডিও থেকে পেয়েছেন। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা নারীরা এখনও ভীত-সন্ত্রস্ত। তিনি বলেন, মিয়ানমারকে অবশ্যই পূর্ণ নিরাপত্তা ও সুরক্ষিতভাবে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে হবে। রোহিঙ্গাদের পক্ষে এই ব্যাপারে আরো প্রচারণা ও চাপ থাকা উচিত। রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্বজুড়ে জনমতের চাপ সৃষ্টি করতে হবে। সলিল শেঠি বলেন, আসন্ন বর্ষা মৌসুমে প্রায় দশ লাখ রোহিঙ্গার ব্যবস্থাপনা খুবই চ্যালেঞ্জিং হবে। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।
জেলা উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণ উদ্বোধন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা মানুষের কাছে তুলে ধরতেই তার সরকার কাজ করে যাচ্ছে। দেশের জনগণ যাতে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা ও সংস্কৃতি ভালোভাবে রপ্ত করতে পারে সেজন্য সরকার প্রত্যেক জেলা-উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার গণভবন থেকে প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় প্রথম পর্যায়ে ৯টি স্থানে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন ও নির্মাণ কাজ উদ্বোধনকালে তিনি একথা বলেন। প্রাথমিকভাবে-গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়া, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, সিলেট, ঝালকাঠি, খুলনা, বগুড়া, নোয়াখালী এবং রংপুরে এই মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টার নির্মাণ করা হবে। অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী গতকাল গণভবনে এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের আওতায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের সদ্য সমাপ্তকৃত কোম্পানীগঞ্জ-মুরাদনগর-হোমনা মহাসড়ক ও গৌরীপুর-হোমনা সেতু, কুমিল্লার শাসনগাছা রেলওয়ে ওভারপাস এবং কুমিল্লার পদুয়াবাজার রেলওয়ে ওভারপাস-এর উদ্বোধন করেন।
ইসলামকে শান্তির ধর্ম হিসেবে আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই শান্তি যেন বজায় থাকে সেই দিকে আমরা লক্ষ্য রাখছি। তিনি বলেন, এদেশে সকল ধর্মের মানুষ বসবাস করে। প্রত্যেক ধর্মের মানুষই এদেশে স্বাধীনভাবে তার নিজ নিজ ধর্ম পালন করতে পারবে। এটাই ছিল জাতির পিতার চেতনা এবং চিন্তা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলাম প্রচার ও প্রসারের জন্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ২২ মার্চ ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলামের নাম নিয়ে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করে ধর্মের মূল শিক্ষা থেকে মানুষকে সরিয়ে নেয়া এবং নিরীহ মানুষ হত্যা করে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ সৃষ্টির মাধ্যমে আমাদের এই পবিত্র ধর্মের সুনাম নষ্ট করা হচ্ছে। আমরা চাই- ধর্মের মর্যাদা সমুন্নত থাকবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলামের প্রকৃত শিক্ষাটা যেন মানুষ পায় এবং ইসলামী সংস্কৃৃতিটা মানুষ যেন ভালোভাবে রপ্ত করতে পারে, চর্চা করতে পারে, সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি। প্রতিটি জেলায়-উপজেলায় আমরা ৫৬০টি মডেল মসজিদ তৈরি করে দেব। যেখানে সত্যিকারভাবে ইসলাম ধর্মের চর্চা হবে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরি রাজস্ব খাতে নিয়ে আসাতেও তার সরকারের পদক্ষেপের উল্লেখ করেন।
১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে জাতির উদ্দেশে বেতারে বঙ্গবন্ধু প্রদত্ত ভাষণের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ইনসাফের ইসলামে বিশ্বাসী। আমাদের ইসলাম হযরত নবী করিম (সা:) ইসলাম। যে ইসলাম জগত্বাসীকে শিক্ষা দিয়েছে- ন্যায় ও সুবিচারের অমোঘ মন্ত্র।’ আমরা সেটাই বিশ্বাস করি এবং আমাদের ধর্মের সেই মর্যাদাটা সমুন্নত থাকুক, বলেন প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী এ সময় তার সরকারের উদ্যোগে ইমাম-মুয়াজ্জিনদের জন্য ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের উদ্যোগ তুলে ধরে বলেন, আগে তাঁদের জন্য (ইমাম-মুয়াজ্জিনদের) কোন ব্যবস্থা ছিল না। আমি প্রথমবার যখন প্রধানমন্ত্রী হই সেই সময় এই ইমাম-মুয়াজ্জিন কল্যাণ ট্রাস্ট ফান্ড করে দেই। প্রধানমন্ত্রী লাখো শহীদের রক্তে রঞ্জিত এই বাংলাদেশকে গড়ে তুলতে সকলকে একযোগে কাজ করারও আহবান জানান।
অনুষ্ঠানে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব আনিসুর রহমান প্রকল্পের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের নেতা বেগম রওশন এরশাদ ময়মনসিংহ প্রান্ত থেকে এবং বাংলাদেশ ইমাম সমিতির সভাপতি কাজী শাকের আহমেদ চট্টগ্রাম প্রান্ত থেকে ভিডিও কনফারেন্সে বক্তৃতা করেন। ভিডিও কনফারেন্সটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। পরে প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, সিলেট, ঝালকাঠি, খুলনা, বগুড়া এবং নোয়াখালীর সকল শ্রেণি-পেশার জনগণের সঙ্গে মত বিনিময় করেন।
আমাদের রাজাপুর (ঝালকাঠী) সংবাদদাতা মো. মনিরুজ্জামান খান জানান, ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা পরিষদ চত্বর সংলগ্ন মাঠে ভিডিও কনফারেন্সিং অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব বজলুল হক হারুন এমপি, বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার মো. শহিদুজ্জামান, বরিশাল রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. আজাদ মিয়া, জেলা পুলিশ সুপার জোবায়েদুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, রাজাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মনিরউজ্জামান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফরোজা বেগম পারুলসহ জেলা ও উপজেলার সরকারি কর্মকর্তা, স্থানীয় সরকার প্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি- পেশার মানুষ।

এই বিভাগের আরও খবর

  0

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?