সোমবার, ২৮ মে ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১২ মে, ২০১৮, ০৭:১৯:৫৬

পার্বত্যাঞ্চলে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা চাঁদাবাজি ও অধিপত্যের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে খুনাখুনি করছে-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, এমপি

পার্বত্যাঞ্চলে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা চাঁদাবাজি ও অধিপত্যের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে খুনাখুনি করছে-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, এমপি

লিটন ভট্টাচার্য্য রানা, খাগড়াছড়িঃ-অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা পার্বত্যাঞ্চলে শান্তি চায় না, তারা চাঁদাবাজির অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতেই পাহাড়ে একের পর এক খুনাখুনি করে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন উপজাতীয় শরনার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্স চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী) কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, এমপি। তিনি বলেন, সন্ত্রাসীরা পাহাড়ের মানুষের রাজনীতি করে না এরা অস্ত্রের রাজনীতি করে, নিজেদের অধিপত্য নিয়ন্ত্রনে রাখার স্বার্থে সাধারন মানুষকে জিম্মি করে অস্ত্রের রাজনীতি করছে। ১৯৯৭ সালে শান্তি চুক্তির প্রধান ভূমিকারি রেখেছেন হেডম্যান কারবারীর। আজ শান্তিচুক্তির বাস্তবায়নের পথে যখন সরকার কাজ করছে ঠিক তখনি পার্বত্যঞ্চলে অন্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা নিরহ জনগনের উপর গুলি চালিয়ে মানুষ হত্যাসহ উন্নয়নের বাঁধা সৃষ্টি করছে। পাহাড়ে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের অশুভ শক্তিকে না বলতে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।
শনিবার (১২ মে) দুপুর শনিবার দুপুরে পৌর টাউন হলে ‘গোষ্ঠী-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে দেশ গড়ি, সম্প্রীতির খাগড়াছড়ি’ এ স্লোগানকে সামনে রেখে হেডম্যান কারবারীর সম্প্রীতি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
খাগড়াছড়ি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল মোতালেব সাজ্জাদ মাহমুদ পিএসসি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, জেলা প্রশাসক রাশেদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার আলী আহাম্মদ খান, হেডম্যান এসোসিয়েশনের সভাপতি স্বদেশপ্রীত চাকমা, কারবারী এসোসিয়েশনের সভাপতি রনিক ত্রিপুরা প্রমুখ।
এই সময় বক্তারা বলেন, পার্বত্যঞ্চলে অন্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা যদি পাহাড়ীদের জন্য কাজ করতো বাবুছড়া ২১ পরিবার ন্যারায়ছড়ির ৫০টি দোকানের মালিকরা ভিটা মাটি ছেড়ে গৃহ ছাড়া অন্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা কারণে। কই আঞ্চলিক সংগঠন গুলি একটা ইতিহাস রচনা করেছে এই এলাকার শিশুদের জন্য একটা স্কুল, না হয় এলাকাবাসির জন্য রাস্তা অথবা একটা কাঠের ব্রিজ করেছে। বক্তারা বলেন, সন্ত্রাসী গোষ্ঠি অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে হেডম্যান কারবারীদের জিম্মি করে প্রথা গত আইনের কোন কাজ করতে দিচ্ছেনা। অস্ত্র দেখিয়ে তাদের ফায়দা লুটে নিচ্ছে।
পার্বত্যাঞ্চলে উন্নয়নসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে সন্ত্রাসীরা বাধা প্রয়োগ করে থাকে শুধুমাত্র সন্ত্রাসীদের আধিপত্য টিকিয়ে রাখার জন্য দিন দুপুরে গাড়ী ড্রাইভার আঞ্চলিক সংগঠনের নেতা কর্মীদের মেরে তাদের পরিবারকে বিপথ গ্রস্থ্য করছে তেমনি সাধারণ জনগনের ভয়ভিতি কাজ কারছে। বাংলাদেশ সরকার জঙ্গি বাদদের বিরুদ্ধে কাজ করে বিশ্বের কাছে সুনাম অর্জন করেছে, এখন সময় এসেছে আপনাদের মাধ্যমে এলাকা থেকে অন্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের বিতারিত করে শান্তি স্থাপন করার।
তারা বলেন, ‘আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাংলাদেশ যাতে এগিয়ে যেতে পারে, সে উদ্দেশ্যে আমরা কাজ করছে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার। এ স্যাটেলাইটের মাধ্যমে শুধু যে বিনোদন হবে তা না, সার্বিকভাবেই আমাদের কাজে লাগবে। এটা ব্যবহার করে আমরা শিক্ষা, বিনোদন ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় কাজে লাগাতে পারবো। শুধুমাত্র আমাদের দেশই নয়, আমাদের আশেপাশের বিভিন্ন দেশে ভাড়া দিয়েও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে পারবো।’
সাবমেরিন কেবলের মাধ্যমে আজ আমরা ইন্টারনেট সেবা দিচ্ছি। এখন স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল, যেখানে এখনো ইন্টারনেট পৌঁছায়নি, পার্বত্য অঞ্চলে যে কোন স্থানে ইন্টারনেট পৌঁছে দিতে পারবো। টেকনোলজির সঙ্গে সঙ্গে আমরা চিকিৎসা সেবাও এগিয়ে নিতে চাই। সেবার এই সুযোগটি আরও উন্নতমানের হবে।
আমাদের দেশের নারীরা খুবই অবহেলিত থাকে। সারাদেশে কমিউনিটি ক্লিনিক তৈরি হওয়াতে এখন আর নারীদের কারও কষ্ট লাগব হতে হয় না। সেখানে ব্যবস্থা করা আছে হাসপাতালে গেলে আগে তাদের চিকিৎসা করতে হবে। কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে আমরা বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছি। এর ফলে শিশু মৃত্যু ও মাতৃমৃত্যু অনেক কমে গেছে।
বক্তারা আরো বলেন, পার্বত্যাঞ্চলের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, আইন-শৃংখলা রক্ষা এবং একটি সুখী সুন্দর সমাজ স্থিতিশীল গডনে হেডম্যান-কারবারীদের ভূমিকা অপরিসীম। কিন্তু তারা এখন সন্ত্রাসীদের কারণে অসহায়ের মতো কোন কিছু উন্নয়ন কার্যক্রমের সাথে জড়াতে পারছেনা। তাই সন্ত্রাসী যে হোক না কেন তাকে প্রতিহত করতে এলাকাবাসী একযোগে এগিয়ে আসে তাদের প্রতিহত করতে হবে।
হেডম্যান কারবারীর সম্প্রতি সম্মেলনে জেলার ৫৫জন হেডম্যান ও ৫৯৮জন কারবারীসহ স্থানীয় প্রশাসনের বিভিন্নস্তরের কর্মকর্তা সাংবাদিক ও রাজনীতি ব্যক্তিত্ব উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর

  গুইমারায় ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার

  খাগড়াছড়িতে সেপটিক ট্যাংকে নেমে দুই শ্রমিকের মৃত্যু

  সরকারও পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

  খাগড়াছড়ি জেলায় শিল্পকলা একাডেমির উদ্যেগে নজরুল জয়ন্তী উদযাপন

  উচ্চ শিক্ষা বৃত্তির আবেদনের আহবান করেছে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ

  মাটিরাঙ্গার নিখোঁজ বাহার মিয়ার পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিলো ৪০ বিজিবি

  দীঘিনালায় সাবেক ইউপিডিএফ সদস্য উজ্জল কান্তি চাকমাকে গুলি করে হত্যা

  খাগড়াছড়িতে দুই আঞ্চলিক গ্রুপের মধ্যে গুলিবিনিময়, এলাকায় আতংক

  মহালছড়ির মাইসছড়ি ইউনিয়নের ৪৭ লক্ষ ৮৫ হাজার টাকা বাজেট ঘোষণা

  সন্মিলিত ভাবে উন্নয়ন কর্মকান্ডের সুফল প্রত্যন্ত এলাকায় পৌছে দিতে হবে-সতীশ চন্দ্র চাকমা

  দীঘিনালায় ২ কেজি গাঁজাসহ ২ জন আটক

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?