শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ,২০১৮

Bangla Version
SHARE

সোমবার, ০৮ জানুয়ারী, ২০১৮, ০৭:৩০:০৯

পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা না নেয়ার অভিযোগ, জেলা ও উপজেলায় বিক্ষোভসহ ৭ দফা কর্মসূচি ঘোষণা

পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা না নেয়ার অভিযোগ, জেলা ও উপজেলায় বিক্ষোভসহ ৭ দফা কর্মসূচি ঘোষণা

খাগড়াছড়িঃ-মিঠুন চাকমা হত্যা ও পার্বত্য চট্টগ্রামের বিদ্যমান পরিস্থিতির আলোকে সোমবার (৮ জানুয়ারী) খাগড়াছড়িতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)। 
সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী ৯ জানুয়ারি থেকে ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত জেলা-উপজেলা সদরে বিক্ষোভ, স্মরণসভা, প্রদীপ প্রজ্জ্বলন, সংহতি সমাবেশসহ ধারাবাহিক কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। জেলা সদরের স্বনির্ভরস্থ সংগঠনের কার্যালয়ে সোমবার সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ইউপিডিএফ-এর কেন্দ্রীয় সদস্য নতুন কুমার চাকমা। এসময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন ইউপিডিএফ-এর খাগড়াছড়ি জেলা সংগঠক মাইকেল চাকমা।
লিখিত বক্তব্যে নতুন কুমার চাকমা বলেন, মিঠুন চাকমাকে একজন পরিচিত ও জনপ্রিয় নেতা উল্লেখ করে বলেন, ‘তার হত্যাকা- সংঘটিত হওয়ার পর দেশে বিদেশে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়। গত ৫ জানুয়ারি মিঠুন চাকমার দাহক্রিয়া অনুষ্ঠান ও স্বনির্ভরে মিঠুন চাকমার স্মরণে সংহতি সমাবেশ ছিল। পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা থাকার কারণে তার দাহক্রিয়া ও সংহতি সমাবেশে যোগদানের লক্ষ্যে বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার লোকজন আসতে থাকে। কিন্তু পথে পথে বিভিন্ন চেকপোস্টে গাড়ি আটকিয়ে দিয়ে লোকজনকে ফেরত পাঠানো হয়। ফলে হাজার হাজার মানুষ দাহক্রিয়া ও সংহতি সমাবেশে যোগদান করতে পারেনি।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমাদের মনে প্রশ্ন জাগে, প্রশাসনের নাকের ডগায় বলয়ভুক্ত এলাকায় এই নব্য মুখোশবাহিনী কিভাবে মিঠুনের মত এক পরিচিত রাজনৈতিক কর্মীকে তুলে নিয়ে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করে হত্যার দুঃসাহস দেখাতে পারে। হত্যার ৪ দিন অতিবাহিত হলেও প্রশাসন খুনীদের গ্রেফতার করতে পারেনি, এ ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতাও লক্ষ্য করা যায়নি। তাই সংবাদ সম্মেলন থেকে শহীদ মিঠুনসহ ইউপিডিএফ নেতা-কর্মী খুনীদের গ্রেফতার-শাস্তির দাবীতে তিন পার্বত্য জেলায় বিক্ষোভসহ ধারাবাহিক বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। 
কর্মসূচিগুলোর মধ্যে রয়েছে- ৯ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি জেলার ৮টি উপজেলা সদরে বিক্ষোভ; ১১ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি জেলা সদরে বিক্ষোভ; ১৪ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি সদরে স্মরণসভা ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলন; ১৭ জানুয়ারি রাংগামাটি ও বান্দরবানে সংহতি সমাবেশ ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলন; ১৯ জানুয়ারি ঢাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সংহতি সমাবেশ ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলন; ২৮ জানুয়ারি পিসিপি’র শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অগণতান্ত্রিক সার্কুলার প্রত্যাহারসহ ৮ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি প্রদান।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন ইউপিডিএফ-এর খাগড়াছড়ি জেলা সংগঠক মাইকেল চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জিকো ত্রিপুরা, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি)-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি বিনয়ন চাকমা ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নিরূপা চাকমা প্রমুখ।

এই বিভাগের আরও খবর

  মাটিরাঙ্গার ইউএনও বিএম মশিউর রহমানের বিদায় সংবর্ধনা

  দীঘিনালায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ বদলী চেয়ে বেতছড়ি এলাকাবাসীর মানববন্ধন

  খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় স্কুল ক্যাম্পাসে এনজিও অফিস!

  গুইমারাতে একই দিনে দুই স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

  দৃষ্টি প্রতিবন্ধী কালাকচু চাকমার স্বপ্নপূর! নতুন ঘর দিল দীঘিনালা জোন

  খাগড়াছড়ি পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশনের দুই দিনের কর্মবিরতিঃ নাগরিক সেবাদান বন্ধ

  স্বাধীনতা যুদ্ধে পুলিশের গৌরব অক্ষুন্ন রেখে ভাবমূর্তি আরো উজ্জ্বল করতে হবে-কমিশনার ইকবাল বাহার

  খাগড়াছড়ির রামগড়ে অস্ত্র ও গুলিসহ দুই সন্ত্রাসীকে আটক করেছে যৌথবাহিনী

  নব্য মুখোশবাহিনীর হাতে নিহত ইউপিডিএফ নেতা মিঠুন চাকমার স্মরণে খাগড়াছড়িতে স্মরণসভা ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলন

  খাগড়াছড়িতে রক্তদাতার রক্ত নিয়ে বিক্রির অভিযোগ প্রাইভেট ক্লিনিকের বিরুদ্ধে

  মিঠুন চাকমা হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ এর বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

পুলিশের আইজিপি এ কে এম শহিদুল হক বলেছেন, ‘দেশকে জঙ্গি, মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত করতে হলে পুলিশের পাশাপাশি জনগণকে কাজ করতে হবে।’ আপনিও কি তাই মনে করেন?