মঙ্গলবার, ১৪ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১২ মার্চ, ২০১৭, ১১:৪১:৩৮

আবাসিক হোটেলে মার্কিন সাংবাদিককে উত্যক্ত

আবাসিক হোটেলে মার্কিন সাংবাদিককে উত্যক্ত

কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ায় আবাসিক হোটেলে উত্যক্তের শিকার হয়েছেন আমেরিকান ফ্রিল্যান্স ফটো সাংবাদিক এ্যালিসন জয়েস।

বাল্যবিবাহ নিয়ে কাজ করতে এসে রাতযাপনে তিনি কুষ্টিয়া শহরের খেয়া আবাসিক হোটেলে উঠেন। গভীর রাতে হোটেল মালিক মদ্যপ অবস্থায় প্রায় আধাঘন্টা ধরে তার কক্ষের দরজা খোলার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ করেছেন এ্যালিসন জয়েস।

এ ঘটনায় হোটেল মালিকের বিরুদ্ধে তিনি কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নিকট লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

রোববার সকালে কুষ্টিয়ার ওই দুই কর্মকর্তার কাছে বিদেশি ফটো সাংবাদিক এ্যালিসন জয়েসের পক্ষে অভিযোগটি জমা দেন সুফি ফারুক ইবনে আবুবকর।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নারীদের নিয়ে কাজ করতে কুষ্টিয়া এসেছিলেন আমেরিকান ফ্রিল্যান্স ফটোজার্নালিস্ট এ্যালিসন জয়েস। গত ৬ মার্চ রাতে শহরের ছয় রাস্তার মোড়ে অবস্থিত খেয়া আবাসিক হোটেলে অবস্থান কালে রাত একটার দিকে হোটেলের মালিক পক্ষের অংশীদার বিশ্বনাথ সাহা বিশু মদ্যপ অবস্থায় তার কক্ষে প্রবেশ করতে মোবাইলে কল করেন। কল রিসিভ না করায় ৩০ মিনিট ধরে তিনি দরজা নক করেন। একপর্যায়ে হোটেলে থাকা অরেকটি চাবি দিয়ে গেট খোলার চেষ্টা করা হয়।

এ্যালিসন জয়েস বলেন, ঘটনার সময় কক্ষে একা অবস্থান করছিলাম। একজন নারী হিসেবে ওই সময় চরম আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিলাম। আতঙ্কিত অবস্থায় বাংলাদেশি সহকর্মী কুষ্টিয়ার ছেলে সাংবাদিক আলী এহসানকে মোবাইলে ঘটনাটি জানাই। আলী এহসান দ্রুত মটরসাইকেলযোগে সেখানে পৌঁছান এবং আরো কয়েকজনের সহযোগিতায় তাকে উদ্ধার করেন।

আলী এহসান রাত ৩টার দিকে এ্যালিসন জয়েসকে শহরের রোজ ভিউ হোটেলে নিয়ে যায়। কিন্তু সেই হোটেল কর্তৃপক্ষ জানান, কোনো মহিলাকে একা রুম ভাড়া দেয়া হয় না। সে দেশী হোক আর বিদেশি।

তিনি অভিযোগপত্রে আরো লিখেছেন, এখানে না আসলে জানতে পারতাম না মফস্বলের নারীরা কতটা বৈষম্যের শিকার হচ্ছে।

স্থানীয় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নিকট ওই দুই হোটেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করেছেন এ্যালিসন জয়েস।

অভিযোগ জমা দেয়ার সময় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন- কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম মেহেদী হাসান ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুজিব উল ফেরদৌস।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক জহির রায়হান বলেন, বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অভিযুক্ত হোটেল মালিক বিশ্বনাথ সাহা বিশু বলেন, উচ্চশব্দে গান-বাজনা হচ্ছে বলে তিনি মোবাইলে হোটেল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেছিলেন। কী সমস্যা হচ্ছে আমরা তার খোঁজ নিতে গিয়েছিলাম।

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?