বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
SHARE

বৃহস্পতিবার, ১১ জানুয়ারী, ২০১৮, ০৬:৫৩:২৭

জনসংহতি সমিতি’র নেতৃবৃন্দকে জড়িয়ে দায়েরকৃত মামলার প্রত্যাহার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন

জনসংহতি সমিতি’র নেতৃবৃন্দকে জড়িয়ে দায়েরকৃত মামলার প্রত্যাহার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন

খাগড়াছড়িঃ-ইউপিডিএফ নেতা মিঠুন চাকমা হত্যার ঘটনায় জনৈক অনি বিকাশ চাকমা’র দায়ের করা মামলায় তিন কেন্দ্রীয় নেতাকে জড়ানোর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা)।
একই সাথে মামলা থেকে নেতাদের নাম প্রত্যাহার করার দাবিতে শুক্রবার বিকেলে খাগড়াছড়ি জেলাশহর এবং উপজেলা সদরসমূহে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোঘণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১১ জানুয়ারী) সকালে খাগড়াপুর কমিউনিটি সেন্টারে জনসংহতি সমিতি (এম এন লারমা) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সুধাকর ত্রিপুরা এসব তথ্য জানান।
উল্লেখ্য, ৩ জানুয়ারী দুপুরে ইউপিডিএফ নেতা মিঠুন চাকমাকে তাঁর বাড়ির কাছেই দূর্বৃত্তরা গুলী করে হত্যা করে। এ ঘটনার চারদিনের মাথায় ৬ জানুয়ারী প্রথমে পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। গত ৯ জানুয়ারী অনি বিকাশ চাকমা নামের এক ব্যক্তি মিঠুন চাকমা’র আত্মীয় পরিচয়ে জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা)-র চার প্রভাবশালী কেন্দ্রীয় নেতা এবং ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক)-এর ১৪ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে আরো একটি মামলা দায়ের করে।

এই বিভাগের আরও খবর

  অস্ত্রবাজ, চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসী যারা করে তাদের ছাড় নেই-বিগ্রেডিয়ার জেনারেল হামিদুল হক

  খাগড়াছড়িতে দূর্গা পুজায় সুষ্ঠু শান্তিপূর্ন পরিবেশ উদ্যাপনের লক্ষে মতবিনিময় সভা

  পাহাড়ি জনপদ খাগড়াছড়ি জেলাকে মাদকমুক্ত করা হবে-পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামান

  মাটিরাঙ্গায় স্কুল ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু

  নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারলে জাতিগোষ্ঠী ও দেশের পরিবর্তন আনা সম্ভব-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

  খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে ব্রিজ ভেঙ্গে ট্রাক পানিতে, ৪ জনকে উদ্ধার, নিহত-১

  রামগড়ে অজ্ঞাত যুবকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

  দীঘিনালায় ব্যাটারি চালিত টমটমে পথচারীরা অতিষ্ঠ

  দীঘিনালা মোবাইল কোর্টে জরিমানা

  কবাখালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সততা স্টোর উদ্বোধন

  দীঘিনালায় মাইনী নদীতে বন্ধুর সাথে গোসল করতে গিয়ে স্কুল ছাত্র নিখোঁজ

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে চালু হওয়া ‘না’ ভোট একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ সংশোধনের উদ্যোগের মধ্যে পুনঃপ্রবর্তনের প্রস্তাব করেছে নাগরিক সংগঠন সুজন। আপনি কি তা সমর্থন করেন?