বুধবার, ১৫ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ১১ এপ্রিল, ২০১৮, ০৭:৩৭:২৬

খাগড়াছড়িতে বৈসাবিকে ঘিরে চলছে ৩ দিনের উৎসবঃ জেলা পরিষদের আয়োজনে বর্ণাঢ্য র‌্যালী

খাগড়াছড়িতে বৈসাবিকে ঘিরে চলছে ৩ দিনের উৎসবঃ জেলা পরিষদের আয়োজনে বর্ণাঢ্য র‌্যালী

খাগড়াছড়িঃ-খাগড়াছড়িতে বৈসাবি উৎসবকে ঘিরে চলতে ৩ দিনের আনন্দ উল্লাস চলছে, বুধবার (১১ এপ্রিল) সকালে জেলা পরিষদের আয়োজনে বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে আবহমান কাল ধরে লালিত ঐতিহ্যবাহী কৃষ্টি ও সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ ত্রিপুরা স¤প্রদায়ের বৈসু, মারমাদের সাংগ্রাই আর চাকমাদের বিঝু (বৈসাবি) এবং বাঙালীদের চৈত্র সংক্রান্তি বর্ষবরণ উৎসব পালিত হচ্ছে। এ সময় বহুমূখী কৃষ্টি-সংস্কৃতির বর্ণিল শোভায় শোভিত হয় সমগ্র পার্বত্য অঞ্চলে। যেন পার্বত্য অঞ্চল জুড়ে উৎসবের আমেজ বৈসাবি আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেছে উপজাতি তরুন-তরুনীরা।
পহেলা বৈশাখে পার্বত্য চট্টগ্রামে মূল উৎসব বৈসাবি। পার্বত্যাঞ্চলের প্রধান সামাজিক বৈসাবি উৎসবকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে পার্বত্য অঞ্চলে খাগড়াছড়িতে শুরু হয়েছে নানা আনুষ্ঠনিকতা।
খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের আয়োজনে নানা কর্মসুচী পালনের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে নববর্ষ বরণ। উৎসব পালন উপলক্ষে বুধবার (১১ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯ টায় জেলা পরিষদ প্রাঙ্গন থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও র‌্যালীর বের করা হয়। র‌্যালীটি উদ্বোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রলালযের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো: নুরুল আমিন।
এসময় খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, খাগড়াছড়ি রিজিয়ন কমান্ডার আবদুল মোতালেব সাজ্জাদ মাহমুদ, জেলা প্রশাসক মো: রাশেদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার আলী আহমেদ খান, সিভিল সার্জন ডা: মো: শওকত হোসেন, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী টিটন খীষা, শরনার্থী বিষযক টাস্কফোর্সের প্রধান নির্বাহী কৃঞ্চ চন্দ্র চাকমা, পার্বত্য ঝো পরিষদ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী আপু, পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল, নির্মলেন্দু চৌধুরী, খোকনেশ্বর ত্রিপুরা, জুয়েল চাকমাসহ বিভিন্ন দপ্তরের ও প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এই বর্ণাঢ্য আয়োজনে নিজেদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরিধান করে হাজার-হাজার পাহাড়ি-বাঙালী নারী-পুরুষ-ছেলে-মেয়ে অংশ গ্রহন করেন। র‌্যালীটি পার্বত্য জেলা পরিষদ প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে খাগড়াছড়ি টাউন হলে এসে শেষ হয়। পরে টাউন হল প্রাঙ্গনে ত্রিপুরা, সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী গড়াইয়া নৃত্য, মারমাদের আকর্ষনীয়  জল কেলি (পানি খেলা) এবং চাকমাদের ঐতিহ্যবাহী জুম নৃত্য, সাওতাল স¤প্রদায়ের সাওতাল নৃত্যসহ বিভিন্ন কৃষ্ঠি কালচারের মধ্য দিয়ে ডিস্পে অনুষ্ঠিত হয়।
এছারাও বিকাল চারটায় সাংবাদিকতায়, শিক্ষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, সমাজসেবা, নারী উন্নয়ন, সাহিত্য ও মুক্তিযুদ্ধে অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ জেলার ২৫ জন গুনীজনকে সংবর্ধনা প্রদান করেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ। এবং সন্ধ্যায় এক মনোজ্ঞ বৈসাবি কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়।
এদিকে নববর্ষকে বরণ করে নিতে  খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়ন, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন সম্মিলিত ভাবে বৈসাবি ও বাংলা নববর্ষ বরণ করতে ব্যাপক কর্মসুচি  গ্রহণ করেছে।
এদিকে খাগড়াছড়ি জেলার অন্তত ২৫ জন গুণীজনকে সংবর্ধনা দিয়েছে পার্বত্য জেলা পরিষদ। বুধবার খাগড়াছড়ি টাউন হল মাঠে বিকাল ৪ টায় এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে তরুন কুমার ভট্টাচায্যর পরিচালনায় গুণীজনকে সংবর্ধনার বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। গুণীজনের মধ্যে রয়েছে- খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মো: নুরুল আজম, খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সভাপতি- জিতেন বড়–য়া, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার বিশিষ্ট সাংবাদিক বাবু সুনীল কান্তি দে। পার্বত্য জেলা পরিষদ অন্যান্য গুণীজনসহ বিশেষ সংবর্ধনা দিয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

  রামগড়ে ভাবগম্ভীর পরিবেশে জাতীয় শোক দিবস পালিত

  খাগড়াছড়ি ও দীঘিনালায় বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যে দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত

  বিএনপি-জামাত নির্বাচনের আগে নতুন প্রজম্মকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

  খাগড়াছড়িতে অপহৃত ৪ জনের মুক্তির দাবীতে সড়কে বিক্ষোভঃ অবশেষে ২২ ঘন্টা পর উদ্ধার

  ৪ গ্রামবাসীকে অপহরণের প্রতিবাদে খাগড়াছড়িতে তিন সংগঠনের বিক্ষোভ স্মারকলিপি পেশ

  মানিকছড়ির গৃহবধু সালমা হত্যাকান্ডের রহস্য খুঁজে বের করছে পুলিশ, আটক-৪

  খাগড়াছড়িতে সাংবাদিকদের মানববন্ধনঃ হামলার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে শাস্তির দাবি

  বর্তমান সরকার মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে এগিয়ে নিতে কাজ করছে-কংজরী চৌধুরী

  পাহাড়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির কল্যানে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে সেনাবাহিনী-মোঃ রকিব উদ্দিন খান

  একাত্তরের পরাজিত শত্রুরা এখনও নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে

  খাগড়াছড়িতে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত-১, আহত-২২

  0

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?