সোমবার, ১৮ জুন ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১৪ আগস্ট, ২০১৭, ০৮:৩৮:২৫

অসত্য তথ্য প্রচার করছে সরকার

অসত্য তথ্য প্রচার করছে সরকার

ডেস্ক রির্পোটঃ-সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক সুলতানা কামাল বলেছেন, ইউনেস্কোর বক্তব্য উল্লেখ করে সরকার অসত্য তথ্য প্রচার করছে। তিনি বলেন, সুন্দরবনের কাছে রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কোনো যৌক্তিকতা নেই।
সরকার উন্নয়নের নামে ধ্বংসের খেলা শুরু করেছে। রবিবার (১৩ আগষ্ট) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘সুন্দরবনের পাশে তিন শতাধিক নতুন শিল্প-কারখানা স্থাপনে অনুমোদন প্রক্রিয়ার প্রতিবাদ ও বাতিলের  দাবি’তে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট কলামিস্ট ও বুদ্ধিজীবী সৈয়দ আবুল মকসুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক বদরুল ইমাম, নিজেরা করি’র নির্বাহী পরিচালক খুশী কবির, বাপার সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরিফ জামিল প্রমুখ। সুলতানা কামাল বলেন, সরকারের বেআইনি কর্মকাণ্ডের কারণে সুন্দরবন এখন ধ্বংসের সর্বোচ্চ হুমকির সম্মুখীন। তিনি বলেন, গণমাধ্যম সূত্রে অবগত হয়েছি যে, জাতীয় পরিবেশ কমিটি সুন্দরবন ঘেঁষে ৩২০টি শিল্প-কারখানা স্থাপনের অনুমতি দিয়েছে। এই কারখানার অনেকগুলোই পরিবেশ এবং সুন্দরবনের জন্য মারাত্মক দূষণকারী স্থাপনা। এসব কারখানা নির্মাণ না করার জন্য সরকারের প্রতি আমরা আবেদন জানাচ্ছি। সুলতানা কামাল বলেন, রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বিষয়ে সরকারি পরিবেশগত সমীক্ষা ও অন্যান্য প্রতিবেদন অবিলম্বে বাতিল করতে হবে। ইউনেস্কোর নেতৃত্বে একটি আন্তর্জাতিক, নিরপেক্ষ ও বিজ্ঞানভিত্তিক পরিবেশগত সমীক্ষা পরিচালনা করে নতুন স্থান নির্ধারণ করতে হবে। আবুল মকসুদ বলেন, রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিলের দাবিতে আমরা আন্দোলন করেছি। এত কিছুর পরও সরকারের টনক নড়েনি। আমাদের দাবি মেনে নিলে প্রয়োজনে সরকারের পায়ে ধরতাম। বলতাম, দয়া করে এ প্রকল্পে আর হাত দেবেন না। সেটা সম্ভব হতো যদি সরকার একজন মানুষ হতো, কিন্তু সরকার কোনো একজন মানুষ নয়; এর সঙ্গে আরও অনেকে জড়িত। তিনি বলেন, সুন্দরবনের পাশে রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ যে ক্ষতিকর হবে তা আজকে হয়তো কেউ বুঝতে পারছে না। কিন্তু এ প্রকল্পের জন্য ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আমাদের ক্ষমা করবে না। সরকার আমাদের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। তারা যত শক্তিশালী হোক আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাব। মকসুদ বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়ন আমরাও চাই। সরকার একা চাইলে হবে না, সরকারের উচিত হবে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে উন্নয়ন করা। রামপাল নিয়ে যা করা হচ্ছে তাতে উন্নয়নের নামে আত্মহত্যার দিকে এগোচ্ছি আমরা। এটা বন্ধ করতে হবে। নিজেরা করি’র নির্বাহী পরিচালক খুশী কবির বলেন, আমরা আমাদের দেশের সম্পদ ধ্বংস করতে দিতে পারি না। আমরা উন্নয়নের বিরুদ্ধে নয়। আমরা চাই টেকসই উন্নয়ন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?