সোমবার, ১৯ আগস্ট ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০১৯, ০৯:০৫:৫৪

লক্ষ্মীছড়িতে ছেলে ধরা সন্দেহে ৪ যুবক আটক

লক্ষ্মীছড়িতে ছেলে ধরা সন্দেহে ৪ যুবক আটক

খাগড়াছড়িঃ-খাগড়াছড়ি জেলার লক্ষ্মীছড়িতে ছেলেধরা সন্দেহে ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হচ্ছে- রুবেল মিয়া (২৮), সবুজ মিয়া (১৮), হুমায়ুন (১৫), মো. হানিফ (২৩)। তারা সবাই নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলার কোনাহালি গ্রামের বাসিন্দা।
তবে আটককৃত ৪ জন প্রকৃত ছেলেধরা কিনা তা নিয়ে পুলিশ ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করছে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে স্থানীয়দের তথ্যের ভিত্তিতে একটি ভাড়াবাসা থেকে তাদের আটক করা হয়।
থানা সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে ফটিকছড়ি থেকে সিএনজি যোগে লক্ষ্মীছড়িতে এসে ভাড়া বাসায় নেয় তারা। সারাদিন স্কুলের আঙ্গিনায় হাওয়াই মিঠাই বিক্রি করে নেত্রকোনা থেকে আসা এই ৪ জন ফেরিওয়ালা।
লক্ষ্মীছড়ি থানার অফিসার্স ইনচার্জ আবদুল জব্বার বলেন, আটককৃতরা ব্যবসা করতে আসছে বলে জানায়। সন্দেহজনকভাবে তাদের আটক করা হলেও আসলে প্রকৃতপক্ষে তারা ছেলেধরা কিনা তা তদন্ত চলছে।

এই বিভাগের আরও খবর

  খাগড়াছড়িতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী কামাল হোসেন’র অফিস দখলের চেষ্টার অভিযোগের বিরুদ্ধে মামলা

  খাগড়াছড়িতে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে কালো পতাকা মিছিল ও সমাবেশ

  রামগড়ে ফের ডাকাতি, স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাসহ আটক-৪

  দুষ্ককৃতিকারীরা বঙ্গবন্ধুকে মেরেছে! তার স্বপ্ন মারতে পারে নাই-আলহাজ্ব কাশেম

  বঙ্গবন্ধু বাকী খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে, ফাঁসি‘র রায় কার্যকর করা প্রধান কাজ-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

  বেতন বোনাস না পেয়ে পানছড়ি বেসরকারী মাধ্যমিক শিক্ষক-কর্মচারীদের ক্ষোভ

  খাগড়াছড়িতে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে এক রোগীর মৃত্যু, ডেঙ্গু আক্রান্ত ৬০ জন

  খাগড়াছড়িতে আদিবাসী দিবসে বাঙ্গালী সংগঠনের কর্মসূচী

  পার্বত্য শান্তি চুক্তি এখনো বাস্তবায়ন হয়নি ফলে পাহাড়ে স্থায়ী শান্তি ফিরেনি

  ডেঙ্গু শনাক্তে কিট ক্রয়ে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা অনুদান দিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী

  ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন-কংজরী চৌধুরী

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তির প্রেক্ষাপটে আইইডিসিআরের সাবেক পরিচালক মাহমুদুর রহমান বলছেন, মৃত্যুর ঘটনাগুলো ‘রিভিউ’ করার কোনো প্রয়োজন নেই, চিকিৎসকদের কথাই যথেষ্ট। আপনি কি তাকে সমর্থন করেন?